কাগতিয়া মাদ্রাসা একটি যুগোপযোগী দ্বীনি প্রতিষ্ঠান

প্রকাশ:| শনিবার, ১৫ নভেম্বর , ২০১৪ সময় ১১:৪০ অপরাহ্ণ

কাগতিয়া কামিল মাদ্রাসার ৮৩তম এনামী জলসায় মাহবুবুল আলম তালুকদার

শফিউল আলম, রাউজানঃকাগতিয়া কামিল এম. এ. মাদরাসা আমার দেখা আধুনিক দ্বীনি কাগতিয়া মাদ্রাসা একটি যুগোপযোগী দ্বীনি প্রতিষ্ঠানপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে অন্যতম। কাগতিয়া দরবার শরীফের মহান মোর্শেদ গাউছুল আজমের নজরে ও অধ্যক্ষ মহোদয়ের দক্ষ পরিচালনায় এ মাদরাসার সুখ্যাতি একদিন বিশ^ জয় করবে বলে আমার দৃঢ় বিশ^াস। এ মাদরাসার অবকাঠামো, ভবিষ্যত পরিকল্পনা দেখে আমার মনে হয়েছে এ মাদরাসা আধুনিক দ্বীনি প্রতিষ্ঠান হিসাবে মুসলিম জাতির জন্য একটি মডেলে পরিণত হবে। গতকাল ১৫ নভেম্বর শনিবার ঐতিহ্যবাহী কাগতিয়া কামিল এম এ মাদ্রাসার ৮৩তম এনামী জলসায় চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর সভাপতি আলহাজ্ব মাহবুবুল আলম তালুকদার প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
সভাপতির বক্তব্যে চবি’র প্রফেসর ড. আবুল মনছুর বলেছেন লেখাপড়ার জন্য আধুনিক সকল সুযোগ-সুবিধা সমৃদ্ধ কাগতিয়া কামিল মাদ্রাসার নিরিবিলি প্রাকৃতিক মনোরম পরিবেশ সহজেই যে কাউকে আকৃষ্ট করবে। যুগশ্রেষ্ঠ অলীয়ে কামেল কাগতিয়ার গাউছুল আজমের পৃষ্ঠপোষকতা ও বর্তমান অধ্যক্ষ আল্লামা ছৈয়্যদ মুহাম্মদ মুনির উল্লাহ্র কর্মদক্ষতা ও প্রাণান্তকর প্রচেষ্টায় অনার্স কোর্স চালুসহ মাদ্রাসার বিশাল একাডেমিক ভবন, অডিটোরিয়াম, লাইব্রেরী নির্মাণসহ অবকাঠামোগত প্রভূত উন্নয়ন কর্মকান্ড চোখে পড়ার মতো। আর এরকম পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা পেলে মাদ্রাসায় অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরাও আর কোন ক্ষেত্রে পিছিয়ে থাকবে না। বরং ধর্মীয় শিক্ষার সাথে আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষায় সুশিক্ষিত হয়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবে। অন্যদের সাথে প্রতিযোগিতা করে কর্মক্ষেত্রে নিজেদের মেধা ও মননশীলতার স্বাক্ষর রাখতে পারবে। আর বর্তমান তথ্য ও প্রযুক্তির এ যুগে অন্যদের সাথে প্রতিযোগিতায় ঠিকে থাকতে হলে এবং দক্ষ আলেম হয়ে ইসলামের শাশ্বত শান্তির বাণী সকলের নিকট পৌঁছে দিতে হলে মাদ্রাসায় ধর্মীয় শিক্ষার সাথে আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষার সমম্বয় অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। যার কোন বিকল্প নেই। বিশেষ অতিথি ছিলেন চবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ তৌহিদ হোসেন চৌধুরী, ইনষ্টিটিউট অব মেরিন সায়েন্সেস এন্ড ফিসারীজ এর প্রভাষক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম সরকার, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নূর মোহাম্মদ, অধ্যাপক মুহাম্মদ কামরুল ইসলাম, অধ্যাপক মুহাম্মদ আবুল হাসান, অধ্যাপক অলি আহাদ চৌধুরী, অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন হযরতুলহাজ্ব আল্লামা মুফতি মুহাম্মদ ইব্রাহিম হানফি, হযরতুলহাজ্ব আল্লামা মুফতি আনোয়ারুল আলম ছিদ্দিকী, হযরতুলহাজ্ব আল্লামা এমদাদুল হক মুনিরী, আল্লামা আশেকুর রহমান ও মাওলানা মুহাম্মদ সেকান্দর আলী। সভা শেষে মিলাদ-কিয়াম-মুনাজাতে মাদ্রাসার উত্তোরোত্তর উন্নতি ও প্রধান পৃষ্ঠপোষক কাগতিয়ার গাউছুল আজম মাদ্দাজিল্লুহুল আলী ছাহেবের দীর্ঘায়ু কামনা করা হয়।