কর্ণফুলীর তীরকে নান্দনিক স্পট হিসেবে গড়তে মানববন্ধন

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর , ২০১৫ সময় ০৮:৪৮ অপরাহ্ণ

কর্ণফুলীর তীরকে নান্দনিক, নিরাপদ, দেশসেরা বিনোদন স্পট হিসেবে গড়ে তোলার আহ্বান এসেছে চট্টগ্রামে আয়োজিত একটি মানববন্ধন থেকে।  একইসঙ্গে দূষণ ও দখলের বিরুদ্ধে সোচ্চার হবার জন্য চট্টগ্রামবাসীর প্রতি আহ্বানও এসেছে।
মানববন্ধন
শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) বিকেলে কর্ণফুলীর অভয়মিত্র ঘাটে এ মানববন্ধনের আয়োজন করে জলাশয় ও জলাধার রক্ষা কমিটি।  সংগঠনের আহ্বায়ক ও সাবেক কাউন্সিলর অ্যাডভোকেট রেহানা বেগম রানু মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন।

মানববন্ধনে অংশ নিয়ে আন্তর্জাতিক মানবতা বিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত বলেন, প্রকৃতির অপার সৃষ্টি কর্ণফুলী নানাভাবে আমাদের ঋদ্ধ করছে।  দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখার পাশাপাশি প্রতিনিয়ত তার রূপসুধা বিলাচ্ছে ভ্রমণপিপাসুদের।  তার রূপ-সৌন্দর্য চট্টগ্রামসহ সারাদেশের মানুষ যাতে মনভরে উপভোগ করতে পারে সেজন্য প্রশাসনসহ সর্বস্তরের মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে।

অ্যাডভোকেট রেহেনা বেগম রানু বলেন, কর্ণফুলী প্রকৃতির অপার দান, চট্টগ্রামের প্রাণপ্রবাহ।  এই কর্ণফুলিকে ঘিরে মৎস্যসম্পদ, জীববৈচিত্র্য ও বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রাণ বন্দর যেমন গড়ে উঠেছে, তেমনি এই কর্ণফুলীতে সুর হয়, গান হয়।  বিকেলের কর্ণফুলী, সন্ধ্যার কর্ণফুলি, রাতের কর্ণফুলি একেক রূপে আবির্ভূত হয় আমাদের মাঝে।  আর সেই রূপমাধুরী উপভোগ করতে গিয়ে ভ্রমণপিপাসুরা লাঞ্চনা ও হেনস্থার শিকার হচ্ছে।  কর্ণফুলির তীর হোক একটি নিরাপদ, নান্দনিক ও দেশসেরা বিনোদনস্পট।

‘মনভরে উপভোগ করি, কর্ণফুলির রূপমাধুরী’ এই স্লোগানে আয়োজিত মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্রশাসন ও পরিকল্পনা) মো.জাফর আলম, চসিকের কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব ও লুৎফুন্নেছা দোভাষ বেবী, অ্যাডভোকেট বিশ্বজিৎ দাশ, অ্যাডভোকেট শুভাগত চৌধুরী, অ্যাডভোকেট মো.ইদ্রিস, অ্যাডভোকেট সেলিনা, বঙ্গবন্ধু শিশুকিশোর মেলা চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সভাপতি মো. সাজ্জাত হোসেন, নারীনেত্রী সালমা জাহান মিলি, আলেয়া নূর, ছাত্রলীগ নেতা ওয়াহেদ বুলবুল অর্পণ, বাঁশখালী নাগরিক উন্নয়ন কমিটির নেতা অমরজিৎ বড়ুয়া এবং কর্ণফুলী সাম্পান-মাঝি সমিতির সভাপতি জাফর আহমেদ।