কুমিল্লায় যাত্রী নিহতের ঘটনার বিচার দাবি ২০ দলের

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৩ ফেব্রুয়ারি , ২০১৫ সময় ১১:৩৬ অপরাহ্ণ

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বাসে বর্বরোচিত পেট্রলবোমা হামলায় আগুনে পুড়ে বাসযাত্রী নিহত ও আহত হওয়ার ঘটনার নিন্দা ও বিচার দাবি করেছে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দল। মঙ্গলবার ২০ দলের তরফে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদ এক বিবৃতিতে এ বিচার দাবি করেন। বিবৃতিতে বলা হয়, বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের পক্ষ থেকে বারবার বলা হয়েছে, চলমান গণতান্ত্রিক আন্দোলনকে কলুষিত এবং জনগণের দৃষ্টি অন্যদিকে ফেরানোর জন্য নাশকতামূলক কর্মকান্ডের আশ্রয় নিচ্ছে সরকার। চলমান গণতন্ত্র মুক্তি আন্দোলনকে নাশকতা ও সহিংস এবং জঙ্গী কর্মকান্ড হিসেবে দেশে বিদেশে উপস্থাপনের মাধ্যমে অবৈধ সরকারের পক্ষে সহানুভুতি অর্জনের দানবীয় কৌশল অবলম্বন করা হচ্ছে। ২০ দলীয় জোট এই সমস্ত জঘন্য কর্মকান্ড ও অপকৌশলকে দৃঢ়ভাবে ঘৃনার সঙ্গে প্রত্যাখান করছে। বিবৃতিতে প্রত্যেকটি পেট্রোল বোমা নিক্ষেপসহ অন্যান্য নাশকতামূলক ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করা হয়। সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, নিরপরাধ কোন ব্যক্তিকে যেন রাজনৈতিক প্রতিহিংসামূলকভাবে এ সমস্ত ঘটনার শিকার বানানো না হয়। সে বিষয়েও সজাগ থাকতে হবে। কারণ আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক চরিত্রই হচ্ছে বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করা। বিবৃতিতে বলা হয়, ২০ দলীয় জোট মনে করে, যাত্রাবাড়ীতে বাসে পেট্রোল বোমা হামলার মতোই চৌদ্দগ্রামের এই হামলা সুপরিকল্পিতভাবে সরকারি এজেন্টরাই করে থাকতে পারে। যাতে করে এর দায়ভার বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোটের ওপর বর্তিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল করা যায়। এই জঘন্য হত্যাকান্ডের শিকার হয়ে যারা নিহত হয়েছেন তাদের প্রতি ২০ দলীয় জোট গভীর শোক এবং আহতদের আশু সুস্থতা কামনা করছে। বিবৃতিতে বলা হয়, বিএনপি চেয়ারপারসন ও ২০ দলীয় জোট নেতা খালেদা জিয়াকে যারা বিদ্যুৎহীন এবং অন্যান্য সকল সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়ে সগৌরবে প্রকাশ্যে আনন্দ উৎসব করতে পারে তাদের পক্ষে যেকোন অমানবিক কর্মকান্ড পরিচালনা করা সম্ভব। বিবৃতিতে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলা হয়, খালেদা জিয়ার সঙ্গে বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোটের কোন নেতা-কর্মীকে সাক্ষাত করতে দেয়া হচ্ছে না। ২০ দলীয় জোটের শরীক দল কল্যাণ পার্টির সভাপতি মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীককে পুলিশ দুর্ব্যবহার ও হেনস্তা করেছে। এই ঘটনায় ২০ দলীয় জোট ক্ষোভ প্রকাশ করে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে। বিবৃতিতে ভবিষ্যতে এ ধরণের কর্মকান্ড থেকে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানানো হয়। সরকারি মহলকে স্মরণ করিয়ে দেয়া হয়, স্বাধীন বাংলাদেশ কারও পৈত্রিক তালুকদারী নয়, ক্ষমতা চিরস্থায়ীও নয়।