চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতা নিরসনে কাজ করবে সিডিএ

প্রকাশ:| বুধবার, ৯ আগস্ট , ২০১৭ সময় ০৯:১৫ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতা নিরসনে এবার মাঠে নামছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ)। এ জলাবদ্ধতা নিরসনে সিডিএ’র প্রস্তাবিত ৫ হাজার ৬’শ ১৬ কোটি টাকার প্রকল্প আজ জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) অনুমোদন হয়েছে।

একনেকের এ সভায় সিডিএকে বাস্তবায়নের দায়িত্ব দিয়ে ‘চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিয়ন্ত্রণকল্পে খাল পুন:খনন, সম্প্রসারণ, সংস্কার ও উন্নয়ন’ প্রকল্পটির চূড়ান্ত অনুমোদ দেয়া হয়। রাজধানীর শেরে বাংলানগরে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক সভায় এ সভায় সভাপতিত্ব করেন একনেক চেয়ারপার্সন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
জানা যায়, চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিয়ন্ত্রণকল্পে খাল পুন:খনন, সম্প্রসারণ, সংস্কার ও উন্নয়নে উক্ত প্রকল্পের আওতায় চট্টগ্রামের ৩৬টি খাল খনন করবে সিডিএ। সরকারি অর্থায়নে ৫ হাজার ৬১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে চলতি সময় থেকে ২০২০ সালের জুন মেয়াদে বাস্তবায়িত হবে এ প্রকল্পটি। মেগা প্রকল্পটির আওতায় চট্টগ্রামকে ঘিরে মহাপরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। নগরীর গুরুত্বপূর্ণ খালগুলোর পাড়ে রাস্তা নির্মাণের মাধ্যমে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন ও খালগুলো পরিষ্কার করা হবে। খালের সঙ্গে সংযোগকারী পাকা ড্রেনগুলোর সংষ্কার ও সম্প্রসারণের মাধ্যমে বৃষ্টির পানি দ্রুত সময়ে নিষ্কাশনের ব্যবস্থাও থাকছে প্রকল্পে। এ লক্ষ্যে ৩৬টি খালের ৫ লাখ ২৮ হাজার ২১৪ ঘনমিটার মাটি খনন করা হবে। নির্মিত হবে তিনটি জলাধার, দুই হাজার বৈদ্যুতিক পুল, ৮৮টি স্ট্রিট লাইট, ছয়টি কালভার্ট, ৮৬ কিলোমিটার সড়ক ও ৪৮টি পিসি গার্ডার সেতু। ১১ কিলোমিটার সাইড ড্রেনসহ ওয়াকওয়েও নির্মিত হবে চট্টগ্রাম নগরীজুড়ে। পুরো প্রকল্পের আওতায় ৬ হাজার ৫১৬ কাঠা জমি অধিগ্রহণ করা হবে।

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নে আমাকে অনেক কাজ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে ‘লালখান বাজার থেকে শাহ আমানত বিমানবন্দর পর্যন্ত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ’ প্রকল্প দিয়েছেন। সাড়ে ১৬ কিলোমিটার চার লেনের এক্সপ্রেসওয়েটি নির্মাণে মোট ব্যয় হবে ৩ হাজার ২৫১ কোটি টাকা। এ প্রকল্পের অনুমোদন দেয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।


আরোও সংবাদ