খালেদাকে গ্রেপ্তার সরকারের পতন ত্বরান্বিত করবে: ২০ দল

প্রকাশ:| বুধবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি , ২০১৫ সময় ১০:০৬ অপরাহ্ণ

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তারের যেকোনো পদক্ষেপ সরকারের পতনকে ত্বরান্বিত করবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট।
খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির নয় ঘণ্টা পর আজ বুধবার রাতে এক বিবৃতিতে জোটের পক্ষে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদ এ প্রতিক্রিয়া জানান। ‘সম্পূর্ণ হীন রাজনৈতিক প্রতিহিংসা’ চরিতার্থ করার জন্য সরকার মিথ্যা মামলায় খালেদা জিয়াকে হয়রানি করছে, এমন অভিযোগ করে বিবৃতিতে এর নিন্দা জানানো হয়।
বিবৃতিতে সালাহ উদ্দিন বলেন, খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার করার সব আয়োজন সম্পন্ন করেছে ‘অবৈধ স্বৈরশাসক’। দলীয়করণ, নগ্ন হস্তক্ষেপ ও বিচারক অভিশংসন আইন পাস করিয়ে সরকার বিচারব্যবস্থাকে বিরোধী দল ও মতকে দমনের হাতিয়ারে পরিণত করেছে। এরই অংশ হিসেবে আজ খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা ও বানোয়াট’ মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।
বিবৃতিতে দাবি করা হয়, খালেদা জিয়াকে সরকার অঘোষিতভাবে গৃহবন্দী করে রেখেছে। তাঁর কার্যালয়ে দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে খাদ্য সরবরাহও বন্ধ করে দিয়েছে সরকার। এখনো পর্যন্ত তিনি টেলিফোন, ফ্যাক্স, কেব্‌ল সংযোগ, নেটওয়ার্কসহ সব বৈদ্যুতিক যোগাযোগব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন। ইতিপূর্বে আদালতে যাওয়ার পথে সরকারি দলের সন্ত্রাসীরা পুলিশের সহায়তায় খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে সশস্ত্র হামলা চালায়। সেই ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো বিএনপি নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এখন পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করায় নিরাপত্তাহীনতার কারণে আদালতে উপস্থিত হতে অপারগতার কথা আদালতকে জানানোর পরও সরকারি প্রভাবে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।
বিবৃতিতে বলা হয়, বিএনপি ও ২০-দলীয় জোটের ২০ হাজারের বেশি নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করে এবং তথাকথিত বন্দুকযুদ্ধের নামে শত শত নেতা-কর্মীকে হতাহত করেও গণ-আন্দোলনকে দমাতে না পেরে সরকার গদি রক্ষার শেষ চেষ্টা হিসেবে খালেদা জিয়াকে কারারুদ্ধ করার চেষ্টা করছে। খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তারের যেকোনো পদ‌ক্ষেপ বরং সরকারের পতনকেই ত্বরান্বিত করবে।