ঘাতকের ফাঁসী চাই

প্রকাশ:| শনিবার, ৩ আগস্ট , ২০১৩ সময় ০৩:০০ পূর্বাহ্ণ

নিহত সুফিয়ানের ও মোরশোদের বৃদ্ধ মা বিধবা স্ত্রী ও পুত্রকন্যার দাবি ঘাতকের ফাঁসী চাই
শফিউল আলম ,নিউজচিটাগাং২৪.কম।। রাউজানের জোড়া খুনের দায়ে থানায় চার দিনের রিমাণ্ডে থাকা আবুল কালাম ঘাতকের ফাঁসী চাইআজাদকে গত তিন দিনে তার স্ত্রী সন্তান ও নিকট আত্মীয়দের কেউ দেখতে আসেনি। গত ২২ জুলাই এই ঘাতক ছুরিকাঘাত করে দুই সহোদর ভাইকে হত্যা করে পালিয়েছিল আবুল কালাম। গত মঙ্গলবার পুলিশি অভিযানের মুখে তিনি আদালতে আত্মসমর্পন করে। বুধবার থেকে পুলিশের চার দিনের রিমাণ্ডে আছে এই ঘাতক।
এই চাঞ্চল্যকর খুনের ঘটনায় রাউজানের সুলতানপুর কাজী বাড়ীতে এখনো চলছে শোকের মাতম। ঘরে বৃদ্ধ মা ফাতেমাতুজোহরা দুই বিধবা পুত্রবধু ও তাদের সন্তানদের সান্তনা দেয়ার চেষ্টা করছে। কালামের হাতে নিহত আবু মোরশেদ আজাদ ও আবু সুফিয়ান আজাদের স্ত্রী সন্তানেরা এই ঘাতকের ফাঁসী দাবি করেছে। শোকে পাথর হয়ে থাকা আবু মোরশেদের স্ত্রী কমলা বেগম বলেছে তার পরিবারের স্বপ্ন ঘাতক ভাশুর তছনছ করে দিয়েছে। একই ভাবে ভেঙ্গে চুরমার করে দিয়েছে অপর নিহত ভাসুর আবু সুফিয়ানের পরিবারের সুখ শান্তি। বৃদ্ধা মা ও শোকাহত দুই ভাইয়ের পরিবার সমস্বরে দাবি করলেন এই ঘাতকের ফাঁসী।
গতকাল শুক্রবার সকালে কাজী বাড়ীর ঘরের বারান্দায় এক সাথে বসেছিল ঘাতক কালামের ভাইদের মধ্যে আবু তৈয়ব আজাদ, আবু মাসুদ আজাদ ও আবু হেনা আজাদ। তারা নিহতদের দুই সন্তানকে সান্তনা দিচ্ছিল। এ সময় তাদের সাথে ছিলেন বৃদ্ধা মা ও নিহতদের দুই বিধবা স্ত্রীর সাথে পুত্র কন্যা আবু মঈন আজাদ ও নুসরাত জাহান। শোকে কাতর এই পরিবারের সদস্যরা সাংবাদিকদের দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। ঘাতক কালামের কারণে এই পরিবারের সূখ শান্তি চুরমার হয়ে গেছে বলে জানান। পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছে বদ মেজাজী আবুল কালাম এই হত্যা পরিকল্পনা আগে থেকে করে রেখেছিল। এ কারণে ঘটনার দুই মাস আগে তার স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে শহরের বাসায় চলে গিয়েছিল। জানা যায় আবুল কালামের তিন সন্তানের মধ্যে একজন বিবিএ একজন পলিটেকনিক্যাল ও অপরজন গতবার এইএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। ভাইদের দাবি সন্তানদের খুনের দায় থেকে নিরাপদ রাখতে খুনের পরিকল্পনাকারী কালাম শহরের বাসায় নিয়ে রেখেছিল। তারা জানায়, ঘটনার দিন পূর্ব পরিকল্পনা অনুসারে খুনের নেশায় বাসা থেকে চুরি নিয়ে এসেছিল এই ঘাতক। উল্লেখ্য গত বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশ তাকে নিয়ে অভিযান করে শহরের বাসা থেকে খুনে ব্যবহৃত চুরি উদ্ধার করেছে। এদিকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই মোহাম্মদ হোসাইন জানিয়েছে গত বুধবার থেকে চার দিনের রিমাণ্ডে থাকা আসামী আবুল কালাম আজাদকে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তিনি একক ভাবে হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তার স্বীকারোক্তিতে বলেছে। খুনে ব্যবহৃত ছুুরিটি গত বৃহস্পতিবার রাতে তার বাসা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি জানান আগামী রোববার অফিস খোলার দিন তাকে আদালতে হাজির করা হবে ।


আরোও সংবাদ