চট্টগ্রামে ভূমিধস হচ্ছে মনুষ্য সৃষ্ট কারণে

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৪ জুলাই , ২০১৭ সময় ০৮:৩০ অপরাহ্ণ

ভূমিধসের কারণ চিহ্নিতকরণ ও ভবিষ্যতে করণীয় নির্ধারণের বিষয়ে সুপারিশ প্রণয়নের লক্ষ্যে গঠিত কমিটির প্রথম সভায় বক্তারা বলেছেন, চট্টগ্রাম বেশীরভাগ সময় মনুষ্য সৃষ্ট কারণে ভূমিধস হচ্ছে। তাই বেআইনীভাবে পাহাড় কাটা, বৃক্ষ নিধন বন্ধ করতে হবে।

সভায় অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন), বলে জানান। তিনি করার উদাত্ত আহবান জানান। এ লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানসমূহকে একযোগে কাজ করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে মর্মে সভায় মতামত ব্যক্ত করা হয়।

আজ মঙ্গলবার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় এর অতিরিক্ত সচিব সত্যব্রত সাহার সভাপতিত্বে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এর সম্মেলন কক্ষে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় এর যুগ্ম সচিব, ড. অর্ধেন্দু শেখর রায়ের পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) সৈয়দা সওয়ার জাহান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিদ্যা বিভাগ এর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সহযোগী অধ্যাপক, ভূগোল ও পরিবেশ বিদ্যা বিভাগ অধ্যাপক আবদুল হক প্রমুখ।

সভায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান বলেন, পাহাড় নিষ্কন্টক করার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ ও বিশেষজ্ঞদের সহায়তা নেয়ার প্রয়োজন। পাহাড়ে কোন অবস্থায় বসতি স্থাপন করতে করতে দেওয়া যাবেনা। উচ্ছেদ অভিযানে গেলে কারা বাঁধা দেয় তাদেরও তালিকা করতে হবে।

সভায় অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) সৈয়দা সওয়ার জাহান চট্টগ্রাম বেশীরভাগ সময় মনুষ্য সৃষ্ট কারণে ভূমিধস হয় উল্লেখ করে বলেন, বেআইনীভাবে পাহাড় কাটা, বৃক্ষ নিধন বন্ধ করার উদাত্ত আহবান জানান।

সভায় উপস্থিত ছিলেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর, যুগ্ম-সচিব, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, যুগ্মসচিব, স্থানীয় সরকার বিভাগ, সদস্য-পরিকল্পনা, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন, উপ-সচিব, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়, উপ-সচিব, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, উপ-সচিব, ভূমি মন্ত্রণালয়, অধ্যাপক, ভূগোল ও পরিবেশ বিদ্যা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, সহযোগী অধ্যাপক, ভূগোল ও পরিবেশ বিদ্যা বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, উপ-পরিচালক, স্থানীয় সরকার, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, বান্দরবান পার্বত্য জেলা, উপ-পরিচালক, স্থানীয় সরকার, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক), কক্সবাজার, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা, সাংবাদিক (প্রতিনিধি), কক্সবাজার প্রেস ক্লাব প্রতিনিধি, ইউএনডিপি, সভাপতি, চট্টগ্রাম, খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি প্রেস ক্লাবসহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিতছিলেন।


আরোও সংবাদ