গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ইতিহাসে শহীদ আসাদ এক চিরস্মরণীয় নাম

প্রকাশ:| বুধবার, ২০ জানুয়ারি , ২০১৬ সময় ০৭:৪৬ অপরাহ্ণ

শহীদ আসাদ

১৯৬৯ সালের ২০ জানুয়ারি স্বৈরাচার আইয়ুব খান বিরোধী গণ আন্দোলনে নিহত ছাত্রনেতা মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান আসাদের স্মরণে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের উদ্যোগে এক আলোচনা সভা অদ্য ২০ জানুয়ারি বিকাল ৪ ঘটিকায় নগরীর কাজীর দেউরীস্থ নাসিম ভবন দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদল সভাপতি গাজী মুহাম্মদ সিরাজ উল্লাহ’র সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সম্পাদক জালাল উদ্দিন সোহেলের সঞ্চালনায় উক্ত আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন কোতোয়ালী থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক সাদেকুর রহমান রিপন, বাকলিয়া থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাকিম মাহমুদ, মহানগর ছাত্রদল নেতা মেজবাহুল ইসলাম নোমান, সামিয়াত আমিন জিসান, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহবায়ক ইকবাল আহমদ, যুগ্ম আহবায়ক মোস্তফা কামাল, চকবাজার থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দামুল হক, নগর ছাত্রদল নেতা ফজলুল কাদের রাজু, মোহাম্মদ হানিফ, মঈনুদ্দিন খান রাজিব, দক্ষিণ বাকলিয়া ওয়ার্ড ছাত্রদলের আহবায়ক এয়াকুব খান, পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ড ছাত্রদলের আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম, সদস্য সচিব আরিফ মঈনুদ্দিন ওয়াসিম, যুগ্ম আহবায়ক মোহাম্মদ মাহি, মোহাম্মদ আখিব, তৌফিকুল ইসলাম, ছাত্রদল নেতা জিয়াউদ্দিন রনি প্রমুখ।

এসময় নগর ছাত্রদল সভাপতি গাজী সিরাজ বলেন, আইয়ুব-বিরোধী গণ-অভু্যুত্থানে শহীদ হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রনেতা মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান আসাদ। তার শাহাদাত বরণের মধ্য দিয়ে তৎকালীন আইয়ুব সরকারের পতন অনিবার্য হয়ে ওঠে। আসাদ স্কুল-জীবন থেকেই ছিলেন রাজনীতি সচেতন। পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালে গভীরভাবে রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন এবং অল্প সময়ের মধ্যেই একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলেন। ১৯৬৯ সালের শুরুতে পূর্ববাংলায় আইয়ুবের স্বৈরতান্ত্রিক শাসন উচ্ছেদের আন্দোলন তীব্র হতে থাকলে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ ঘোষিত ১১ দফা কর্মসূচিকে বানচাল করার লক্ষ্যে মিছিল সমাবেশের ওপর ১৪৪ ধারা জারি করা হয়। এ পরিস্থিতিতে ২০ জানুয়ারি ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ নেতৃবৃন্দ ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর থেকে মিছিল নিয়ে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পূর্ব দিকে প্রধান ফটকের সামনে আসলে পুলিশের ছোঁড়া গুলিতে শহীদ হন আসাদুজ্জামান আসাদ।
তিনি বলেন, শহীদ আসাদ যে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতার স্বপ্ন নিয়ে জীবন উৎসর্গ করেছিলেন বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার তাঁর সেই স্বপ্নকে পদদলীত করে শহীদ আসাদের স্বপ্নের স্বাধীন বাংলায় একদলীয় বাকশাল কায়েম করার গভীর ষড়যন্ত্র করছে। তাই বাংলাদেশের ছাত্র সমাজকে অবশ্যই শহীদ আসাদের আত্মত্যাগে অনুপ্রাণিত হয়ে দেশ ও জনগণের অধিকার (গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার পুনরুদ্ধার) আদায়ে রাজপথে অগ্রণী ভূমিকা পালন করার মাধ্যমে এই স্বৈরতান্ত্রিক ও অগণতান্ত্রিক আওয়ামীলীগ সরকারের বিরুদ্ধে জোড়ালো প্রতিবাদ চালিয়ে যেতে হবে। ছাত্রদের আন্দোলন কখনো দমিয়ে রাখা যায় না। বাংলাদেশের ইতিহাস এই সাক্ষ্য দেই।

তিনি আরো বলেন, স্বাধিকার ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ইতিহাসে শহীদ আসাদ এক চিরস্মরণীয় নাম। স্বৈরশাসকের কবল থেকে স্বজাতির ন্যায়সঙ্গত অধিকার আদায়ে এবং গণতন্ত্রকে মুক্ত করতে অকুতোভয় আসাদ রাজপথে জীবন উৎসর্গ করে গেছেন। আমরা তাকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করি।