চকরিয়ায় যৌতুক দাবিতে গৃহবধুকে শারিরীক নির্যাতনের অভিযোগ

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১১ মার্চ , ২০১৪ সময় ০৯:৫৪ অপরাহ্ণ

মুহাম্মদ জিয়াউদ্দীন ফারুক,চকরিয়াঃ
কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নে পাঁচ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে আছমা ফেরদৌসী কাজল (২৮) নামের এক গৃহবধুকে স্বামীর নির্দেশে তার পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে শারিরীক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় নির্যাতিত ওই গ্রহবধু বাদি হয়ে মঙ্গলবার (১০মার্চ) চকরিয়া থানায় স্বামীসহ ৫জনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা (নম্বর-১৮) রুজু করেছেন।
মামলার এজাহার সুত্রে জানা গেছে, চকরিয়া পৌরসভার দুই নম্বর ওয়ার্ডের হালকাকারা গ্রামের ফেরদৌস আহমদের মেয়ে আছমা ফেরদৌসী কাজলের সাথে ২০০৫সালের ৩০ ডিসেম্বর সামাজিকভাবে বিয়ে হয় উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের দক্ষিণ বহদ্দারকাটা গ্রামের মৃত ফেরদৌস আহমদের ছেলে শফিউল আলমের সাথে। বিয়েতে মেয়ের পরিবার পাঁচ ভরি স্বর্ণ, একটি মোটর সাইকেল, কাপড়-চোপড় ও আসবাবপত্রসহ বিপুল মালামাল যৌতুক হিসেবে দেন। এজাহারে বাদি আরো জানান, বিয়ের পর তাদের সংসার জীবন ভালভাবে অতিবাহিত হয়ে আসছে। বর্তমানে ফেরদৌস আবু তাসিন (৭) নামে তাদের একটি ছেলে সন্তানও রয়েছে। মামলার এজাহারে বাদি আছমা ফেরদৌসী কাজল অভিযোগ করে জানান, প্রায় তিনবছর আগে তার স্বামী বিদেশে ব্যবসা করার অজুহাত তুলে সম্পর্ক সৃষ্টির মাধ্যমে বাবার পরিবার থেকে আরো এক লাখ ১০হাজার টাকা এবং ব্যবহৃত ১৬ভরি স্বর্ণ বিক্রি করে সমুদয় টাকা নেয়। র্দীঘদিন বিদেশে প্রবাসে থাকলেও স্বামী সফিউল আলম ইতোমধ্যে মুঠোফোনের মাধ্যমে তার (বাদি) পরিবারের কাছে ব্যবসার কথা বলে নতুন করে পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। তার কথা মতো বাবার বাড়ি থেকে যৌতুকের টাকা এনে না দেয়ায় স্বামীর পরিবারের লোকজন চালাতে থাকে গৃহবধু কাজলের উপর শাররীক নির্যাতন। সর্বশেষ গত ৯মার্চ রাতে বিদেশ থেকে স্বামী সফিউল আলমের নির্দেশে তার পরিবারের সদস্যরা গৃহবধু কাজলের রুমে ঢুকে তাকে বেদম মারধর করেন। এক পর্যায়ে তাঁরা (স্বামীর পরিবার সদস্যরা) সর্বশরীরে জখমের পর শিশু ছেলে তাসিনসহ বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন গৃহবধু কাজলকে। ঘটনার পরদিন কাজলকে তার পরিবার সদস্যরা চিকিৎসার জন্য উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে মঙ্গলবার চকরিয়া থানায় উপস্থিত হয়ে নির্যাতিত গৃহবধু আছমা ফেরদৌসী কাজল স্বামী ও তার পরিবারের অন্য চার সদস্যসহ ৫জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন।
মামলা নেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.ফরহাদ বলেন, প্রাথমিক তদন্তে যৌতুকের জন্য গৃহবধু কাজলকে শাররীক নির্যাতনের সত্যতা পাওয়া গেছে। তাই স্বামী ও তার পরিবারের ৫জনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলাটি রুজু করা হয়েছে। তিনি বলেন, থানার এসআই মো.ওসমান গনীকে মামলার তদন্তভার দেওয়া হয়েছে।


আরোও সংবাদ