কাপ্তাইয়ে কৃষিখাতে সাফল্য অর্জন করছে স্থানীয়রা

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| রবিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি , ২০১৯ সময় ০৫:৪৩ অপরাহ্ণ

নজরুল ইসলাম লাভলু,কাপ্তাই:
দূর্গম পাহাড়ের অধিকাংশ পরিবারই কৃষি অথবা মৎস্য অাহরণ পেশার উপর নির্ভরশীল। তবে পাহাড়ের মানুষরা কৃষি কাজ করেই তাদের অাত্ম-কর্মসংস্থান গড়ে তোলার মাধ্যমেই সফলতা অর্জন করতে দেখা যায় বেশি। অার এসব উৎস হতে প্রতি বছর সরকার পাচ্ছে বিপুল পরিমাণে রাজস্ব। পাহাড়ের কৃষক-কৃষাণীর শ্রমের বদৌলতে চট্টগ্রাম সহ সারা দেশের মানুষের ভাগ্যে জোটে তরতাজা, ফরমালিন মুক্ত নিরাপদ খাদ্য।

রাঙামাটি জেলা পরিষদের অায়োজনে এসঅাইডিসি, সিএইচটি ও ইউএনডিপির যৌথ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে উপজেলা পরামর্শ কমিটি কর্তৃক সম্প্রতি কৃষক মাঠ স্কুল পরিদর্শন করা হয়। ১৩০ নং বারুদ গোলা মৌজার কার্বারী কন্যা দেবী ওই কার্যক্রমে সভাপতিত্ব করেন।এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কাপ্তাই উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ দিলদার হোসেন। কাপ্তাইয়ের ঘিলাছড়ি ভাবনা কেন্দ্র পাড়ায় ২৩ জন কৃষক-কৃষাণীর উপস্থিতিতে উপজেলা কৃষক মাঠ স্কুল সমন্নয়কারী বাবুল চাকমার পরিচালনায় এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, কাপ্তাই উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নূর নাহার বেগম, প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের ভেটেনারী ফিল্ড এসিস্টেন্ট মনরঞ্জন তনচংগ্যা, কৃষি অধিদপ্তরের সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মংসুইপ্রু মারমা,স্থানীয় সাংবাদিক নূর হোসেন মামুন, কৃষি অধিদপ্তরের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন, শাইনিং হিলের কাপ্তাই-বিলাইছড়ি কমিউনিটি ফেসিলেটর মংচাই মারমাসহ অারও অনেকে।

কৃষি অধিদপ্তরের সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মংসুইপ্রু মারমা বলেন, মাঘ মাসের শেষ সময়ে অাম গাছে জন্মাতে থাকে মুকুল। অার চারা গাছের কচি পাতায় ‘পাতা কাটা’ পোকার আক্রমণ বেশি দেখা যায়। তাছাড়া অনেক সময় বড় আমগাছের কচি পাতা কাটতেও দেখা যায়। এ পোকা গাছের শুধু কচি পাতা কেটে ক্ষতি করে না। কচি পাতার নিচের পিঠে মধ্য শিরার উভয় পাশে স্ত্রী পোকা ডিম পাড়ে এবং পরে পাতাটির বোঁটার কাছাকাছি কেটে দেয়। ভালো করে দেখলে কেচি দ্বারা কেউ কেটেছে বলে মনে হবে। এ পোকার আক্রমণে গাছের নতুন পাতা ধ্বংস হয় বেশি, আক্রমণে একটি ছোট গাছ পাতাশূন্য হতে পারে।

তিনি অারও বলেন, এপোকার অাক্রমণ থেকে পাতাকে বাঁচাতে গাছে কচি পাতা বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ম্যালাথিয়ন বা সুমিথিয়ন ২ মিলি/লিটার পানিতে স্প্রে- করলে পোকার আক্রমণ রোধ করা যায়। তাছাড়া কার্বারিল জাতীয় কীটনাশক ২ গ্রাম/লিটার পানিতে স্প্রে-করলেও পোকার আক্রমণ রোধ করা যায় বলে পরামর্শ দেন তিনি।বক্তারা বলেন, নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও অরণ্য ঘেরা পাহাড়ী এলাকার কৃষক চাষাবাদ করে অনেকটা সফল।বিষমুক্ত ফলমূল,শাকসবজি উৎপাদন ও বাজারজাত করে ইতিমধ্যে তারা যথেষ্ট সুনাম অর্জন করেছে।দিনদিন পাহাড়ে উৎপাদিত পণ্যের চাহিদা বাড়ছে।


আরোও সংবাদ