ক্রিকেটাররা যাতে ভিক্ষুকের মুখোমুখি না হন সেই উদ্যোগ

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৬ নভেম্বর , ২০১৭ সময় ০১:০৫ পূর্বাহ্ণ

নগরীর জিইসি মোড়ে ভিক্ষুকদের উৎপাত লেগে থাকেই। তার ওপর বিদেশি কাউকে দেখলে তো কথাই নেই। তাদের ঘিরে ভিক্ষুকদের থাকে থিক থিকে ভিড়। আর কদিন বাদেই মাঠে গড়াচ্ছে বিপিএলের চট্টগ্রাম পর্ব। তাই বিভিন্ন দলের হয়ে আসা বিদেশি ক্রিকেটাররা যাতে ভিক্ষুকের মুখোমুখি না হন সেই উদ্যোগ নিচ্ছে পুলিশ।

 

বিপিএলের চট্টগ্রাম পর্বকে ঘিরে নিরাপত্তা-নির্দেশনাসহ সার্বিক বিষয় নিয়ে বুধবার (১৫ নভেম্বর) বিকেলে নগর পুলিশ কমিশনার মো. ইকবাল বাহারের সভাপতিত্বে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাসহ বিপিএল সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় প্যানিনসুল হোটেলের প্রতিনিধি হয়ে আসা এক কর্মকর্তা জিইসি এলাকায় ভিক্ষুকদের উৎপাতের বিষয়টি পুলিশ কমিশনারকে জানান। এই হোটেলে সাতটি দলের একটি দল খেলা চলাকালীন অবস্থান করবে।

এ বিষয়ে পুলিশ কমিশনার বলেন, ‘ভিক্ষুকদের সরিয়ে দেওয়া হবে। আমরা কোনো বিদেশিকে ফকির দেখাতে চাই না।’

অন্যদিকে আগ্রাবাদ হোটেলের প্রতিনিধি হয়ে আসা আরেক কর্মকর্তা তাদের হোটেল এলাকায় নিয়মিত হকার বসে বলে পুলিশ কমিশনারকে অবহিত করেন।

এ বিষয়ে পুলিশ কমিশনার অন্য পুলিশ কর্মকর্তাদের দায়িত্ব দেন এবং খেলা চলাকালীন সাতদিন ওই এলাকায় হকার বসবে না বলে আশ্বস্ত করেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা বিদেশিদের হকার দেখাতে চাই না। খানাখন্দ ভরা সড়ক দেখাতে চাই না।’

উল্লেখ্য, বিপিএলের চট্টগ্রাম আসর শুরু হচ্ছে ২৪ নভেম্বর থেকে। চলবে ২৯ নভেম্বর পর্যন্ত।তবে সাতটি দলই চলে আসবে ২৩ নভেম্বর।

চট্টগ্রাম পর্বের সবগুলো খেলাই জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। তবে এম আজিজ স্টেডিয়ামে অনুশীলন করবে বিভিন্ন দল। সাতটি দলের মধ্যে পাঁচটি দলই রেডিসন হোটেলে অবস্থান করবে। বাকি দুটি দলের একটি প্যানিনসুলা এবং আরেকটি আগ্রাবাদ হোটেলে অবস্থান করবে।

সভায় অন্যদের মধ্যে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) দেবদাস ভট্টাচার্য,
অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) মাসুদ উল হাসান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশন) সালেহ মোহাম্মদ তানভীরসহ বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।


আরোও সংবাদ