চকরিয়া সহকারী কমিশনার(ভূমি)কে প্রত্যাহারের দাবীতে মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ সভা

প্রকাশ:| সোমবার, ২৭ অক্টোবর , ২০১৪ সময় ১০:৫০ অপরাহ্ণ

সরকারী কর্মকর্তাকে লাঞ্চিত করার প্রতিবাদ

কক্সবাজার অফিস
চকরিয়া সহকারী কমিশনার(ভূমি)কে প্রত্যাহারেরচকরিয়ায় ক্ষমতার অপব্যবহার করে সহকারী কমিশনার(ভূমি) কর্তৃক কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তাকে লাঞ্চিত করার প্রতিবাদে এক প্রতিবাদ সভা ও মানব বন্ধন অনুষ্টিত হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উদ্যোগে গতকাল ২৭ অক্টোবর সকাল ১০টায় উপজেলা চত্বরে এ প্রতিবাদ সভা ও মানব বন্ধন অনুষ্টিত হয়। এতে ২৪ ঘন্টার আলটিমেটাম দিয়ে সহকারী কমিশনার(ভূমি)মোঃ মাঈন উদ্দিনকে প্রত্যাহারের দাবী জানানো হয়েছে।
মানব বন্ধনের সময় উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আতিক উল্লাহ বলেছেন, চকরিয়ার সহকারী কমিমিশনার(ভূমি) মোঃ মাঈন উদ্দিন অন্যায়ভাবে কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আহসানুল হাবিব আল আজাদ জনিকে লাঞ্চিত করেছেন। এই কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা একজন বিসিএস ক্যাড়ার হওয়ার পরও সহকারী কমিমিশনার(ভূমি) উপস্থিত থেকে পুলিশ দিয়ে তার শরীরে হাত দিয়ে হেনস্তা করেছে। কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী ছাড়াও সহকারী কমিমিশনার(ভূমি) মোঃ মাঈন উদ্দিন কর্তৃক ক্ষতিগ্রস্ত ও ভূক্তভোগীরা এ মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ সভায় অংশ নেন। কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীরা জানিয়েছেন; সহকারী কমিশনার(ভূমি)কে লাঞ্চিত কর্মকর্তার কাছে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে। ২৪ ঘন্টার মধ্যে তাকে প্রত্যাহার করতে হবে। সার, বীজ, কীটনাশক মোবাইল কোর্টের আওতায় না রেখে সংশ্লিষ্ট বিভাগের বিসিএস(কৃষি) ক্যাড়ার কর্মকর্তাদের হাতে ম্যাজিষ্ট্রেসি ক্ষমতা দিতে হবে। সকল সস্তরের কৃষিবিদ, ডিপ্লোমা কৃষিবিদ, সকল কর্মকর্তাদের মাঠ পর্যায়ে মান সম্মান অক্ষুন্ন রাখার নিশ্চিয়তা দিতে হবে। কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আতিক উল্লাহ বলেছেন; সরকারী দায়ীত্ব পালনের সময় একজন বিসিএস ক্যাড়ারের সরকারী কর্মকর্তাকে শারীরিক লাঞ্চিত করার ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন চকরিয়ার সহকারী কমিশনার(ভূমি) মোঃ মাঈন উদ্দিন। মানব বন্ধনে উপস্থিত উপজেলার উত্তর লক্ষ্যার চর ইউনিয়নের ব্যবসায়ী নূরুল আবছার জানান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সময় তাকে ৫ লাখ ২হাজার ৫শত টাকা র অর্থ দন্ড করেছে। অথচ তাকে রসিদ দেয়া হয়েছে মাত্র ২লাখ টাকার। বাকী টাকার রসিদের জন্য তিনি প্রতিদিন তার অফিসে ধর্ণা দেয়ার পরও তাকে দেয়া হয়নি। এভাবে আরও অনেক ভূক্তভোগী চকরিয়ার সহকারী কমিশনার(ভূমি)র বিরুদ্ধে তাদের নানা অভিযোগ তুলে ধরেছেন। তাছাড়া মানব বন্ধনে উপস্থিত অনেকে চকরিয়া ভূমি অফিসের লাগামহীন দূর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। উল্লেখ্য গত বৃহস্পতিবার চকরিয়া পৌরসভা এলাকায় কীটনাশকের দোকানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সময় সহহারী কমিশনার(ভূমি) মোঃ মাঈন উদ্দিন কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আহসানুল হাবিব আল আজাদ জনিকে লাঞ্চিত করেন।