খাগড়াছড়িতে হরতাল-অবরোধ ডিঙিয়ে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা

প্রকাশ:| সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর , ২০১৭ সময় ০৯:০০ অপরাহ্ণ

শংকর চৌধুরী, খাগড়াছড়ি: খাগড়াছড়িতে পার্বত্য জেলা পরিষদের অধীনস্থ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষায় নিজেদের যোগ্যতার লড়ায়ে হরতাল-অবরোধ ডিঙিয়ে পরীক্ষাস্থলে পরীক্ষার্থীরা।
ভাড়ায় মটরসাইকেল চালক খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার সদর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহ-সভাপতি রবিউল আওয়ালকে সন্ত্রাসীরা যাত্রীবেশে নিয়ে গিয়ে তার হাত-পা ও মুখ বেধে হত্যা করে ধান ক্ষেতে ফেলে যাওয়ার পর গত ১২ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে খাগড়াছড়ি গুইমারা উপজেলার সিন্ধুকছড়ি ইউনিয়ন তৈকর্মা নামক স্থানে মটরসাইকেলসহ তার লাশ পাওয়া যায়। এর পর পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদ (পিবিসিপি) ও নাগরিক পরিষদ রবিউলকে নিজেদের কর্মি দাবী করে হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে ১৮ সেপ্টেম্বর সোমবার খাগড়াছড়ি ও রাঙামাটিতে সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ঘোষনা দেয়। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পুলিশ শনিবার ১৬ সেপ্টেম্বর রাতে গুইমারা উপজেলার তৈকর্মা পাড়া এলাকা থেকে নিপ্র“ মারমা (৩৫) ও উশিং মারমা (১৯) কে আটক করা হলেও, প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে নিয়োগ পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে একই দিন ১৮ সেপ্টেম্বর খাগড়াছড়িতে সকাল-সন্ধা হরতাল দেয় জনপ্রতিনিধিদের সংগঠন জেলা সুষম উন্নয়ন ও দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি।

গত ২৫ আগস্ট জেলা পরিষদের অধীনস্থ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে নিয়োগ পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে গত ১৭ সেপ্টেম্বর খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ ঘেরাও কর্মসূচির ডাক দেয় জনপ্রতিনিধিদের সংগঠন জেলা সুষম উন্নয়ন ও দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি। সরকারি সম্পত্তি বিনষ্ট ও জননিরাপত্তা বিঘিœত হওয়ার আশঙ্কায় ওইদিন পৌর শহরে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৬টা পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করে প্রশাসন। ঘেরাও কর্মসূচি পণ্ড হওয়ায় ১৮ সেপ্টেম্বর খাগড়াছড়িতে সকাল-সন্ধা হরতাল ও ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত টানা ৩ দিন পর্যন্ত সড়ক অবরোধের ডাক দেয় সংগঠনটি।

সোমবার ভোর ৬টা থেকে জেলার বিভিন্ন স্থানের সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে হরতাল শুরু করে জেলা সুষম উন্নয়ন ও দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি। অন্যদিকে, হরতাল উপেক্ষা করে বেলা সাড়ে ১০টা থেকে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরীর কক্ষে নিয়োগ কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দদের নিয়ে শুরু হয় নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা। সোমবার থেকে শুরু করে বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে মৌখিক পরীক্ষা। প্রথম দিনে লক্ষ্মীছড়ি, মানিকছড়ি ও রামগড় উপজেলার সিংহ ভাগ পরীক্ষার্থীই উপস্থিত ছিলেন বলে প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্র জানানো হয়েছে।

রামগড় থেকে আসা পরীক্ষার্থী সুরিয়া মারমা,মানিকছড়ি থেকে আসা ইয়াসমিন আফরোজা ও আথুই মানমা জানান, হরতালের কারনে মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে সোমবার ভোর ৪টায় মোটরসাইকেলে করে খাগড়াছড়ি এসেছি। খাগড়াছড়ি আসার পর পিকেটিংয়ের ভয়ে জিরোমাইল থেকে পায়ে হেঁটে পরিক্ষাস্থলে আসতে হয়েছে।

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী বলেন, নিজেদের স্বার্থে সরকারি কাজে বাধা দিয়ে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করতে জনপ্রতিনিধিরা হরতাল দিয়েছে। কিন্তু জনগণ তাদের ডাকে সাড়া না দিয়ে স্বত:স্ফূর্তভাবে মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে। উপস্থিতির হার আনুমানিক ৯০ শতাংশ। তবে,যে সব পরীক্ষার্থী হরতাল-অবরোধোর কারনে পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না। পরবর্তীতে তাদের পরীক্ষা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।