ঐতিহাসিক স্মারক প্রদর্শনী ‘লন্ডন ১৯৭১’

প্রকাশ:| রবিবার, ৯ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ১১:৫৬ অপরাহ্ণ

প্রবাসে মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতিপর্বের বিক্ষুব্ধ, প্রতিবাদী দিনলিপি থেকে লন্ডন হয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন পুরো সময় নিয়ে আলোকচিত্র ও ঐতিহাসিক স্মারক প্রদর্শনী ‘লন্ডন ১৯৭১’।

এ শিরোনামে তিন দিনব্যাপী এ প্রদর্শনী রোববার (০৯ এপ্রিল) বিকেলে নগরের বাদশা মিঞা সড়কের চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের শিল্পী রশীদ চৌধুরী আর্ট গ্যালারিতে শেষ হয়েছে। শুক্রবার (০৭ এপ্রিল) থেকে প্রদর্শনী শুরু হয়েছিল।
সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়, ব্রিটিশ কাউন্সিল, পিএইচপি ফ্যামিলি, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, আমরা করবো জয় ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগিতায় এই প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে প্রজেক্ট লন্ডন ১৯৭১।
বাঙালিদের পাশাপাশি ১৯৭১ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের সমর্থনে বিশ্ব জনমত গঠনের ব্রিটিশ এমপি, রাজনীতিক, সাংবাদিক, সমাজকর্মী, প্রগতিশীল শিক্ষার্থীরাও রেখেছেন অনন্য ভূমিকা। একাত্তরের সেই উত্তাল দিনগুলোর কিছু ঘটনাপঞ্জির তথ্যচিত্র নিয়ে এ প্রদর্শনী। গুরুত্বপূর্ণ ৭১টি ছবি ও ৭টি স্মারক সামগ্রী ছিল প্রদর্শনীতে।
একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সহ সাধারণ সম্পাদক, আমরা করবো জয়’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক শওকত বাঙালির সভাপতিত্বে প্রদর্শনীর সমাপনী অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি ছিলেন শিক্ষাবিদ প্রফেসর হাসিনা জাকারিয়া বেলা, সিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) দেবদাস ভট্টাচার্য, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মঈনুদ্দীন, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) যুগ্ম মহাসচিব তপন চক্রবর্তী, চবি চারুকলা ইনস্টিটিউটের পরিচালক শায়লা শারমীন। সভায় স্বাগত বক্তব্য দেন প্রজেক্ট লন্ডন ১৯৭১’র উদ্যোক্তা ও সমন্বয়কারী উজ্জ্বল দাশ।
সভায় বক্তারা বলেন, দূর পরবাসে থেকেও বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে কাঁপিয়েছেন বিলেতের রাজপথ বহু মুক্তিকামী বাঙালি এবং অবাঙালি নাগরিক। মুক্তিযুদ্ধের বহু অজানা ইতিহাসের সরব সাক্ষী লন্ডন। স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রস্তুতিপর্ব থেকে মুক্তিযুদ্ধকালীন দীর্ঘ নয় মাস বিলেতের প্রতিটি শহরে স্বাধীন বাংলাদেশের সমর্থনে মুক্তিকামী বাঙালিরা জোরালো দাবি তুলেছেন।
মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাপঞ্জি নিয়ে এ প্রদর্শনী। যেখানে স্থান পেয়েছিল ১৯৭১ সালের ৫ মার্চ লন্ডনের পাকিস্তান হাইকমিশন থেকে পতাকা নামিয়ে পুড়িয়ে দেন মুক্তিকামী বাঙালিরা। ৩ এপ্রিল ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে স্মারকলিপি দেন মহিলা সমিতির নেতারা। একাত্তরের ১ আগস্ট স্বাধীন বাংলাদেশের সমর্থনে অ্যাকশন বাংলাদেশের উদ্যোগে লন্ডনের ট্রাফালগার স্কয়ারে অনুষ্ঠিত কালজয়ী বিশাল জনসমাবেশ। ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি ভোরে হিথ্রো বিমানবন্দরে বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং একই দিন সন্ধ্যায় ক্লারিজ হোটেলে বঙ্গবন্ধুর উপস্থিতিতে জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলন। এছাড়াও মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে জনমত গঠনসহ নানা ঘটনাপঞ্জির ৭১টি ছবিতে বিলেতপ্রবাসী বাঙালির গৌরবগাথার ইতিহাস।
এর আগে ঢাকার জাতীয় শিল্পকলা একাডেমি ও ব্রিটিশ কাউন্সিল এবং সিলেটে এ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।