কাভার্ডভ্যান ডাকাতির মূল হোতাসহ ৫ জন গ্রেফতার

প্রকাশ:| বুধবার, ১৮ নভেম্বর , ২০১৫ সময় ০৯:১৫ অপরাহ্ণ

মুল হোতাসহ ৫ গ্রেফতার
সূত্রঃ-বন্দর থানার মামলা নং-০৯, তারিখ-১২-১১-১৫ইং, ধারা-৩৯৫/৩৯৭ দঃবিঃ।
ঘটনার বিবরণ-মামলার বাদী মোঃ ইসমাইল ইং১২/১১/১৫ তারিখ ১৩.৫০ ঘটিকায় থানায় হাজির হইয়া মৌখিক এজাহার দায়ের করেন যে, তাহার সিএন্ডএফ প্রতিষ্ঠান-ফেডারেল ফ্রেইট সিস্টেম লিমিটেডন আমদানীকারক প্রতিষ্ঠান ম্যাস ইনটিমেটস বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড এর আমদানীকৃত মালামাল খালাসের দায়িত্বপ্রাপ্ত হইয়া ইং ১০/১১/১৫ তারিখ রাত অনুমান ০৯.০০ ঘটিকার সময় যশোর বেনাপোল স্থলবন্দর হইতে উক্ত প্রতিষ্ঠানের আমাদানীকৃত সর্বমোট ২৫৫ (দুই শত পঞ্চান্ন রোল) নিটেড ফেব্রিক্স এবং ৩৮ কার্টুন ইলাস্টিক টেপ যাহার সমুদয় মূল্য ইউ এস ডলারে-৬৮,৪৯৪.৯৪, বাংলা টাকা অনুমান-৫৩,৪২,০০০/- টাকার মালামাল খালাস করিয়া কাভার্ডভ্যান নং-ঢাকামেট্টো-ট-১৪-৮৮০৬ তে বোঝাই করিয়া ড্রাইভার, হেলপার এবং সিএন্ডএফ এর নিয়োজিত স্কট পার্টি সহ চট্টগ্রাম কর্ণফুলী ইপিজেড এর উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। ইং ১২/১১/১৫ তারিখ ভোর অনুমান ০৫.০০ ঘটিকার সময় বন্দর থানাধীন পোর্ট-ইস্ট কলোনী সংলগ্ন পোর্ট কানেকটিং রোডস্থ পানামা ট্রাক টার্মিনালের সামনে রাস্তার উত্তর পার্শ্বে পৌঁছিলে একটি অজ্ঞাত নম্বরের সাদা নোহা মাইক্রোবাসে ৭/৮ জন লোক সহ উক্ত কাভার্ডভ্যানের সামনে আসিয়া থামে এবং নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়া ড্রাইভারকে অস্ত্রের মুখে গাড়ীটি থামাইতে বলে। তাহারা অভিযোগ করে যে, ড্রাইভার রাস্তায় বেপরোয়াভাবে গাড়ী চালাইতে ছিল এবং তাহাদের গাড়ীকে সাইড দেয় নাই। ড্রাইভার গাড়ী থামাইলে মাইক্রোবাস হইতে ৫/৬ জন দুবৃত্ত নামিয়া ড্রাইভার ও তাহার সাথে থাকা হেলপার ও স্কটদের দেশীয় তৈরী বিভিন্ন অস্ত্র-শস্ত্র ও লোহার রড দেখাইয়া ভয়ভীতি প্রদর্শন করিয়া জোরপূর্বক টানিয়া-হেচড়াইয়া গাড়ী হইতে নামাইয়া লোহার রড দিয়া এলোপাতাড়িভাবে পিটাইতে শুরু করে এবং ড্রাইভার, হেলপার ও স্কট সেলিম রেজাদের নিকট হইতে মোবাইল ও নগদ টাকা ছিনাইয়া নেয়। অজ্ঞাতনামা দুস্কৃতিকারীরা তাহাদেরকে থানায় নিয়া যাইবে বলিয়া তাহাদের মাইক্রোবাসে জোরপূর্বক উঠাইয়া নেওয়ার চেষ্টাকালে ড্রাইভার সুকৌশলে দৌঁড়াইয়া রাস্তার ডান পার্শ্বে থাকা ইস্ট কলোনীর নাইট গার্ডের নিকট আশ্রয় নেয়। তাহার সংগীয় উপরে বর্ণিত-মফিজুর রহমান মিন্টু ও মোঃ সেলিম রেজাদ্বয়কে অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন দৃস্কৃতিকারী অস্ত্রের মুখে ভয়ভীতি দেখাইয়া মাইক্রোবাসে তুলিয়া মাইক্রোবাস ঘুরাইয়া উত্তর দিকে নিয়া যায় এবং ০২ জন দুস্কৃতিকারী কাভার্ডভ্যানে উঠিয়া মালামাল সহ কাভার্ডভ্যানটি চালাইয়া অনুমান ০৫.১০ ঘটিকার সময় দক্ষিন দিকে চলিয়া যায়।

অভিযান পরিচালনা-অফিসার ইনচার্জ জনাব এ,কে,এম মহিউদ্দিন, পিপিএম(বার), বন্দর থানা, সিএমপি, চট্টগ্রাম এর নেতৃত্বে এসআই/সন্জয় কুমার সিন্হা, এস আই/মোঃ বাবুল আক্তার, এস আই/মোঃ মহসীন শেখ, এসআই/শরিফুজ্জামান, এস আই/মোঃ হামিদুল ইসলাম, এএসআই/ রইস উদ্দিন, এএসআই/সফিকুল ইসলাম, এএসআই/দিলীপ চন্দ্র দে গণ বিশ্বস্ত সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে তাৎক্ষনিকভাবে পুলিশী কার্যক্রম পরিচালনা করিয়া চট্টগ্রাম টেরিবাজার, সিনেমা প্যালেস ও রৌফাবাদ এলাকা হইতে অত্র মামলার লুন্ঠিত কাভার্ডভ্যান সহ ২৫৫ রোল নিটেড ফ্রেব্রিক্স ও ৩৮ কাটুন ইলাস্টিক টেপ, যাহার সর্বমোট আনুমানিক মূল্য-৭৮ (আটাত্তর) লক্ষ টাকার মালামাল উদ্ধার সহ ০২ জন আসামী খোকন ও আজাদদ্বয়কে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে উক্ত আসামীদ্বয়কে ০৩ দিনের রিমান্ডে আনিয়া প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে চট্টগ্রাম জেলাধীন সীতাকুন্ড থানাস্থ বিএম ডিপো এলাকা, চট্টগ্রাম মহানগরীস্থ হালিশহর, পাহাড়তলী ও বন্দর থানা এলাকায় সাড়াশী অভিযান পরিচালনা করিয়া অত্র মামলার ঘটনার সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত নি¤েœবর্ণিত ০৫ জন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়। আসামীরা ঘটনার সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। এছাড়াও উক্ত আসামীরা বন্দর থানা এলাকায় সহ ঢাকা, চট্টগ্রাম, মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে সঙ্গবদ্ধভাবে বিভিন্ন কৌশলে বিশেষতঃ আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয় প্রদান করিয়া পণ্যবাহী ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ডাকাতি করিয়া আসিতেছিল।

**** পূর্বের গ্রেফতারকৃত আসামীর নাম-ঠিকানাঃ
১। কাজী নুরুল ইসলাম প্রকাশ খোকন (২৮), পিতা-কাজী কামরুজ্জামান, মাতা-আয়েরা বেগম, সাং-আলীপুর, কাজী বাড়ী, থানা-শাহরাস্তি, জেলা-চাঁদপুর, বর্তমানে-পরির পাহাড়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিত্যক্ত বাসা, সিনেমা প্যালেস, থানা-কোতোয়ালী, জেলা-চট্টগ্রাম । (হেফাজত হইতে আলামত উদ্ধার)।
২। মোঃ আজাদ হোসেন (২৫), পিতা-আবুল বশার, মাতা-আলেয়া বেগম, সাং-নবগ্রাম, বসু হাজীর বাড়ী, থানা-সোনাইমুড়ি, জেলা-নোয়াখালী, বর্তমানে-হযরত আমীর আলী শাহ (রাঃ) মাজারের ভিতরে, মাজারের ভাড়া বাসা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গলি, সিনেমা প্যালেস, থানা-কোতোয়ালী, জেলা-চট্টগ্রাম (হেফাজত হইতে আলামত উদ্ধার)।

*** ইং ১৮/১১/১৫ তারিখ অভিযানে গ্রেফতারকৃত আসামীর নাম-ঠিকানাঃ
১। মোঃ মিজানুর রহমান (৩২), পিতা-মৃত আবু তাহের, মাতা-মমিনা খাতুন, সাং-মাইটখোলা, কাজল ড্রাইভারের নতুন বাড়ী, পোঃ-নাউরী, থানা-সোনাইমুড়ি, জেলা-নোয়াখালী, বর্তমানে-বিএম ডিপো, তেতুল তলা, ফারুক সওদাগরের দোকান, থানা-সীতাকুন্ড, জেলা-চট্টগ্রাম। (মূল হোতা)
২। মোঃ মহসিন মল্লিক (৩৫), পিতা-রাজ্জাক মল্লিক, মাতা-মৃত হাওয়া বেগম, সাং-হরগাতী, মল্লিক বাড়ী, থানা-মোড়লগঞ্জ,জেলা-বাগেরহাট, বর্তমানে-বিএম ডিপো, তেতুল তলা, ফারুক সওদাগরের দোকান, থানা-সীতাকুন্ড, জেলা-চট্টগ্রাম। (কাভার্ডভ্যান চালাইয়া নিয়া যায়)
৩। আবু বক্কর সিদ্দিকী প্রকাশ সাদ্দাম (২৬), পিতা-মৃত সফিকুর রহমান, মাতা-জনি বেগম, সাং-ভাটিয়ালী, মান্দার পুকুর পাড়, মুনসুর আলীর বাড়ী,থানা-কবিরহাট,জেলা-নোয়াখালী, বর্তমানে-পদ্ম পুকুর পাড়, সরাই পাড়া, আসলাম কমিশনারের বাড়ী, বাবুলের ভাড়া ঘর, রুম নং-৪, থানা-পাহাড়তলী, জেলা-চট্টগ্রাম। (ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়া মারধর করে)।
৪। মোঃ জাকির হোসেন (৩০), পিতা-আমির হোসেন, মাতা-মালেকা খাতুন, সাং-উত্তর কেরয়া, দেওয়ান বাড়ী, থানা-রায়পুর, জেলা-লক্ষীপুর, বর্তমানে-সরাইপাড়া, পদ্মপুকুর পাড়, মিন্টুর ভাড়া ঘর, থানা-পাহাড়তলী, জেলা-চট্টগ্রাম। (ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়া মারধর করে)।
৫। মোঃ জসিম উদ্দিন (৩৬), পিতা-মৃত আজাহার আলী, মাতা-খোদেজা বেগম, সাং-১ নং চর আবাবিল, রাড়ীর বাড়ী, থানা-রায়পুর, জেলা-লক্ষীপুর, বর্তমানে-ইস্ট কলোনী, জামে মসজিদের সামনে, থানা-বন্দর, জেলা-চট্টগ্রাম। (অর্থ যোগানদাতা, পৃষ্ঠপোষক ও প্ররোচনাকারী)

স্বাক্ষরিত/-
১৮/১১/২০১৫ইং।
অফিসার ইনচার্জ
বন্দর থানা,সিএমপি, চট্টগ্রাম।


আরোও সংবাদ