গহিরা পাবলিক লাইব্রেরির দোয়া মাহফিল ও শিক্ষা সামগ্রী বিতরন 

emran amiy প্রকাশ:| বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি , ২০১৮ সময় ১১:৫৪ অপরাহ্ণ

অানোয়ারা প্রতিনিধি :
‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো, একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি?’ দেহ-মন শিহরিত ও দেশপ্রেমে উদ্দীপ্ত হওয়া এই গানটি যে দিবসকে ঘিরে সেই অমর একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আজ। বাঙালির মায়ের ভাষা ‘বাংলা’কে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করার দাবিতে ১৯৫২ সালের এই দিনে ঢাকার রাজপথ রঞ্জিত করেছিলো সালাম, বরকত, রফিক, শফিউর ও জব্বারসহ বাংলার আরো বহু দামাল ছেলে।
এই আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে যে আলোকিত সড়ক তারা নির্মাণ করে গেছেন, সেই পথ ধরেই একাত্তরে এসেছে বাঙালির সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন মহান স্বাধীনতা।
বাংলা রাষ্ট্রীয় ভাষা হিসেবেও প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশেরও অভু্দয় ঘটেছে।
ভাষার জন্যে কোনো জাতি প্রাণ দিয়েছে এই দৃর্ষ্টান্ত শুধু বাঙালিরই।
প্রতি বছর এই দিবসটি প্রাণের উচ্ছ্বাসে উদযাপনব করে থাকে বাঙালি। শুধু বাঙালিই নয়, বিশ্বের দুই শতাধিক দেশ বাঙালির এই দিবসকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালন করে আসছে ১৯৯৯ সাল থেকে।

প্রতিবারের মতো খোর্দ্দ গহিরা ব্রাইট ফিউচার অর্গানাইজেশন ও খোর্দ্দ গহিরা পাবলিক লাইব্রেরি মহান আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ১২ টা ১ মিনিটে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
সকাল ৬টা৩০ মিনিটে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করার মধ্য দিয়ে অনুষ্টান শুরু হয়।
সকাল ৭ টায় প্রভাতফেরী শুরু হয়ে সকাল ৮টায় শেষ হয়। এরপর সকাল ৮টা ৩০মিনিটে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।উক্ত
দোয়া মাহফিলে শহীদের আত্নার মাগফিরাত ও দেশবাসীর কল্যাণে দোয়া কামনা করা হয় এবং
উক্ত সংগঠনকৃর্তক পরিচালিত হযরত আশরাফুল আলী(রঃ) ফোরকানিয়া মাদ্রাসার ছাত্র- ছাত্রীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরন বিতরণ করা হয়।