কর্মকর্তা কর্মচারীদের শতভাগ স্বার্থ সংরক্ষণ করা হবে

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১২ জানুয়ারি , ২০১৭ সময় ১১:৪৯ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের বিভাগীয় ও শাখা প্রধানদের বৈঠকে সিটি মেয়র

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন ১২ জানুয়ারি ২০১৭ খ্রি. বৃহষ্পতিবার, চসিক সম্মেলন কক্ষে বিকেলে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের বিভাগীয় ও শাখা প্রধানদের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠকে মেয়র বিভাগীয় প্রধান ও শাখা প্রধানদের নিকট থেকে তাদের উপর অর্পিত দায়িত্বের বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত অবহিত হন। এ সময় মেয়র বলেন, কর্মকর্তা কর্মচারীদের শতভাগ স্বার্থ সংরক্ষণ করা হবে। বিনিময়ে শতভাগ নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে হবে। সক্ষম করদাতাদের কাছ থেকে নিয়মিত পৌরকর আদায় করতে হবে। অক্ষম নিঃস্ব,গরীবদের উপর কোন ধরনের চাপ প্রয়োগ করা হবে না। তিনি বলেন, রাজস্ব সেবার একমাত্র লাইফ লাইন। এক্ষেত্রে রাজস্ব বিভাগের গতিশীলতা আনায়নের মাধ্যমে পৌরকর আদায় নিশ্চিত করতে হবে। সেবার স্বার্থে যতধরনের সুবিধা বিশেষ করে ট্রান্সপোর্ট সুবিধা, বেতন ভাতার সুবিধা সিটি কর্পোরেশন নিশ্চিত করবে। নগরবাসীর ট্যাক্সের বিনিময়ে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন-ভাতা পরিশোধ করা হয়। সেইক্ষেত্রে নগরবাসী শতভাগ সেবা পাওয়ার অধিকার রাখে। এক্ষেত্রে কোন ধরনের গাফিলতি বা অনিয়ম পরিলক্ষিত হলে কাউকে রেহাই দেয়া যাবে না। মেয়র জাইকার উন্নয়ন সহ থোক ও এডিপি’র চলমান উন্নয়ন কাজ গতিশীল করা, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মানসম্মত কাজ বুঝে নেয়া, রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি করা, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবাকে নগরবাসীর দোড়গোড়ায় পৌছে দেয়া, নগরীর অলিগলি, রাজপথ শতভাগ আলোকিত করা, বর্জ্য ব্যবস্থাপনাকে আরো স্বচ্ছ করা, ডোর টু ডোর বর্জ্য সংগ্রহের কার্যক্রম গতিশীল করা, চসিক এর জায়গা-সম্পত্তি সমূহ সুনির্দিষ্টকরণ করে সাইন বোর্ড সেঁটে দেয়া, আয়বর্ধক প্রকল্প গ্রহন করা, হিসাব সংরক্ষন কার্যক্রমে স্বচ্ছতা আনায়ন সহ প্রতিটি বিভাগ ও শাখার কর্মকান্ড স্বচ্ছ ও গতিশীল করার দিক নির্দেশনা দেন। মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন সকল ধরনের উন্নয়ন কাজের টেন্ডার প্রক্রিয়া এ মাসের মধ্যেই সমাপ্ত করার নির্দেশনা দেন। তিনি নিজস্ব প্রযুক্তি ও শ্রমশক্তি কাজে লাগিয়ে খাল থেকে মাটি ও আবর্জনা উত্তোলন এবং নগরীর সবগুলো নালা পরিষ্কার করার কার্যক্রম জোরদার করার নির্দেশনা দেন। আসন্ন বর্ষা মৌসুমের পূর্বে যাবতীয় উন্নয়ন কর্মকান্ড, খাল খনন এবং নতুন খালের কার্যক্রম সম্পাদনের উপর জোর দেন। বৈঠকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবুল হোসেন, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ড.মুহাম্মদ মুস্তাফিজুর রহমান,প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা মিসেস নাজিয়া শিরিন, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমদ, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মিসেস সনজিদা শরমিন, এক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট যুথিকা সরকার, প্রধান হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা মো. সাইফুদ্দিন, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ সফিকুল মন্নান সিদ্দিকী, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. রফিকুল ইসলাম মানিক, মো. মাহফুজুল হক, মনিরুল হুদা, আবু ছালেহ, কামরুল ইসলাম, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আশিষ মুখার্জি, উপসচিব আশেক রসুল চৌধুরী টিপু, জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবদুর রহিম সহ বিভিন্ন বিভাগ ও শাখা প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।


আরোও সংবাদ