ওয়ানডেতে সর্বশেষ নয় ইনিংসে কোনো ফিফটি নেই

প্রকাশ:| সোমবার, ১০ মার্চ , ২০১৪ সময় ১১:৪৩ অপরাহ্ণ

ওয়ানডেতে সর্বশেষ নয় ইনিংসে কোনো ফিফটি নেই। ব্যাটে রান-খরা চলেছে নিউজিল্যান্ড এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুটো হোম সিরিজে, এরপর এশিয়া কাপেও। এই নয় ইনিংসে ২৩.৫০ গড়ে করেছেন মাত্র ১৮৮ রান। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজেও তিন ইনিংস মিলিয়ে রান করেছেন মাত্র ৭৫। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজেও দুই ম্যাচ মিলিয়ে করেছেন ২৪ রান।
নাসির হোসেন যে ফর্মে নেই, সেটি জানতে এভাবে পরিসংখ্যানও ঘাঁটাঘাঁটির প্রয়োজন পড়ে না। তাঁর শরীরী ভাষা দেখেই বোঝা যায়। যে নাসির ছিলেন ধারাবাহিকতার প্রতিমূর্তি, শরীর থেকে ঠিকরে বেরোত আত্মবিশ্বাসের দ্যুতি, সেই তিনিই কেমন জানি মিইয়ে গেছেন। আগে কলার উঁচু করে রাখতেন। এখন সেই আত্মবিশ্বাসও মনে হয় হারিয়ে ফেলেছেন।
নাসির অবশ্য দাবি করছেন, ফর্ম নিয়ে খুব একটা চিন্তার মধ্যে তিনি নেই। শুধু তা-ই নয়, ফর্ম ঠিক রয়েছে বলে দাবি করে বললেন, ‘যখন আমি নামি, সেখানে বেশিক্ষণ ব্যাট করার সুযোগ থাকে না। আমার স্ট্রাইক রেট ১০০-এর ওপর থাকতে হয়। যদি রক্ষণাত্মক ভঙ্গিতে ২০ বলে ১০ করি, তবে সেটা দলের জন্য চাপ হয়ে যায়। এটি সবার ক্ষেত্রেই ঘটে। শেষ খেলায় (শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে) ৩০ কিংবা ৪০ করেছি। ফলে মনে করি, আমার ফর্ম ঠিকই আছে।’

আজও সে কথারই পুনরাবৃত্তি করলেন নাসির, ‘আমি লক্ষ্য দাঁড় করার সময় পায় না। কারণ আমাকে এমন জায়গা থেকে শুরু করতে হয় যখন খেলার আর ২০-২৫ বল বাকি থাকে। আমাকে সেটিকেই গুরুত্ব দিয়ে খেলতে হয়।’

ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি এ সময় নাসিরের হাত দিয়ে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ক্যাচও পড়েছে। তবে নাসিরের দাবি, সময়টা ভালোই কাটছে তাঁর, ‘আমার ভালো সময়ই যাচ্ছে। আপনারা অন্য রকম ভাবতে পারেন। তবে কয়েকটা ম্যাচে রান করতে না পারার মতো ঘটনা ঘটতেই পারে। আমি নিজেও এর থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছি।’ সংবাদমাধ্যম তাঁকে চাপে ফেলে দিচ্ছে বলেও মন্তব্য করেছেন, ‘আসলে মানুষের চেয়ে মিডিয়াই বেশি কথা বলছে। যদি আমি ভাবি সবাই আমার ফর্ম নিয়ে কথা বলছে, আমাকে পারফর্ম করতেই হবে—এটা কিন্তু আমাকে বেশি চাপে ফেলে দেবে।’

যে পরিস্থিতিতে ব্যাট হাতে নামেন, নিজের ব্যক্তিগত লক্ষ্যের চেয়ে দলের কথাই বেশি করে ভাবতে হয়। এটা তাঁর খেলায়ও প্রভাব ফেলছে বলে মনে করেন নাসির, ‘আমি কোনো লক্ষ্য ঠিক করতে পারি না। যখন ব্যাট হাতে নামি ২০-২৫টা বল বাকি থাকে। তাই আমাকে সেদিকেই মনোযোগ দিতে হয়।’


আরোও সংবাদ