গ্রাম পুলিশের ৫ দফা বাস্তবায়ন দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি

প্রকাশ:| শনিবার, ২০ মে , ২০১৭ সময় ১০:০১ অপরাহ্ণ

সেলিম উদ্দিন, ঈদগাঁও (কক্সবাজার) প্রতিনিধি, বাংলাদেশ গ্রাম পুলিশ কর্মচারী ইউনিয়ন ৫ দফা দাবীর বাস্তবায়নে কক্সবাজার ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর নিকট স্মারকলিপি দিয়েছেন। সংগঠনটির জেলা সভাপতি নুর মোহাম্মদ দফাদারের নেতৃত্বে কর্মচারী ইউনিয়নের অন্য নেতৃবৃন্দ কাজী আবদুর রহমানের নিকট একটি স্মারকলিপি দেন। তাদের ৫ দফা দাবীর মধ্যে রয়েছে গ্রাম পুলিশদের ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারীর ন্যায় সমস্কেল, অবসর ভাতা ও ঝুঁকি ভাতা রেশনিং ভাতা প্রদান, সকল জেলার আশেপাশে গ্রাম পুলিশ প্রশিক্ষণ সেন্টার স্থাপন এবং গ্রাম পুলিশদের ছেলেমেয়েদের বিভিন্ন সরকারী চাকুরীতে ১০% অগ্রাধিকার প্রদান করা। সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে জেলা শাখা প্রদত্ত এ স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয় যে, ইউনিয়ন পর্যায়ে স্থানীয় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় প্রায় অর্ধলাখ গ্রাম পুলিশ কর্মরত রয়েছেন। তারা ৭০ ধরণের কাজ করেন। দূষ্কৃতকারীদের আক্রমণ মোকাবেলা করে তারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চাকুরী করছেন। সরকারী দায়িত্ব, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান প্রদত্ত দায়িত্ব, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশ পালন, স্থানীয় থানা পুলিশের কাছে হাজিরা ও প্রদত্ত দায়িত্ব পালন করতে হয় তাদের। কিন্তু দফাদাররা বেতন পান ৩৪ শ টাকা আর গ্রাম পুলিশ পান ৩ হাজার টাকা। বর্তমানে এ টাকায় চলা যে কত কষ্ট তা ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন। গ্রাম পুলিশদের মান সম্মতভাবে বেঁচে থাকার মতো বেতন, সামাজিক মর্যাদা, ভবিষ্যত নিরাপত্তা এবং অবসর গ্রহণকালে তাদের গ্রহণযোগ্য কোন ভাতা নেই। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু তাদের স্বীকৃতি প্রদানের কথা বলে গেলেও আজ পর্যন্ত তার পূর্ণ বাস্তবায়ন করা হয়নি। জেলা উপদেষ্টা গিয়াস উদ্দীন স্বাক্ষরিত এ লিপিতে বলা হয়, গ্রাম পুলিশরা সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে তাদের দুঃখ-কষ্টের কথা জানিয়েছেন। দেশের প্রবৃদ্ধি, মাথাপিছু আয়, রাজস্ব আয়, বাজেটের আয়তন বাড়লেও উন্নয়নের এ যাত্রাপথে গ্রাম পুলিশরা কি অংশ নেবে না? তারা সামর্থ্যরে সর্বোচ্চ উজাড় করে রাষ্ট্রের সেবায় নিয়োজিত। তাদের জন্য প্রশিক্ষণ কেন্দ্র চালু করা হলে কর্মদক্ষতা ও মান বাড়বে। ফলে তারা দেশের জন্য আরো বেশি কাজ করতে পারবেন। তাই এসব দাবী বাস্তবায়নে গ্রাম পুলিশ পরিবারকে বাঁচিয়ে রাখতে এবং তাদের সন্তানদের পড়ালেখা সুনিশ্চিত করে দেশের জন্য উপযোগী করে তুলতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণের কোন বিকল্প নেই। এর আগে জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বরে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আগত গ্রাম পুলিশ কর্মচারী ইউনিয়নের কয়েক শতাধিক সদস্য তাদের দাবীর সমর্থনে সারিবদ্ধভাবে একত্রিত হন।