কেইপিজেডে রাস্তা করা নিয়ে সংঘর্ষ, চেয়ারম্যানসহ ৬০ জনকে আসামী করে মামলা

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৩০ আগস্ট , ২০১৩ সময় ০৬:১৩ অপরাহ্ণ

সিদরাতুল মুনত্বাহা মুক্তি, আানোয়ারা

মামলাএকটি রাস্তা পাকা করাকে কেন্দ্র করে আনোয়ারার কোরিয় রপ্তানি প্রক্রিয়াজাতকরণ এলাকায় (কেইপিজেড) সংঘর্ষের ঘটনায় স্থানীয় চেয়ারম্যানকে আসামী করে থানায় মামলা হয়েছে। বুধবার সকালে কেইপিজেডের দৌলতপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
কেইপিজেড ও স্থানীয় সূত্র জানায়, বুধবার সকালে কেইপিজেড এলাকা সংলগ্ন দৌলতপুর গ্রামে একটি রাস্তা পাকা করার কাজ শুরু করেন স্থানীয় চেয়ারম্যান দিদারুল আলম। এসময় রাস্তাটির কিছু অংশ ঘিরে ফেলতে যায় কেইপিজেড কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে গ্রামবাসির সাথে কেইপিজেডের নিরাপত্তাকর্মীদের বাকবিতন্ডা হলে এক পর্যায়ে উভয়ের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে গেলে উভয় পক্ষের ২ জন আহত হন। ওই সময় বিক্ষুব্ধ জনতা কেইপিজেডের নিরাপত্তা চৌকিতে হামলা করেন।
এদিকে, এ ঘটনায় বুধবার রাতেই কেইপিজেডের নিরাপত্তাকর্মী মো. জসিম কর্ণফুলী থানায় ৮/৯ জনের নামোল্লেখ করে ৫০-৬০ জনকে আসামী করে মামলা করেছেন। তবে এখনো কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।
এ ব্যাপারে বড়উঠান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দিদারুল আলম বলেন, জনগনের একজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসাবে আমি ইউনিয়নের এক শতাংশের (১%) বরাদ্ধ দিয়ে রাস্তাটি পাকা করতে গেলে কেইপিজেড কর্তৃপক্ষ সেটির কিছু অংশ ঘিরে ফেলার চেষ্ঠা করলে জনগনের সাথে তাদের লোকজনের বাকবিতন্ডা হয়। কিন্তু তারা নাকি (কেইপিজেড কর্তৃপক্ষ) আমাকে আসামী করে থানায় মামলা দিয়েছে। এ ব্যাপারে তাই বেশি কিছু আপাতত; না বলাই ভাল।
কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহিউদ্দিন আহমদ থানায় মামলা হওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, এখনো মামলায় কাউকে আটক করা যায়নি।


আরোও সংবাদ