চকরিয়ায় ছাত্রদল কর্মী মিজানুরের বাড়িতে শোকের মাতম

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৯ অক্টোবর , ২০১৩ সময় ০৬:২৬ অপরাহ্ণ

মা নুরজাহান বেগমের বুকফাটা কান্না থামছে না
cox29
মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন,কক্সবাজার
চকরিয়ায় আ.লীগ ক্যাডারদের গুলিতে নিহত ছাত্রদল কর্মী মিজানুর রহমানের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। পরিবারের একমাত্র উপার্যনক্ষম ছেলেকে হারিয়ে পুরো পরিবারে নেমে এসেছে অন্ধকার। পুত্রশোকে মুহ্যমান মা নুরজাহান বেগমের বুকফাটা কান্না আর বিলাপ যেন কিছুতেই থামছে না। বাড়ির আঙ্গিনায় কাউকে দেখলেই মা নুরজাহান বেগম হাউমাউ করে কেঁদে উঠে বলছেন, ‘অবাজি আর পোয়ারে হিতারা কিয়াল্লায় গুলি গরি মারি ফেলাইয়্যেদে’, ’আর সংসারত তারা কিয়াল্যায় অইন জালি দিয়্যেদে’, ’এহন আরা কি হাই বাঁচিয়্যম দে’, ‘তোয়ারা আঁঁর বুকের ধন সোনার মানিকরে ফিরাই আনি দ’—একথা বলে বলে কিছুক্ষণ পরপরই বার বার জ্ঞান হারিয়ে ফেলছিলেন তিনি। আবার জ্ঞান ফিরলেই ধরছেন বিলাপ। আর মিজান আবারও ফিরে আসবেন বলে মিছে সান্ত্বনা দিয়ে কান্না থামানোর চেষ্টা করছেন মিজানের বড়বোন শারমিন আকতার। ছাত্রদল কর্মী মিজানের মায়ের এমন বুকফাটা আর্তনাদে সেখানে উপস্থিত কেউই চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি। গত শুক্রবার বিকালে চকরিয়া উপজেলার কাকারা ইউনিয়নের পুলেরছড়া সেতু সংলগ্ন এলাকায় আ.লীগ ক্যাডারদের গুলিতে নির্মমভাব নিহত হন ছাত্রদল কর্মী মিজানুর রহমান (১৬)।
গতকাল সকালে উপজেলার কাকারা ইউনিয়নের মাইজ কাকারা এলাকায় নিহত ছাত্রদল কর্মী মিজানুর রহমানের বাড়ির সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মিজানুর রহমানের বাবা শাহ আলম পেশায় একজন রিকশাচালক। শাহ আলমের ৪ ছেলে ৩ মেয়ের সংসারে মিজানুর রহমান দ্বিতীয় হলেও ছেলেদের মধ্যে প্রথম। ৯ সদস্যের পরিবারে দরিদ্র ও অসুস্থ রিকশাচালক শাহ আলম যখন পরিবারের ঘানি টানতে হিমশিম খাচ্ছিল ঠিক তখনই লেখাপড়া ছেড়ে রঙমিস্ত্রির কাজে দৈনিক আড়ইশ’ টাকা বেতনে কাজে যোগ দিয়ে বাবার সংসারের হাল ধরেন মিজানুর রহমান।
নিহত মিজানের বাবা শাহ আলম বলেন, গত শুক্রবার দুপুর আড়াইটার দিকে তার ছোট ছেলে নজরুল ইসলাম (১৩) কাকারা ও সুরাজপুর-মারিকপুর থেকে আসা বিএনপি নেতাকর্মীদের একটি মিছিল দেখে সেখানে দৌড়ে যায়। ছোট ভাই নজরুল ইসলামের মিছিলে যাওয়ার খবর পেয়ে বড়ভাই মিজানুর রহমানও পুলেরছড়া এলাকায় যায়। ওই সময় পুলেরছড়া সেতু সংলগ্ন এলাকায় আগে থেকে অবস্থান নেয়া আওয়ামী লীগের একটি সশস্ত্র গ্রুপ বিএনপি নেতাকর্মীদের মিছিল লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে হঠাত্ বুকে গুলি লেগে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান তার ছেলে মিজানুর রহমান।


আরোও সংবাদ