ওসি মহসিনকে ‘বাঁশেরকেল্লা’র হুমকি

প্রকাশ:| বুধবার, ৪ মার্চ , ২০১৫ সময় ১০:৪০ অপরাহ্ণ

নাশকতা ও অপরাধ দমনে সিএমপির আলোচিত পুলিশ কর্মকর্তা বাকলিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিনকে হুমকি দিয়ে শিবির নিয়ন্ত্রিত ফেসবুক পেইজ ‘বাঁশেরকেল্লা’ থেকে আক্রমণাত্মক পোস্ট করা হয়েছে।

এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নিতে ওসি মহসিন বাকলিয়া থানায় মঙ্গলবার রাতে একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। বিষয়টিকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিয়ে পৃথক তদন্ত শুরু করেছে নগর গোয়েন্দা পুলিশ ও নগর পুলিশের বিশেষ শাখা।

জিডি সূত্রে জানা যায়, বাকলিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিনের বিরুদ্ধে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ছবি সম্বলিত দু’টি পোস্ট করা হয় বাঁশেরকেল্লা ফেসবুক পেইজ থেকে। বিষয়টি গত মঙ্গলবার ওসি মহসিনের নজরে এসেছে উল্লেখ করা হয় জিডিতে।

এর মধ্যে একটি ছবি হচ্ছে নগরীর শাহ আমানত সেতু এলাকায় নাশকতার বিরুদ্ধে সচেতনতামূলক একটি সভার। ওই ছবিতে ওসি মহসিনকে লাল গোল চিহ্নিত করে বলা হয়, ‘চট্টগ্রামের বাকলিয়া থানার ওসি কুখ্যাত মহসিন, যার নির্যাতনে আজ অসংখ্য মানুষের জীবন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। বিনা কারণে সাধারণ ছাত্র-জনতাকে গ্রেপ্তার করে নির্মম নির্যাতন, মিথ্যা স্বীকারোক্তি আদায়, কারাগার থেকে পুন:গ্রেপ্তার করে টাকা আদায় করা তার নিত্য দিনের পেশা। জনতা আজ জেগে উঠেছে। আর ছাড় দেয়া হবেনা। যত পরিবারের সে চোখের পানি ঝরিয়েছে তা ফিরিয়ে দেয়া হবে অবিলম্বে।’

ছবিটি বাঁশেরকেল্লা পেইজ থেকে শামস নূরুল ইসলাম নামে এক ফেসবুক ব্যবহারকারীর আইডির সঙ্গে সংযুক্ত করা হয়েছে।

অন্যদিকে সাধা পোশাক পরিহিত আরেকটি ছবিতেও ওসি মহসিনকে লাল গোল চিহ্নিত করে বলা হয়, ‘চট্টগ্রামের বাকলিয়া থানার কুখ্যাত ওসি মহসিন একজন লাইসেন্সধারী সন্ত্রাসী। জনতা আজ জেগে উঠেছে। এইসব সন্ত্রাসীকে তাদের প্রত্যেকটি অপকর্মের দাঁতভাঙা জবাব দেয়া হবে অবিলম্বে’।
Capturebk
ছবির ওপর করা পোস্ট করে সেটি বাঁশেরকেল্লা পেইজ থেকে শামস নূরুল ইসলাম এবং ওমর ফারুক সুজন নামে দু’জন ফেসবুক ব্যবহারকারীর আইডির সঙ্গে সংযুক্ত করা হয়েছে।

সিএমপি সূত্র জানায়, জিডি দায়েরের পর বুধবার সকালে বিষয়টি নগর পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তাদের কাছে একটি প্রতিবেদন আকারে বাকলিয়া থানা থেকে পাঠানো হয়। এরপর নগর পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তারা বিষয়টিকে গুরত্ব সহকারে নিয়ে হুমকিদাতাদের চিহ্নিত করতে গোয়েন্দা পুলিশ ও নগর বিশেষ শাখার কর্মকর্তাদের দায়িত্ব দিয়েছে।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারি কমিশনার (আইটি ও পিআর) জাহাঙ্গীর আলম বাংলামেইলকে বলেন, ‘বাকলিয়ার ওসি মহসিনকে যে ফেসবুক পেইজ থেকে হুমকি দেওয়া হয়েছে, সেটি মূলত শিবির নিয়ন্ত্রিত, অনেকটা তাদের মুখপাত্র হিসেবে পরিচিত। অতীতে এই পেইজ থেকে বিভিন্ন বার্তা দিয়ে নাশকতা সংঘটিত করা হয়েছে। পুলিশ কর্মকর্তাকে হুমকি দেওয়ার ঘটনাটি গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে। ইতোমধ্যে আমাদের আইটি বিশেষজ্ঞরা কাজ শুরু করেছেন। প্রয়োজনে বাইরের আইটি বিশেষজ্ঞদের সহযোগিতা নেয়া হবে। যে কোন মূল্যে হুমকিদাতাদের গ্রেপ্তার করা হবে।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাকলিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন বলেন, ‘বাঁশেরকেল্লা’র দেয়া হুমকিটি আপত্তিকর। তবে এ নিয়ে আমি কোন ভয় পাইনা। নাশকতা ও অপরাধীর বিরুদ্ধে কাজ করতে গিয়ে এরকম অসংখ্য হুমকি পেয়ে এসেছি। আমি আমার দায়িত্ব পালনে সদা অবিচল থাকবো। এসবের পরোয়া করিনা।’

তবে আইনগত দিক বজায় রাখতে জিডি করে সিএমপি সদর দপ্তরে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি।

উল্লেখ্য, জামায়াত শিবিরের শীর্ষস্থানীয় বেশ কয়েকজন নেতাকে ইতোমধ্যে নাশকতার প্রস্ততি নেয়ার সময় গ্রেপ্তার করেছেন বাকলিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন। সে কারণে তিনি সিএমপি কমিশনারের হাত থেকে সেরা ওসি হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছেন গত মাসে। এছাড়া নাশকতা দমনে সিএমপির ১৬ থানার মধ্যে বিশেষ ভূমিকা রেখে চলছেন পুলিশের আলোচিত এই কর্মকর্তা। ধারণা করা হচ্ছে, এ নিয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে জামায়াত-শিবির এই কাজ করতে পারে