কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর অক্টোবরে

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৮ সেপ্টেম্বর , ২০১৬ সময় ১০:৩৪ অপরাহ্ণ

আগামী মাসেই কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
ওবায়দুল কাদের
বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর সিটি গেইট এলাকায় মহাসড়কে বিআরটিএ’র ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিদর্শনে এসে সংবাদিকদের একথা জানান মন্ত্রী।

তিনি জানান, আগামী মাসে চিনের প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী যৌথভাবে কর্ণফুলী টানেল নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের মাধ্যমে কাজের শুভ সূচনা হবে। সেকারণেই সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষকে নিয়ে মতবিনিময় করতে চট্টগ্রাম এসেছেন।

টানেল নির্মাণ করতে গিয়ে যাতে কোন সংস্থার সঙ্গে কোন ধরনের সমস্যা না থাকে সেজন্য সমন্বয় সভা করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, বৈঠকে নৌ-বাহিনীর প্রধান, চট্টগ্রাম বন্দর চেয়ারম্যান, সিডিএ চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য সংস্থার প্রতিবিধিরা উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, কোন সংস্থার সাথে যাতে কোন সমস্যা না থাকে তা সমাধান করেছি।

চিনের প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম না এসে ঢাকা থেকে ভিডিও কনফান্সের মাধ্যমেও কাজের উদ্বোধন করতে পারেন উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, চিনের প্রধানমন্ত্রী ১০ থেকে ১৫ অক্টোরের মধ্যে আসতে পারেন। তবে তিনি খুবই ব্যাস্ত সময় কাটাবেন। ফলে তিনি ভিডিও কনফান্সে’র মাধ্যমেও উদ্বোধন করতে পারেন। যেমন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বিভিন্ন প্রকল্প ভিডিও কনফান্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করেছিলেন।

জিটুজি ভিত্তিতে কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ হচ্ছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ৯ হাজার কোটি টাকার মধ্যে ৬ হাজার কোটি টাকা ঋণ দেবে চীন সরকার। এ মাসেই ঋণ চুক্তি হবে। ২০১৯ সালের মধ্যে নির্মাণ কাজ শেষ করার সম্ভাবনা রয়েছে।

ঈদুল ফিতরের চেয়ে ঈদুল আযহায় ঘরমুখো মানুষের বাড়ি ফেরা নির্বিঘ্ন করা বড় চ্যালেঞ্জ মন্তব্য করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, কারণ এসময় একদিকে রাস্তার পাশে পুশুর হাট বসে, অন্যদিকে পশুবাহী গাড়ি মহাসড়কে চলাচল করে। এসব গাড়ি ধীর গতিতে চলাচল করার কারণে যাটজন তৈরি হয়।

সড়কে শৃঙ্খলা না থাকার কারণেই যানজট সৃষ্টি হয় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমাদের ধৈয্য কম। তাই একটু দেরি হলেই উল্টোদিক দিয়ে চলাচল করে। এই মানসিকতার পরিবর্তন করতে হবে। আর এটা রাতারাতি করা সম্ভব নয়। ফলে সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ।

বিশৃঙ্খলভাবে উন্নয়ন করলে তার সুফল জনগণ পাবে না উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, কোন পথে গেলে সমস্যার সমাধান হবে তা চিন্তা-ভাবনা করেই কাজ করা উচিত।

‘বৈঠকে সিডিএ চেয়ারম্যানকে বলেছি ফ্লাইওভার না করে আগে রাস্তা ঠিক করেন। চট্টগ্রামে ফ্লাইওভার করার মতো পরিস্থিতি এখনো সৃষ্টি হয়নি। তাই মনোরেল বা মট্রোরেল করলেই যানজটের সমাধান হবে।’

চট্টগ্রামে এলিভেটেড এক্সপ্রেস করলে সমস্যা আরও বাড়বে বলে মনে করছেন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।