কল্লোল দাদা: অনুপ্রেরণার উৎস

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৭ আগস্ট , ২০১৮ সময় ১১:৩০ অপরাহ্ণ

শিপক কৃষ্ণ দেবনাথ
সহকারী অধ্যাপক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়::

সঞ্জয় মহাজন কল্লোল। তিনি একজন সাংবাদিক ছিলেন। ছিলেন একজন সংগঠক। অসংখ্য-অগণিত শুভাকাক্সক্ষী তাঁর। কিন্তু একজন মানুষ বেঁচে থাকার জন্য কি এটাই যথেষ্ট? হয়তো ‘হ্যাঁ’। ‘না’-ও হয়তো। সাংবাদিক কল্লোল দাদা বেঁচে আছেন এবং সরব হয়েই।

তাঁর সাথে সম্পর্ক ১৯৯৭ সাল থেকেই। হাটহাজারীর সাংবাদিকতার পথিকৃত কেশব দাদার মাধ্যমেই পত্রিকার জগতে কাজ করার সুবাদে তাঁর সাথে পরিচয়। কাছ থেকে যতটুকু দেখেছি শুধু অবাক হতাম। অল্প বয়সেই তিনি লেখনির মাধ্যমে হয়ে উঠেছিলেন সকলের প্রিয়পাত্র। তাঁর অগ্রজ শিক্ষক নেতা, সাংবাদিক ও সংগঠক শিমুল মহাজনকে অনুসরণ করতেন তিনি। ভাইয়ের মতো সংগঠকের ভূমিকায় থেকে সমাজের অসহায় বঞ্চিত মানুষের পাশেও দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। শীর্ষ ক্ষমতাধর ব্যক্তিদের কাছের হয়েও অতি সাধারণ ছিল তাঁর ব্যবহার। সকল ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন নির্মোহ ও নিরহংকারী।

আজ অসীম ব্রহ্মা-ের ঠিক কোথায় তিনি আছেন আমাদের জানা নেই। জানবার কথাও নয়। তিনি এ মর্ত্যে নেই- এসত্য কেবলই বেদনার। শূণ্যতার বীণা বেজে ওঠে হৃদয়ের কোন সুক্ষ্ম তন্ত্রীতে। তিনি আর কোনদিন হাসি মুখে জানতে চাইবেন না- আটপৌরে জীবনের ধূসর পঞ্জি। আজ তিনি আমাদের মাঝে নেই। নেই মানে আর কোনও দিন তাঁর সঙ্গে দেখা হবে না- কথা হবে না। তাঁর অমর কীর্তিতে আমরাও মনের অজান্তেই আত্মতৃপ্তিতে ঝলসে উঠি। সাংবাদিক কল্লোল দাদা আমাদের মাঝে বেঁেচ থাকবেন অনন্তকাল তাঁর কর্মে, তাঁর কীর্তিতে।