কক্সবাজার ও চকরিয়ায় ছাত্রদল-বিএনপির বিক্ষোভ

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২১ এপ্রিল , ২০১৫ সময় ১০:২৬ অপরাহ্ণ

ঢাকায় সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারণা চালাতে গিয়ে দলের চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আওয়ামী সন্ত্রাসিদের হামলার ঘটনায় বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন কক্সবাজার জেলা ছাত্রদল নেতা-কর্মীরা। তারা এই হামলার প্রতিবাদে শহরে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন। পরে তারা সংক্ষিপ্ত বিক্ষোভ সমাবেশও করেছেন।

ওই বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তাগণ বলেন, ‘ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বেগম খালেদা জিয়া প্রচারণায় নামার পর নির্বাচনে হেরে যাওয়ার ভয়ে অস্থির হয়ে পড়েছে আওয়ামী লীগ ও সরকারি দলের নেতা-কর্মী, মন্ত্রীরা। তারা ভয়ে টাল হারিয়ে এখন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলা চালিয়েছে আওয়ামী ক্যাডাররা। আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই হামলায় উস্কানি দিয়েছেন।’

তারা বলেন, ‘খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলা করে মানুষের হৃদয় থেকে বিএনপিকে মুছে ফেলা যায় না। বরং এই হামলা বিএনপির জনপ্রিয়তাকেই বৃদ্ধি করবে।’

ছাত্রদল নেতা-কর্মীরা অবিলম্বে খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলাকারিদের গ্রেপ্তার ও তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য আইনশৃংখলা রক্ষাকারি বাহিনীর প্রতি আহবান জানিয়েছেন। অন্যথায় কক্সবাজার থেকেই সরকার পতনের আন্দোলন শুরু করা হবে বলেও হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন নেতারা।

জেলা ছাত্রদল সভাপতি রাশেদুল হক রাসেলের নেতৃত্বে হওয়া বিক্ষোভ মিছিলটি বিকালে জেলা বিএনপি কার্যালয় থেকে শুরু হয়ে প্রধান সড়কের বাজারঘাটা পর্যন্ত ঘুরে আবার বিএনপি কার্যালয়েই ফিরে বিক্ষোভ সমাবেশে মিলিত হন।

সমাবেশে ছাত্রদল সভাপতি রাশেদুল হক রাসেল বলেন, ‘বিএনপি হলো সাধারণ মানুষের দল। বিএনপির সাধারণ মানুষের জন্যই রাজনীতি করে। আর সেই দলের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।’
কক্সবাজার ও চকরিয়ায় ছাত্রদল-বিএনপির বিক্ষোভ
তিনি বলেন, ‘দেশনেত্রী খালেদা জিয়া নির্বাচনী মাঠে নামলে ভোটের জোয়ারে হাওয়া লাগবেই। আর এতেই বেসামাল আওয়ামী লীগ। বেসামাল আওয়ামী লীগ হামলা ছাড়া আর কিইবা করতে পারে।’

রাশেদুল আলম রাসেল বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর জনপ্রিয়তা যখন শূণ্যের কোটায়, তখন খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তায় দিশেহারা হয়ে শেখ হাসিনা প্রলাপ বকতে শুরু করেছেন।’

তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের মন্ত্রী, নেতা-কর্মীদের সন্ত্রাসের রাজনীতি থেকে বিরত থাকার আহবান জানান।

জেলা ছাত্রদলের এই মিছিল ও সমাবেশে আরও ছিলেন সিনিয়র সহ-সভাপতি সরওয়ার রোমন, জেলা ছাত্রদল সাংগঠনিক সম্পাদক শাহীনুল ইসলাম শাহীন, যুগ্ম সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম রিটন, শহর ছাত্রদলের আহবায়ক মোহাম্মদ ইলিয়াছ, শহর য্গ্মু আহবায়ক শাহাদত হোসেন রিপন, ফাহিমুর রহমান, আনছার উল্লাহ, আশরাফ ইমরান, কায়সার ফারুক, আল আমিন ও আহমদ ছফা, কক্সবাজার সিটি কলেজ ছাত্রদল যুগ্ম আহবায়ক শামসুল আলম, মোহাম্মদ শাহজাহান, ইমরান হোসেন, কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি শাখার যুগ্ম আহবায়ক ওয়াহিদ্জ্জুামান রাজিব ও নাছির উদ্দিন সুমন, ওমর ফারুক দিনার, মোজাম্মেল হক, একরামুল হক, নেজাম উদ্দিন, কুতুব উদ্দিন, রহিম উল্লাহ, আবুল হাসনাত, সাইফুল আলম রানা, সাদ্দাম হোসেন, সাদমান সৌমিক ফয়সাল, মনজুর হোসেন, আবদুর রহিম, জাফর আলম, সাজ্জাদ হোসেন, আবু হেনা মোস্তফা, নেজাম উদ্দিন, রিয়াজ উদ্দিন, আহমদুল হক রাসেল, আবদুল্লাহ আবু সাইয়িদ বাবু, আবদুল্লাহ আল মামুন সাগর, নাসির উদ্দিন পুতু, ওসমান প্রমূখ।

নিখোঁজ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ও সাবেক যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব সালাহ উদ্দিন আহমদকে অবিলম্বে সুস্থ ও অক্ষত অবস্থায় ফেরত দেয়ার দাবীতে মঙ্গলবার দুপুরে কক্সবাজারের চকরিয়ায় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে মানবন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করা হয়েছে।

সভায় বক্তারা বলেন, কক্সবাজার জেলার জনপ্রিয় নেতা সালাহ উদ্দিন আহমদকে অক্ষত অবস্থায় অবিলম্বে ফেরত নাদিলে সরকারকে কঠিন পরিণতি ভোগহ করতে হবে। সরকার বিএনপির আন্দোলন বাঁধাগ্রস্থ করার জন্য তাকে অজ্ঞাত স্থানে লুকিয়ে রাখা হয়েছে। সরকারের উদ্যোশ্যে হুশিয়ারী উচ্চারণ করে নেতৃবৃন্দরা বলেন, তাকে মুক্তি না দেয়া পযর্ন্ত প্রয়োজনে কক্সবাজার জেলা অচল করে দেয়া সহ সরকার পতনে আন্দোলন ত্বরান্বিত করা হবে।
কক্সবাজার ও চকরিয়ায় ছাত্রদল-বিএনপির বিক্ষোভ
উপজেলার চিরিংগা ইউনিয়নের বুড়িপুকুর মাছঘাট ষ্টেশনে উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও ইউনিয়ন সভাপতি বজল কবিরের সভাপতিত্বে ও উপজেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক আজিজুল করিমের সঞ্চালনায় বিক্ষোভে অংশ নেন উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের বিএনপি,যুবদল,ছাত্রদল, শ্রমিকদল, স্বেচ্ছাসেবকদল নেতৃবৃন্দ। অপরদিকে চকরিয়া পৌরসভা বিএনপির আহবায়ক ও জেলা বিএনপির উপদেষ্টা আলহাজ্ব আবু তাহের চৌধুরী আবু মিয়া ও পৌর বিএনপির সদস্য সচিব এসএম আবুল হাসেমের নেতৃত্বে একই সময়ে চকরিয়া পৌর বাস টার্মিনালস্থ মহাসড়কে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।