কাঠগড়াতে জুতা খুলেই দাঁড়াতে হলো বদিকে

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৮ জুলাই , ২০১৫ সময় ১০:০২ অপরাহ্ণ

বদিকক্সবাজার-৪ আসনের আওয়ামী লীগদলীয় সংসদ সদস্য (এমপি) আবদুর রহমান বদিকে অবৈধ সম্পদ অর্জন এবং সম্পদের তথ্য গোপনের মামলায় আদালতের কাঠগড়ায় জুতা খুলে দাঁড়াতে হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার ঢাকার ৩ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক আবু আহমেদ জমাদারের আদালতে এমপি বদির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি ও জামিন নেওয়ার জন্য দিন ধার্য ছিল।

আজ সকালে বদি আদালতে হাজির হয়ে তাঁর আইনজীবী মাহফুজুর রহমান লিখনের মাধ্যমে পূর্বশর্তে জামিনের আবেদন করেন।

জামিন শুনানির প্রথমে বদির আইনজীবী তাঁকে (বদিকে) আসামির কাঠগড়ায় দাঁড় না করিয়ে কাঠগড়ার বাইরে রাখেন। ওই সময় আসামিকে কাঠগড়ায় না দেখে আসামি কোথায় জানতে চান বিচারক।

ওই সময় আইনজীবী মাহফুজুর রহমান লিখন বদিকে কাঠগড়ার বাইরে দেখিয়ে দিয়ে বলেন, তিনি বর্তমান সংসদ সদস্য। তাই কাঠগড়ার বাইরে তাঁকে বসার অনুমতি দিন।

ওই সময় বিচারক বলেন, তিনি (বদি) কোনো স্ট্যাটাসের তা আদালতে বিবেচ্য বিষয় নয়। আসামির দাঁড়ানোর জন্য নির্দিষ্ট কাঠগড়া রয়েছে। তাই তাঁকে সেখানেই দাঁড়াতে হবে। এরপর আসামি বদি জুতা খুলে কাঠগড়ায় গিয়ে দাঁড়ান।

মামলাটির দুদকের বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর কবির হোসেইন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আসামি বদির আইনজীবী তাঁকে আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে না চাইলে বিচারক আদালতে নিয়ম অনুযায়ী কাঠগড়ায় এসে আসামির স্থানে দাঁড়াতে বলেন। এ ছাড়া আজ এ মামলায় বদির পূর্বশর্তে জামিনও মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বদির আইনজীবী আজ মামলার অভিযোগ গঠন পেছানোর জন্য সময়ের আবেদন করলে বিচারক সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে নতুন করে আগামী ৬ আগস্ট অভিযোগ গঠনের শুনানির দিন ধার্য করেন।

প্রায় ১৩ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ২০১৪ সালের ২১ আগস্ট এমপি বদির বিরুদ্ধে দুদকের উপপরিচালক মোহাম্মদ আব্দুস সোবহান বাদী হয়ে একটি মামলা (মামলা নম্বর ৩৭) দায়ের করেছিলেন।

পরে চলতি বছর ৭ মে দুদকের উপপরিচালক মঞ্জিল মোর্শেদ সিএমএম আদালতে বদির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

অভিযোগপত্রে, আবদুর রহমান বদির বিরুদ্ধে ছয় কোটি ৩৩ লাখ ৯৪২ টাকার অবৈধ সম্পদের তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। এর মধ্যে বলা হয়েছে, তিনি দুদকের কাছে তিন কোটি ৯৯ লাখ ৫৩ হাজার ২৭ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করেছেন।

মামলাটিতে সংসদ সদস্য বদি গত বছরের ১২ অক্টোবর ঢাকা সিএমএম আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন প্রার্থনা করলে বিচারক তাঁর জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান। পরে গত বছরের ২৭ অক্টোবর বদিকে ছয় মাসের জামিন দেন বিচারপতি সৈয়দ এ বি মাহমুদুল হক ও বিচারপতি মো. আকরাম হোসেন চৌধুরীর হাইকোর্ট বেঞ্চ।