ঐতিহাসিক বদরের শিক্ষা ও তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা সভা

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| রবিবার, ৩ জুন , ২০১৮ সময় ০৯:২৯ অপরাহ্ণ

দেশ বরেণ্য আলেমদের সংগঠন বাংলাদেশ জাতীয় মুফাসসির পরিষদের উদ্যোগে ১৭ রমজান ঐতিহাসিক বদর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাদ্দিস আমিরুল ইসলাম বিলালী।
পরিষদের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক মাওলানা এ এইচ এম আবুল কালাম আযাদের পরিচালনায় সভায় আলোচনা রাখেন কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শাইখ জামাল উদ্দীন, কেন্দ্রীয় মিডিয়া বিষয়ক সম্পাদক বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মাওলানা সাদিকুর রহমান আযহারী, কেন্দ্রীয় প্রকাশনা সম্পাদক ক্বারী মাওলানা সরোয়ার হোসেন, কেন্দ্রীয় দূর্যোগ ও ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক মাওলান কফিলুদ্দীন বিন আমীন সহ অন্যান্য ওলামায়েকেরাম।
কেন্দ্রীয় সভাপতি তার বক্তব্যে বলেন, আজ ১৭ রমজান ঐতিহাসিক বদর দিবস ৬২৪ খ্রিস্টাব্দের ১৬ মার্চ, হিজরি দ্বিতীয় বর্ষের ১৭ রমজান ৩১৩ জন সাহাবী নিয়ে মহানবী (সা.) মদীনা থেকে ৮০ মাইল দুরে বদর নামক স্থানে কাফেরদের সঙ্গে এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে অবতীর্ণ হন। ইতিহাসে এ যুদ্ধকে বদর যুদ্ধ নামে অভিহিত করা হয়। ঐতিহাসিক এ যুদ্ধে সেনাপতি ছিলেন বিশ^নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)। মহান আল্লাহ দয়া করে সেদিন ফেরেশতাদের মাধ্যমে মুমিনদের সাহায্য করেছিলেন। মহানবী (সা.) এর সঙ্গে জনবল ছিল মাত্র ৩১৩ জন। এর মধ্যে ৭০ জন মুহাজির বাকিরা আনসার। অন্যদিকে কাফির কুরাইশ বাহিনির সংখ্যা ছিল এক হাজার। এক হাজার কাফেরের মোকাবেলা, ৭০ জন কাফেরকে হত্যা করে, ১৪ জন সাহাবীর রক্তের বিনিময়ে বিজয় অর্জিত হয়েছিল বদরের ময়দানে। এ থেকে প্রমাণিত হয় বিজয়ের জন্য সংখ্যাধিক্য গুরুত্বপূর্ণ নয় বরং তাক্বওয়াই গুরুত্বপূর্ণ। তাই ঐতিহাসিক বদর থেকে শিক্ষা নিয়ে ঈমানের বলে বলিয়ান হয়ে শত্রুর মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে সকলের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান তিনি।


আরোও সংবাদ