কুতুবদিয়ার অদূরে সাগরে ৮ ফিশিং ট্রলারে জলদস্যুদের হামলা, ৭ জেলে আহত

প্রকাশ:| শনিবার, ২ নভেম্বর , ২০১৩ সময় ০৭:৫৯ অপরাহ্ণ

মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, কক্সবাজার,নিউজচিটাগাং২৪.কম।।
কক্সবাজারের কুতুবদিয়ার অদূরে বঙ্গোপসাগরের গুলিরদ্বার পয়েন্টে জলদস্যুরা হামলা চালিয়ে ৮ ফিশিং ট্রলারের সর্বস্ব ছিনিয়ে নিয়েছে। এসময় জলদস্যুদের হামলায় ৭ জেলে আহত হয়েছে। এসময় জলদস্যুরা ৫ মাঝিমাল্লাকে মুক্তিপণের জন্য অপহরণ করে নিয়ে গেছে। শনিবার (২ নভেম্বর) ফিশিং ট্রলারভোর রাতে ঘটনটি ঘটেছে। গত মাসের ১৩ অক্টোবর থেকে ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত মা ইলিশ মাছ ধরা নিশেষজ্ঞা কাটিয়ে সাগরে মাছ ধরতে গেলে বঙ্গোপসাগরের বিভিন্ন পয়েন্টে জলদস্যুদের কবলে পড়ে বেশ মহেশখালীর কয়েকটি ফিশিং ট্রলার হামলার শিকার হয়েছে। এর মধ্যে মহেশখালীর কুতুবজুমের ইউনিয়নের ঘটিভাঙ্গা এলাকার ৮টি ফিশিং ট্রলার রয়েছে।
জানা গেছে, মহেশখালী উপজেলার কুতুবজুমের ঘটিভাঙ্গা এলাকার মান্নান বহদ্দারের মালিকানাধিন এফ বি মায়ের দোয়া, রহমত আলীর মালিকাধিন এফবি নয়ন, আজিমুল হকের মালিকাধিন এফ বি মায়ের দোয়া, মান্নান বহদ্দারের মালিকাধিন এফ বি বাবুল, আজিজুল হকের মালিকানাধিন এফ বি মায়ের দোয়া , কালা মিয়া হাজ্বীর মালিকানাধিন এফ বি মায়ের দোয়া সহ ৮টি ফিশিং ট্রলার গত ২৬ অক্টোবর মাছ আহরণ করার জন্য সাগরের কুতুবদিয়ার অদূরে গুলিরদ্বার পয়েন্টে যায়।
শনিবার (২ নভেম্বর) ভোর রাতে মাছ ধরা অবস্থায় সাগরের ওই পয়েন্টে সংঘবদ্ধ জলদস্যুদের কবলে পড়ে। এসময় জলদস্যুদের হামলায় আহত হয়েছেন মো: কবির (৩৪), মনজুর আলম (৪০), বাহার উদ্দিন (২৮), রুহুল আমিন (২৮), শামসু (৫০), মো: করিম (৩০) ও ওসমান (৪০)। এছাড়াও ওই ফিশিং ট্রলারগুলোর জলদস্যুূরা মাঝি মোঃ ইলিয়াছ, শামসুল আলম, বাশি মিয়া, মোঃ আলতাজ ও জাফর কে মুক্তিপনের জন্য জলদস্যুরা অপহরণ করে তাদের ট্রলাররে করে গভীর সাগরের দিকে নিয়ে যায়। হামলার শিকার জেলেরা সবার বাড়ি মহেশখালী উপজেলার ঘটিভাঙ্গা এলাকার বাসিন্দা বলে জানা গেছে।
এব্যাপারে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনোয়ারুল নাসের জানিয়েছেন, সাগরে কুতুবদিয়ার গুলিরদ্বার পয়েন্টে মহেশখালীর কিছু ট্রলার জলদস্যুদের দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি অবগত হয়েছেন।