কক্সবাজারে পাসপোর্ট জালিয়াতির অভিযোগে ২ মহিলার কারাদন্ড

প্রকাশ:| বুধবার, ১ নভেম্বর , ২০১৭ সময় ১০:২৪ অপরাহ্ণ

সেলিম উদ্দীন, ঈদগাঁও, কক্সবাজার প্রতিনিধি: জন্ম নিবন্ধন সনদ, চেয়ারম্যান সার্টিফিকেট ও অনুষাঙ্গিক কাগজপত্রের সাথে নিজেদের ছবি সংযোজন করে পাসপোর্ট পাওয়ার জন্য আবেদন করার অভিযোগে হাতেনাতে ধারা পড়েছে দুই মহিলা।
বুধবার দুপুরে কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে এদের আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে পাসপোর্ট কর্মকর্তা। পরে তাদের প্রত্যেককে দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেছেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ নোমান হোসেন।
ইউএনও জানান, অভিযুক্ত দুই নারীকে বাংলাদেশ দন্ডবিধি এর ১৮৬ বিধি মতে ১ মাসের কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। তারা মায়ানমার (রোহিঙ্গা) এর নাগরিক জানিয়ে ইউএনও আরো বলেন, সব চেয়ারম্যান, মেম্বার, ইউপি সচিবসহ সকলকে রোহিঙ্গা বিষয়ে অধিকতর সজাগ থাকার জন্য বলা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের এদেশের নাগরিক হতে কোনরুপ সহযোগিতা যদি কেউ করেন তবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।
কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস সূত্রে জানা গেছে, উখিয়া উপজেলার মরিচ্যা পালং ইউনিয়নের রুমখাঁ নতুন পাড়ার অলী আহমদের দুই মেয়ে ছেনুয়ারা ও তৈয়বা বেগমের নামে জন্ম নিবন্ধন সনদ, চেয়ারম্যান সার্টিফিকেট ও অন্যান্য কাগজপত্র সহকারে দুইটি পাসপোর্ট আবেদন জমা দেয়ার জন্য জমা কাউন্টারে দাঁড়ায় দুই মহিলা। সহকারী পরিচালক আবু নাঈম মাসুম নিজেই এসময় আবেদন কাউন্টারে বসে পাসপোর্ট আবেদন জমা নিচ্ছিলেন। সহোদরা দুই বোনের নামে আবেদন ফাইল দুটি’র কাগজ পত্র, কথাবার্তা ও মহিলাদ্বয়ের মুখাবয়বে অসঙ্গতি দেখে সন্দেহ হলে দুটি ফাইলই আটকে রাখেন তিনি। পরে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে আপন বোন নয় বলে স্বীকার করে ও পর¯পর চাচাতো বোন বলে দাবী করলে জালিয়াতির বিষয়টি ¯পষ্ট হয়। এভাবে অন্যের নামীয় কাগজপত্রের সাথে নিজেদের ছবি লাগিয়ে পাসপোর্ট জালিয়াতি প্রচেষ্টার বিষয়টি প্রমানিত হলে এরপর তাদেরকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়।
কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক আবু নাঈম মাসুম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রতিটি পাসপোর্ট আবেদন গ্রহন থেকে প্রসেসিং ও ডেলিভারী পর্যন্ত প্রত্যেক ধাপে নিবিড় তদারকির ফলে এদের আটক করা সম্ভব হয়েছে বলে জানান তিনি।
###