কেজিতে বেড়েছে ১০০ টাকা

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১৭ এপ্রিল , ২০১৫ সময় ১১:০৫ অপরাহ্ণ

যশোরের বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে গত তিন মাস ধরে ভারত থেকে গরু আসা প্রায় বন্ধ রয়েছে। ফলে ভারতীয় গরুতে ভর্তি থাকা খাটাল এখন খাঁ খাঁ করছে। আর এ কারণে দেশে গরুর মাংসের দাম কেজি প্রতি বেড়েছে ১০০ টাকা।

বেনাপোল বন্দর থেকে ছয় কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে পুটখালিতে রয়েছে গরুর খাটাল। বাংলাদেশের পুটখালি ও ভারতের আংরাইল সীমান্তসহ বিভিন্ন এলাকা দিয়ে যে গরু আসে সেগুলো প্রথমে এ খাটালে রাখা হয়। এরপর বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) তদারকিতে শার্শার নাভারন গবাদিপশু শুল্ক করিডোরের মাধ্যমে ভ্যাট প্রদান করা হয়। পরে সেখান থেকে গরু পৌঁছে যায় দেশের বিভিন্নস্থানে।

নাভারন গবাদিপশু শুল্ক করিডোর সূত্র মতে, ২০১৪ সালের নভেম্বর ও ডিসেম্বর ২ মাসে গরু আসে ১ লাখ ৭০ হাজার। সেখানে জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি ও মার্চ তিন মাসে গরু এসেছে ৩৭ হাজার ৪০০।
গরুর মাংস
সূত্র মতে, গরু আসা প্রায় বন্ধ হয়ে যাওয়ায় একদিকে সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। অপরদিকে হঠাৎ করেই বেড়ে গেছে গো-মাংসের দাম। আগে যেখানে ২৫০ টাকা কেজি মাংস বিক্রি হতো এখন সেখানে বিক্রি হচ্ছে সাড়ে তিনশত টাকা।

বেনাপোল বাজারের মাংশ ব্যবসায়ী সিরাজুল ও ইব্রাহিম হোসেন বলেন, সীমান্তের পশু হাটগুলোতে যে গরু বিক্রি হয় তার নব্বই ভাগই ভারতীয়। ভারতীয় গরু আসা এখন বন্ধ থাকায় বেশি দামে গরু কিনতে হচ্ছে। এর ফলে মাংস বিক্রি হচ্ছে বেশি দামে।

যশোর শহরের মাংস বিক্রির হাট হিসেবে পরিচিত কাঠেরপুর এলাকার ব্যবসায়ী শওকত হোসেন বাবু জানান, ভারত থেকে গরু না আসায় মাংসের দাম বেড়ে গেছে। আগে ২৫০ থেকে ২৭০ টাকা কেজি মাংস বিক্রি করলেও এখন ৩৫০-৩৬০ টাকা বিক্রি করছেন।