কে এই ইউনুছ বৈদ্য ?

প্রকাশ:| রবিবার, ৩০ জুলাই , ২০১৭ সময় ০২:০২ অপরাহ্ণ

সেলিম উদ্দিন, ঈদগাঁও (কক্সবাজার) প্রতিনিধি: চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী ভিলেজার পাড়া সেগুন বাগিচা এলাকার গাছ ফাড়া ইউনুছ বৈদ্য কেনে চলের এমনতর অভিযোগ সচেতন মহলের। কে এই ইউনুছ বৈদ্য? বার্মা ফেরত ইউনুছ বৈদ্যের সম্প্রতি কর্মকান্ড ঘিরে এলাকায় চলছে নানা গুঞ্জন। বিগত ১যুগ পূর্বে লুঙ্গি পড়ে আসা ইউনুছ বৈদ্য এখন দিব্যি চলাফেরা করে মোটর সাইকেল হাঁকিয়ে। তার হালচাল এলাকার মানুষকে ভাবিয়ে তুলেছে। স্থানীয়রা তার অপকর্মের বিরুদ্বে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়ার জন্য চকরিয়া থানা পুলিশের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, গত ১২ বছর পূর্বে ইউনুছ নামের এ ব্যক্তি বার্মা থেকে স্বপরিবারে এসে প্রথমে টেকনাফের রেঞ্জ অফিস সংলগ্ন এক বাড়ীতে ভাড়াবাসা নিয়ে কয়েক বছর বসবাস করেন। সেখান থেকে পরিচয় ঘটে উপজেলার ডুলাহাজারা-খুটাখালীর ২জন ভন্ড বৈদ্যের সাথে। গত ১০ বছর পূর্বে স্বপরিবারে খুটাখালীতে এসে ভিলেজার পাড়া থেকে একখন্ড সরকারী রির্জাভ জায়গা কিনে ঘর নির্মান করে প্রথমে বসবাস শুরু করেন। এ ঘরে প্রতিরাতে বসে উক্ত ইউনুছ বৈদ্যসহ ৩ জনের বন্ড বৈদ্যালীর অপকর্ম। দিনের বেলায় উক্ত সিন্ডিকেট অজপাড়া গাঁয়ে গিয়ে টার্গেট করে প্রবাসী পরিবারকে। তাদের টার্গেট করা পরিবারের সদস্য কিংবা গৃহীনিদের কাছে গিয়ে প্রথমে ফকিরালির কিছু আজগুবী কথাবার্তা বলে। এমনকি বিদেশে থাকা স্বামী কিংবা ছেলের বিপদ চলছে। এমনতর খবরে হতাশ হয়ে যায় প্রবাসী পরিবারের সদস্য বা গৃহীনিরা। এ দশা কাটতে হলে মুল্যবান একটি তাজা মোরগ কিনে এ বাড়ীতে ছেড়ে দিতে হবে গভীর রাত্রে সকলের সামনে। এ মোরগ ছাড়া পাবার পর যেখানে গিয়ে আশ্রয় নেবে ঐখানে জীবন্ত জন্তু ডালি দিতে হবে। এ কথায় পাড়ার গৃহীনিরা সরল বিশ্বাসে বৈদ্যের কথামত ঘুর্ণিদশা কেটে ফেলার কাজ আরম্ভ করে। সকলের সামনে ছেড়ে দেওয়া মোরগটি মানব শূন্য পাহাড়ের পাদদেশে কিংবা ঝিরিতে গিয়ে আশ্রয় নেয়। তখন ঐ স্থানটিতে গৃহীনি কিংবা ঐ বাড়ীর সদস্যদের নিয়ে স্থানটি নির্ধারণ করে চলে যায়। পরে অমাবশ্যার গভীর রাতে গিয়ে কেউ না জানার মত গরু কিংবা মহিষ ডালি দিতে হবে ঐ স্থানে। বৈদ্যদের সিন্ডিকেটের কথায় হতাশকৃত পরিবারের সদস্যরা ধার কর্জ করে ঐ পরিমাণ টাকা বৈদ্যদের হাতে তুলে দেয়। এভাবে বিভিন্ন চলচাতুরি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে খুটাখালী ভিত্তিক ভন্ড বৈদ্য সিন্ডিকেটের মুল হুতা ইউনুছ বৈদ্য। ভন্ডামী করে ইতিমধ্যে গড়ে তুলেছেন আলিশান বাড়ি-গাড়ি। আতাঁত করে নিয়েছেন স্থানীয় কিছু পাতি নেতা। তাদের ছত্রছায়ায় ও স্থানীয় প্রভাবশালীদের মদদে ইদানিং সে আরো বেপরোয়া হয়ে উটেছে।
স্থানীয় ভিলেজার পাড়ার বাসিন্দারা জানায়, প্রভাবশালী ও পাতি নেতাদের কারনে তার বিরুদ্বে কেউ মুখ খোলার সাহস পাচ্ছেনা। তাকে ঘিরে এলাকায় ঘটে উটেছে বৈদ্যালী সিন্ডিকেট। হাতিয়ে নিচ্ছে সহজ সরল নারী পুরুষের লাখ লাখ টাকা।
চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: বখতিয়ার উদ্দীন চৌধুরী বলেন,সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে তার বিরুদ্বে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।