কাপ্তাইয়ে অবৈধ প্যাথলজির জমজমাট ব্যবসা: রোগীরা প্রতারিত হলেও দেখার কেউ নেই

প্রকাশ:| বুধবার, ২ এপ্রিল , ২০১৪ সময় ০৮:২৪ অপরাহ্ণ

কাপ্তাই প্রতিনিধি…..অবৈধ প্যাথলজির 2কাপ্তাই উপজেলার বিভিন্নস্থানে দীর্ঘদিন যাবত অবৈধভাবে জমজমাট প্যাথলজি ব্যবসা করার অভিযোগ উঠেছে। এসব প্যাথলজিগুলোতে রোগ নির্ণয়ের কাজে নেই কোন বৈধ কাগজধারী টেকনিশিয়ান ও যন্ত্রপাতি। সঠিক রোগ নির্ণয় না হওয়ায় ভুক্তভোগীরা ভুল চিকিৎসার কারনে নানা ভোগান্তির স্বীকার হওয়ার অভিযোগও পাওয়া গেছে। কোন কোনটিতে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত, কম্পিউটারাইজড পদ্ধতিতে পরীক্ষা নিরীক্ষার কথা লিখা সহ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের ঘোষনা লিপিবদ্ধ থাকলেও প্রকৃতপক্ষে এগুলোর কোনটির অস্তিত্ব নেই। ফলে সাধারণ জনগন প্রতিনিয়ত এসব প্যাথলজির মাধ্যমে অর্থ অপচয়ের পাশাপাশি প্রতারিত হচ্ছে। এভাবে অবৈধভাবে প্যাথলজির ব্যবসা চালিয়ে আসলেও এসব অনিয়ম দেখার কেউ নেই।

সংশি¬ষ্ট সুত্রে জানা গেছে, প্যাথলজি ব্যবসার জন্য জেলা সিভিল সার্জন কর্তৃক লাইসেন্স, প্রয়োজনীয় শিক্ষাগত যোগ্যতা, একজন এমবিবিএস চিকিৎসকের প্রত্যয়ন পত্রসহ সংশি¬¬ষ্টতা থাকা বাধ্যতা মূলক। কিন্ত এসব নিয়ম কানুনের তোয়াক্কা না করে উপজেলার নতুন বাজার, চিৎমরম, বড়ইছড়ি, বারঘোনা সহ বিভিন্নস্থানে অবৈধভাবে গড়ে তোলা হয়েছে বেশ কিছু প্যাথলজির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এসব প্যাথলজির অধিকাংশে কোন চিকিৎসকের সংশি¬¬ষ্টতা নেই। নেই কোন বৈধ কাগজপত্র, প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও টেকনিশিয়ান। আবার কোন কোনটিতে চিকিৎসকের নাম ব্যবহার করা হলেও ওই চিকিৎসকের সাথে প্যাথলজি প্রতিষ্ঠানটির কোন রকম সম্পর্ক নেই। প্যাথলজিগুলোতে ম্যালেরিয়া, টাইফয়েড, জন্ডিস, ইসিজি সহ বিভিন্ন জটিল রোগের পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়ে থাকে। আবার এগুলোতে ইসিজির কাজে কোন মহিলা নিয়োজিত রাখা হচ্ছেনা। ফলে মহিলা রোগী বাধ্য হয়ে পুরুষ দ্বারা ইসিজি করাতে হচ্ছে।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই রোগীর প্রকৃত রোগ নিরুপন হচ্ছেনা বলে অভিযোগ রয়েছে। তথাপি বাধ্য হয়ে রোগীরা এসব রোগ নিরুপনী প্যাথলজি কেন্দ্রে গিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করাতে হচ্ছে। ফলে রোগীরা ভুল চিকিৎসা নিয়ে বাড়ী ফিরে উল্টো ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। স্থানীয় রোগী মোঃ কালাম, জমিলা বেগম জানান, চিকিৎসকগনের পরামর্শমতে এসব প্যাথলজি থেকে বাধ্য হয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করাতে হয়। এসব চিকিৎসকের নির্দেশিত প্যাথলজি ব্যাতিত অন্য কোন প্যাথলজিতে পরীক্ষা করালে তা ওইসব চিকিৎসক গ্রহন করেননা। এদিকে কমিশন পাওয়ার জন্য নিয়ম বহির্ভুতভাবে ফার্মেসী ব্যবসায়ীগন নিজেরাই পরীক্ষার পরামর্শ পত্র লিখে রোগীকে সংশি¬¬ষ্ট প্যাথলজিতে পাঠায়। প্যাথলজি কর্তৃক পরীক্ষার কাগজে চিকিৎসকের স্থানে ফার্মেসীর নাম সংক্ষেপে লিখে রোগীকে প্রদান করে থাকে। এরা প্যাথলজির সাথে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে রমরমা ব্যবসা করে রোগীদের নিকট থেকে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. অনুপ দেওয়ানের দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে তিনি জানান, জেলা সিভিল সার্জনের অনুমোদন সহ প্রয়োজনীয় শর্ত সাপেক্ষে প্যাথলজি ব্যবসা করা বাধ্যতা মূলক। অনুমোদন ও শর্ত বহির্ভুতভাবে এ ধরনের ব্যবসা আইন পরিপন্থি ও শান্তিযোগ্য অপরাধ।