কুতুবদিয়ায় মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই সম্পন্ন

প্রকাশ:| শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি , ২০১৭ সময় ০৯:০৮ অপরাহ্ণ

১৬ মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভূক্ত।  বাদ পড়া ৪২ জনের আবেদন পত্র জমা

লিটন কুতুবী কুতুবদিয়া:

কুতুবদিয়া উপজেলায় প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটিতে গতকাল শনিবার (১৮ ফেব্রুয়ারী) সকালে কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদ হল রুমে অনুষ্টিত হয়েছে। বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ২০১০ সালের প্রাথমিক খসড়া ভোটার তালিকার কুতুবদিয়া উপজেলার ১১ সদস্য ছিলেন। এছাড়াও এদের মধ্যে ১০ নং ক্রমিকের (গেজেট ক্রমিক নং ২৯৯) কুতুবদিয়া উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়নের মৃত খলিলুর রহমানের ছেলে মৃত ফারুক আহমদের প্রতিনিধি অনুপস্থিত এবং তিনি ১৯৭১ সনের ৭ জুন পাকিস্তান সরকারের পক্ষে শান্তি কমিটির কৈয়ারবিল ইউনিয়নের ১৪নং তালিকায় তাঁর নাম থাকায় তাকে যাচাই বাছাই কমিটি বাদ দিয়েছেন। জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল , মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয় ঢাকায় অন-লাইনে আবেদনকৃত প্রার্থী ১২ জনের তালিকায় মৃত মাষ্টার সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, মৃত মাষ্টার গোলাম সোলতান, আলহাজ্ব ছালে আহম্মদ চৌধুরী, মৃত হাফেজ আহমদ, মোঃ জমির উদ্দিন চৌধুরী, ছৈয়দ আহমদ কুতুবী, আলহাজ্ব মোঃ তাহেরকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। ওই তালিকায় রাম হরিদাশ ও আবু ছৈয়দ নামে ২জন অনুপস্থিত ছিলেন। আব্দুল গফুর ও অরুন চন্দ্র পালিতের কাগজ পত্রে সচ্ছতা না থাকায় তাদের নাম তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়। যাছাই-বাছাই কমিটির মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) আবু হাসনাত মোঃ শহীদুল হক যাছাই-বাছাই কমিটির সভাপতি রনজিত কুমার শীল, কেন্দীয় কমান্ড কাউন্সিলের প্রতিনিধি নুরুচ্ছাফা, জেলা কমান্ডার প্রতিনিধি ভোলানাথ দাশ, উপজেলা কমান্ডার সদস্য মোজাফ্ফর আহমদ, মুবিম এর প্রতিনিধি আবুল খায়ের, জামুকা প্রতিনিধি মোঃ হোসেন চৌধুরী।

ইউএনও অফিস সূত্রে জানাগেছে, মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে অনলাইনে আবেদন করার কথা উলেখ রয়েছে। অনলাইনে ১২ জনের আবেদন যাচাই-বাছাই ছাড়াও সরাসরি ৪২ জন ব্যক্তি মুক্তিযোদ্ধা দাবী করে উক্ত কমিটি বরাবরে লিখিত আবেদন করেন।

জানাগেছে, গত ২০১২ সালে জেলা মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই তালিকায় আবেদনের ৩৪ জনের মধ্যে ৫ জন কে গতকাল (শনিবার) যাচাই করে অন্তর্ভূক্ত করা হলেও ২৯ জনের নাম বাদ পড়ে। সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মুসলিম খাঁন এলএলবি’র ছোট ভাই আলহাজ্ব আসাদ উলাহ খাঁন জানান, মুসলিম খাঁন এলএলবি গত ১৯৬৯ সাল হতে ২০০৪ সাল পর্যন্ত একটানা ৩৫ বছর কুতুবদিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি দীর্ঘদিন ধরে কুতুবদিয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ছিলেন। বিগত ২০০৭ সালের ৩০ অক্টোবর তিনি মৃত্যুবরন করলে ৩১ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন করা হয় কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় তার নাম নেই। কৈয়ারবিল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ন আহবায়ক মোসলেম খান মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় কৈয়ারবিলের বাদ পড়া মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মৃত মুসলিম খাঁন এলএলবি, মৃত আমির হোছেন ও মৃত জোনাব আলীর নাম তালিকাভূক্ত করার জন্য ১৮ ফেব্রুয়ারী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটি বরাবরে লিখিত আবেদন করেন।


আরোও সংবাদ