কিশলয় গার্লস স্কুলে কেবিনেট নির্বাচন সম্পন্ন

প্রকাশ:| সোমবার, ২১ মার্চ , ২০১৬ সময় ১০:৩২ অপরাহ্ণ

কিশলয় বালিকা
সেলিম উদ্দিন, ঈদগাঁও।
চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী কিশলয় আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ক্লাস রুমগুলো দেখলে এখন মনে হবে জাতীয় নির্বাচনের ভোটের বুথ। ক্লাসরুমের সামনে সকাল থেকেই ভোটারদের দীর্ঘ লাইন। ভোট দিয়ে নবম শ্রেণির জয়া বলেন, বেশ ভালো লাগছে। ২ মিনিটও লাগেনি ভোট দিতে। প্রথমবার ভোট দিলাম, বড় হয়েও ভোট দেবো।

তবে একটু অভিযোগের সুর ভোটার লাইনে দাঁড়ানো একই শ্রেণির রুমির। তিনি বলেন, সকাল ৮টা থেকে লাইনে দাঁড়িয়েছি, প্রচন্ড গরমের কারণে বিরক্ত লাগছে।

স্টুডেন্টস কেবিনেট নির্বাচন ২০১৬ ঘিরে আলোচনা-সমালোচনা, করণীয়, কর্তব্য এ নিয়েই খুটাখালী কিশলয় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভোট উৎসব সোমবার সম্পন্ন হয়েছে।

নবম শ্রেণির প্রতিনিধি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৫ জন। তৎমধ্যে জয়া প্রু মার্মা ও আয়েশ ছিদ্দিকা রুমি ২ বান্ধবীর সঙ্গে দেখা মেলে একটি শ্রেণি কক্ষে। একই সঙ্গে ২ প্রতিদ্বন্দ্বী ব্যস্ত। তাদের মতে এ ভোট জাতীয় রাজনীতিতেও বিরল।

প্রথমবারের মতো নেতৃত্বের লড়াইয়ে ষষ্ট শ্রেণীর ফারিয়া হোসেন লিমি। সপ্তম শ্রেণীর মাসরুরা সোলতান ফাহিম ও অষ্টম শ্রেণীর উম্মে হাফছা। তারা বিভিন্ন শ্রেণীর হলেও ভালো বান্ধবী। তাই যেই জিতুক, ‘ডোন্ট মাইন্ড’।

প্রার্থীরা জানান, ৫ শ্রেণী মিলিয়ে ৫৫০ জন ভোটার। ভোটাররাই আজ নির্বাচিত করবেন, তাদের মধ্যে কে নেবেন দ্বায়িত্ব।
উম্মে হাফসা বলেন, এতোদিন ধরেই আমরা প্রচারণা চালিয়েছি। নিজেদের হাতে পোস্টার তৈরি করেছি। এছাড়াও ভোটারদের কাছে ভোট চেয়েছি। আজ কোনো ধরনের প্রচারণা নেই।

নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করছেন ১০ম শ্রেণির শামীমা জেসমিন আনছারী। তিনি বলেন, মোট ২০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। একটু দীর্ঘ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাদের বাছাই করা হয়েছে। এক্ষেত্রে মেধা ছাড়াও স্কুলের সঙ্গে সম্পৃক্ততা, ক্লাসে, পূর্বের রেকর্ড, স্কুলের নিয়ম নীতি, উপস্থিতি এসব বিষয় প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ১০ম শ্রেণির সাওদা জান্নাত এশা ও তানিয়া আকতার বলেন, সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ করা হয়েছে। বিকেলে ভোট শেষে পোলিং এজেন্টদের উপস্থিতিতে প্রিজাইডিং অফিসাররা ভোট গণনা করে ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে।

সরজমিন পরিদর্শনে বুথে দেখা যায়, ভোটারদের নাম রোল নম্বর মিলিয়ে ব্যালট দিচ্ছেন প্রিজাইডিং অফিসার। অমোচনীয় কালি দেওয়া হচ্ছে ভোটারের বৃদ্ধাঙ্গুলে। ভোটের নিরাপত্তার দ্বায়িত্বে রয়েছে স্কুলের সহকারী শিক্ষক নূর জাহান খানম ও গার্লস গাইড। গার্লস গাইডের সদস্যরা জানান, মোট ২০ জন গার্লস গাইড নির্বাচনে নিরাপত্তা নিশ্চিত করছে। ২টা পর্যন্ত কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। এরই মধ্যে কেন্দ্র পরিদর্শন করে গেছেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব চৌধুরী মোহাম্মদ তৈয়ব ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ছৈয়দ করিম।

কিশলয় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের মূল ফটক পেরুতেই ভোট উৎসব মুখর পরিবেশ। বিদ্যালয়ে রং বেরংয়ের পোস্টার। যেগুলো ছাত্রীরা নিজেরাই রং পেন্সিল দিয়ে একেঁছেন এবং স্কচটেপ দিয়ে লাগিয়েছেন। মূল ভবনের প্রবেশ পথেই ভোটার তালিকা এবং বুথ নং দেওয়া হয়েছে। ভোটার, প্রার্থী, ভোট সংশ্লিষ্টদের মতো তাদের বাবা-মাও অধীর চিত্তে অপেক্ষা করছেন ।

কিশোর বয়স থেকে গণতন্ত্রের চর্চা ও অন্যের মতামতের প্রতি সহিষ্ণুতা ও শ্রদ্ধা এবং শতভাগ ছাত্র-ছাত্রীর ভর্তি ও ঝড়ে পড়া রোধের উদ্দেশ্য নিয়ে স্টুডেন্ট ক্যাবিনেট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ নির্বাচনে ষষ্ট শ্রেণী থেকে ফারিয়া হোসেল লিমি (১৬৩) ভোট, সপ্তম শ্রেণীর মাশরুরা সোলতানা ফাহিম (৩৯০) ভোট, অষ্টম শ্রেণীর উম্মে হাফসা (৪৩৩) ভোট, নবম শ্রেণীর জয়া প্রু মার্মা (৪১৫) ভোট, আয়েশা ছিদ্দিকা রুমি (২৬৫) ভোট ও দশম শ্রেণীর রেশমি সোলতানা প্রিয়া (৩৯৪) ভোট ও সাবরিনা মমতাজ বশরা (৩৫৯) ভোট পেয়ে প্রতিনিধি নির্বাচিত হন। নির্বাচনে ৫৫০ জন ভোটারের মধ্যে ৪৫০ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। নির্বাচনে পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন সহকারী শিক্ষক এস.এম আকবর হোছাইন খোকন, শিদুল শর্মা, রিদোয়ানুল হক, আমিরুল কবির, নাজমা আকতার ছিদ্দিকী, কাকলী বড়–য়া, ইমরান হোসেন, আনোয়ার হোসেন ও নুরুল আমিন কাদেরী। প্রধান সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেন সহকারী প্রধান শিক্ষক এস.এম. জাহাঙ্গীর আলম। সমন্বয়ক যথাক্রমে ঈদি আমিন চৌধুরী, এহেছানুল কবির, বেলাল উদ্দিন ও সাঈদা জেসমনি প্রমুখ। নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ভাবে সম্পন্ন হওয়ায় সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন প্রধান শিক্ষক।


আরোও সংবাদ