ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি , ২০১৭ সময় ০৮:৩০ অপরাহ্ণ

মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পরও নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজেএ) সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেছেন, যারা ওয়েজবোর্ড নিয়ে তালবাহানা করেন, তারা সরকারের অংশ কিনা?

তারা মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে বিব্রতকর অবস্থায় ফেলতে চায় কিনা, সেটিও খতিয়ে দেখার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার (৩১ জানুয়ারি) বেলা ১২টায় চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের উদ্যোগে আয়োজিত মানববন্ধন ও সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি।

চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেন, ওয়েজবোর্ডের দাবি নৈতিকভাবে সমর্থন করেছেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি। ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি প্রকাশ্যে এ ওয়েজবোর্ডের দাবিকে নৈতিকভাবে সমর্থন করেছেন। আমাদের সাংবাদিকদের নানা কর্মসূচিতে প্রধানমন্ত্রীও একাধিকবার বলেছেন, সাংবাদিকদের জন্য আরেকটি ওয়েজবোর্ড হওয়া উচিত।

তিনি বলেন, তথ্য মন্ত্রণালয় ওয়েজবোর্ড গঠন করার জন্য প্রাথমিক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। ইতোমধ্যে তথ্য মন্ত্রণালয় ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদেরকে কিভাবে ওয়েজবোর্ডে অন্তর্ভুক্ত করা যায় সেজন্য একটি সাবকমিটি করেছে। সেই কমিটিতে বিএফইউজে ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের প্রতিনিধিরা আছেন। পাশাপাশি ১৯৭৪ সালের যে আইন, সেটি সংশোধনের কাজ চলছে।

বিএফইউজেএ সভাপতি বলেন, ওয়েজ বোর্ড একটি আইন। যেখানে সরকার পক্ষ, মালিক পক্ষ ও সাংবাদিক সমাজের প্রতিনিধিদের মাধ্যমে আইন হওয়ার পরও বাংলাদেশে অনেক পত্রিকার মালিক তা মানছেন না। নোয়াব’র লজ্জা থাকা দরকার। নোয়াবের কারা বা কোন সদস্য আইন মানছেন না, তাদের চিহ্নিত করে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। সামনে বোর্ড গঠন হলে সেখানে আমরা বলবো, যারা আইন মানেন না তারা সেই সংগঠনের প্রতিনিধিত্ব করবেন না। যারা আইন মানেন না, তারা কিভাবে গণমাধ্যম চালাবেন?

সাংবাদিকদের ন্যায্য দাবি, আমরা তথ্য মন্ত্রণালয়ে তুলে ধরেছি। লাগাতারভাবে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতৃত্বে দাবি আদায়ের আন্দোলন জ্বালিয়ে রেখেছে। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন সংঘবদ্ধভাবে সরকারের কাছে যুক্তির ভাষায় দাবি উপস্থাপন করতে পেরেছে।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের মহাসচিব ওমর ফারুক বলেন, মহামান্য রাষ্ট্রপতির নৈতিক সমর্থনের পরও আমাদের নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নে বিলম্ব হচ্ছে। তাই অবিলম্বে সাংবাদিকদের দাবি আদায়ে সরকারের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি।

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মো. শহীদ উল আলম, যুগ্ম মহাসচিব তপন চক্রবর্তী, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আলী আব্বাস, অঞ্জন সেন, সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মহসীন চৌধুরী, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সিনিয়র সহ-সভাপতি রতন কান্তি দেবাশীষ, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী, অর্থ সম্পাদক দেবদুলাল ভৌমিক, টিভি জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শাহনেওয়াজ রিটন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লতিফা আনসারী রুনা, আহমেদ কুতুব, প্রীতম দাশ প্রমুখ।