গাড়িবহর আটকে বিএনপি নেতাকে ছাত্রলীগের মারধর

প্রকাশ:| সোমবার, ১ সেপ্টেম্বর , ২০১৪ সময় ০৬:১৩ অপরাহ্ণ

ছাত্রলীগবিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও রাউজানের সাবেক সাংসদ গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরীকে (গিকা) না পেয়ে ওলামা দলের এক নেতাকে মারধর করেছে ছাত্রলীগ। সোমবার বেলা ১১টার দিকে দক্ষিণ রাউজানের গশচি ব্রাহ্মণহাট এলাকায় বিএনপির ৩৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর গাড়িবহরে এ ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে চরাঙ্গুনিয়ায় জিয়াউর রহমানের মাজারে ফুল দিতে যাওয়ার পথে গাড়িবহরে গিয়াস উদ্দিন কাদের (গিকা) চৌধুরীসহ রাউজান বিএনপির নেতাকর্মীদের খুঁজছিল ছাত্রলীগ। এসময় গিকাকে না পেয়ে ওই বহরে থাকা রাউজানের বাসিন্দা ও উত্তর জেলা ওলামা দলের সভাপতি কাজী জাহাঙ্গীর আলমকে গাড়ি থেকে নামিয়ে মারধর করেছে রাউজান ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

নগর বিএনপির সভাপতি আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর ব্যক্তিগত সহকারী (পিএস) মো. সেলিম অভিযোগ করে বলেন, ‘স্যারের নেতৃত্বে (আমীর খসরু) বেলা ১১টার দিকে গাড়িবহর রাউজানের গশচি এলাকা পৌঁছলে প্রায় ৩০/৪০টি মোটরসাইকেল নিয়ে অর্ধশত ছাত্রলীগ কর্মী রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে গাড়িবহরে তল্লাশি চালায়। ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা বলেছিল, রাউজানের বিএনপির কেউ থাকলে আমাদের হাতে তুলে দিন। এসময় তারা গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরীকে খুঁজছিল।’

তিনি আরো বলেন, ‘একপর্যায়ে রাউজানের বাসিন্দা ও উত্তর জেলা ওলামা দলের সভাপতি কাজী জাহাঙ্গীর আলম হেলালীকে পেয়ে মাইক্রোবাস থেকে নামিয়ে তার উপর হামলা চালায় ছাত্রলীগ কর্মীরা। এছাড়া বহরের কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করে ছাত্রলীগ। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।’

এ ঘটনার পরও গাড়িবহরে থাকা সব নেতাকর্মী রাঙ্গুনিয়ায় জিয়ার মাজারে ফুল দিতে যান এবং কর্মসূচি শেষ করে নগরীতে ফিরে আসেন বলে জানান মো. সেলিম।

মারধরের কথা স্বীকার করে ওলামা দলের সভাপতি বলেন, ‘আমাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মারধর করেছে। তারা গিয়াস উদ্দিনকেও খুঁজছিল।’ তিনি এখন সুস্থ আছেন। আঘাত গুরুতর নয় বলে জানা গেছে।

তবে এ বিষয়ে রাউজান থানা ছাত্রলীগের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এছাড়া হামলার ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করেছেন রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাস।