চট্টগ্রামে মাদকদ্রব্য ধংস করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশ:| রবিবার, ১৬ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ১০:৩১ অপরাহ্ণ

হোসেন বাবলাঃ
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন এর উপস্থিতিতে রবিবার চট্টগ্রামের কোস্টগার্ড পূর্ব জোনের কার্যালয়ে বিপুল পরিমান বিভিন্ন মাদকদ্রব্য ধংস করেছে কোস্টগার্ড । বিগত কয়েক বছর ধরে চট্টগ্রামে বিভিন্ন এলাকা এবং বঙ্গোপসাগরে অভিযান চালিয়ে এসব মাদক দ্রব্য উদ্ধার করেছিল কোস্টগার্ড। এক বছরে উদ্ধারকৃত এসব মাদকের মূল্য প্রায় ২৪১ কোটি ৭৮ লাখ টাকা। অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, কোস্ট গার্ডের সদস্যরা তাদের অক্লান্ত প্ররিশ্রম, প্রশংসনীয় দক্ষতা এবং পেশাগত উৎকর্ষতা দিয়ে সমগ্র দেশবাসী জন নিরাপত্তা দিয়ে যে,সাফল্য দেখাচ্ছে তা অত্যন্ত প্রসংশিত।তিনি তার বক্তব্যে বলেন, মাদক জঙ্গি-সন্ত্রাসের চেয়েও ভয়ংকর বেদী।
তিনিআরো বলেন, শেখ হাসিনার সরকার গণন্ত্রিক উন্নয়নে অবদান রেখে বহিঃবিশ্বে দেশবাসীর ভাবমূর্তি বৃদ্ধিতে কোস্ট গার্ড বাহিনীর সদস্যরা অসামান্য অবদান রেখে চলেছে । দেশের বিস্তীর্ণ উপকূলীয় এলাকায় গুরুত্বপূর্ণ নদীপথ সংলগ্ন এই বহিনীর কার্যক্রম প্রসারের সকল প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক খন্দকার রাকিবুর রহমান, কোস্ট গার্ড মহাপরিচালক রিয়ার এডমিরাল আওরঙ্গজেব চৌধুরী এবং কোস্ট গার্ড পূর্ব জোনের জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন শহীদুল ইসলাম,র্যা ব-৭এর অধিনায়ক,জেলা প্রশাসক,পুলিশ কমিশনার,জনপ্রতিনিধি সহ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর ও সামরিক বেসামরিক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ । ধ্বংসকৃত মাদক দ্রব্য গুলোর মধ্যে ছিল ৪৮ কোটি ১৮ লাখ ৩৫৬ পিছ ইয়াবা, ৭ হাজার ৩৬০ ক্যান বিয়ার, ১৯৯৮ বোতল বিদেশী মদ, ৮ বোতল বাংলা মদ ও ৩.৫ কেজি গাঁজা।
এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন চট্রগ্রাম সার্কিট হাউসে জেলার আইনশৃংখলা বিষয়ে জানতে বিভিন্ন স্তরের সদস্যদের নিয়ে এক জরুরী সভাতে মিলিত হন। সেখানে তিনি জেলাপ্রশাসক,বিভাগীয় কমিশনার,আইজিপি ,পুলিশ কমিশনার,জেলা পুলিশ সুপার সহ নির্বাচিত জন প্রতিনিধিদের জানতে চান চট্রগ্রাম আইন শৃংখলার দিক দিয়ে কতোটা নিরাপদ। এছাড়া সাধারণ মানুষ কতটা নিরাপদ মনে করেন আইন শৃংখলা বাহিনীর প্রতি।
সাকির্ট হাউসের ঐ জরুরী সভাতে মন্ত্রীর সাথে উপস্থিত ছিলেন-জেলাপ্রশাসক সামশুল আরেফিন,পুলিশ কমিশনার ইকবাল বাহার,পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা,সির্ভিল সার্জন ডাঃ আজিজুর রহমান সিদ্দিকী সহ চট্রগ্রাম আইন শৃংখলা কমিটির সদস্য এবং বিভিন্ন উপজেলার চেয়ারম্যান সহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।