গাইবান্ধায় সালাহ উদ্দিনের সন্ধান পাওয়ার গুজব

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ , ২০১৫ সময় ১১:৩২ অপরাহ্ণ

ফুলছড়ি উপজেলার চর খাটিয়ামারীতে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদের সন্ধান পাওয়া গেছে বলে গুজব উঠেছে।

গুজবের সত্যতা যাচাইয়ে গাইবান্ধা জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) আশরাফুল ইসলাম ঘটনাস্থলে রওনা দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে পুলিশের এই কর্মকর্তা একটি টিম নিয়ে ব্রহ্মপুত্র নদের ওই চরাঞ্চলে রওনা হন।

স্থানীয়রা জানায়, বিকেলে খাটিয়ামারি চরের কাছে ব্রহ্মপুত্র নদে ভাসমান লাশ দেখতে পায় এলাকাবাসী। লাশটি সালাহ উদ্দিনের বলে গুজব ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে বিকেলেই ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের নিয়ে ঘটনাস্থলে রওনা দেন পুলিশ সুপার।

তবে এ ব্যাপারে কোনো নিশ্চিত তথ্য পুলিশের পক্ষ থেকে এখনও পাওয়া যায়নি।

গাইবান্ধা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাজিউর রহমান জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে সন্ধান করেও রাত অবধি কোনো লাশ উদ্ধার হয়নি।

ঘটনাস্থলে অবস্থান করা সাংবাদিকরা জানান, ব্রহ্মপুত্র নদের চর খাটিয়ামারিতে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা অভিযান চালাচ্ছে। তবে রাত ১০টা পর্যন্ত কোনো মৃতদেহ খুঁজে পায়নি পুলিশ। ঘটনাটি গুজব বলেই মনে করছেন অনেকে।

পুলিশ সুপার আশরাফুল ইসলাম রাত ১১টার দিকে জানান, ঘটনার কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি। তবে তল্লাশি অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১০ মার্চ রাজধানীর উত্তরার একটি বাসা থেকে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে সাদা পোশাকের একটি দল আটক করে নিয়ে যায়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা বলছেন, এ বিষয়ে তারা কিছুই জানে না।

গত ১২ মার্চ সালাহ উদ্দিন আহমেদকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আদালতে হাজির করার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে একটি ফৌজদারি আবেদন করেন সালাহ উদ্দিনের স্ত্রী সাবেক সংসদ সদস্য হাসিনা আহমেদ। শুনানি শেষে সালাহ উদ্দিন আহমেদকে ১৫ মার্চের মধ্যে খুঁজে বের করে আদালতে হাজির করতে কেন নির্দেশনা দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট।

স্বরাষ্ট্রসচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, র‌্যাবের মহাপরিচালক, পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (এসবি), পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (সিআইডি), ঢাকা জেলা প্রসাশক, ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার, উত্তরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে এ নির্দেশনা দেয়া হয়।