কাজেম স্কুলে নতুন পরিচালনা কমিটির দাবি কাউন্সিলরদের

প্রকাশ:| শনিবার, ৩ মে , ২০১৪ সময় ১০:২৯ অপরাহ্ণ

কাজেম আলী উচ্চ বিদ্যালয়শনিবার বিকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে নগরীর ঐতিহ্যবাহী কাজেম আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে নতুন পরিচালনা কমিটি গঠনের দাবি জানিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলররা।

সংবাদ সম্মেলনে চসিকের বর্তমান ছয় জন ওয়ার্ড কাউন্সিলর অংশ নেন।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে আন্দরকিল্লা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জহর লাল হাজারী বলেন, চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কাজেম আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ করে শিক্ষার পরিবেশ ক্ষুণ্ন করা হচ্ছে।

“শিক্ষার সাথে ব্যবসার কোনো সম্পর্ক নেই। বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ সংকুচিত করে বাণিজ্যিক কমপ্লেক্স নির্মাণ উচিত নয়।”

শেখ-এ-চাটগাম খ্যাত কাজেম আলি মাস্টার ১৮৮৫ সালে নগরীর চন্দনপুরায় মডেল ইংলিশ স্কুল নামের বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। কাজেম আলীর মৃত্যুর পর বিদ্যালয়ের নামকরণ করা হয় তার নামে।

গত ৫ এপ্রিল কাজেম আলী স্মৃতি পরিষদও সংবাদ সম্মেলন করে বিদ্যালয়টির ‘বাণিজ্যিকীকরণ’ বন্ধের দাবি জানান।

ওই সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, বিদ্যালয়ের বর্তমান পরিচালনা কমিটি অবৈধভাবে পার্শ্ববর্তী খালের জমিতে মার্কেট এবং স্কুলের মাঠে কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ করছে।

শনিবার সংবাদ সম্মেলনে জহর লাল হাজারী বলেন, বিদ্যালয়ের বর্তমান কমিটি ভেঙ্গে একটি নতুন কমিটি গঠনের আকুতি নিয়ে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা আমাদের শরণাপন্ন হয়েছেন।

লিখিত বক্তব্যে জহর লাল বলেন, এই এলাকার সাংসদ জিয়াউদ্দিন বাবলু ও প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে জানাতে চাই, স্থানীয় চকবাজার ওয়ার্ডের পাঁচবারের নির্বাচিত কাউন্সিলর সৈয়দ গোলাম হায়দার মিন্টুকে সভাপতি করে নতুন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হোক।

সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নের জবাবে বাগমনিরাম ওয়ার্ডের কাউন্সিলর গিয়াস উদ্দিন বলেন, “সাংসদ সর্বোচ্চ চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি থাকতে পারেন। তাই আমার স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে সভাপতি করার প্রস্তাব করছি।”

চসিকের পরিচালনাধীন নয় এমন বিদ্যালয়ের বিষয়ে চসিক কাউন্সিলরদের দাবির বিষয়ে জানতে চাইলে জহর লাল বলেন, প্রতিদিন বিদ্যালয়টি নিয়ে পত্রিকায় পক্ষে-বিপক্ষে সংবাদ হচ্ছে। অভিভাবকরা সন্তানদের শিক্ষা জীবন নিয়ে চিন্তিত।

“চসিক নগরীতে অর্ধশতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে। জনপ্রতিনিধি হিসেবে জনদাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে আমরা এবিষয়ে কথা বলছি।”

চসিকের কতজন কাউন্সিলর এ দাবির সঙ্গে একমত জানতে চাইলে জহর লাল ও গিয়াস উদ্দিন বলেন, চসিকের ৫৫ জন কাউন্সিলরের সবাই এ দাবির সঙ্গে সহমত পোষণ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন চকবাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৈয়দ গোলাম হায়দার মিন্টু, এনায়েতবাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর এম এ মালেক, বক্সিরহাট ওয়ার্ড কাউন্সিলর নুরুল হক ও দক্ষিণ বাকলিয়া ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইয়াছিন চৌধুরী আশু।