এ মেয়াদেই রায় কার্যকর শুরু : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই , ২০১৩ সময় ০৪:৫০ অপরাহ্ণ

বর্তমান সরকারের মেয়াদকালে যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে দেয়া রায় কার্যকর শুরু করা যাবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ hasina-parliament_5309হাসিনা।রায় কার্যকর শুরু এ মেয়াদেই: প্রধানমন্ত্রী

মঙ্গলবার সংসদে চলতি বাজেট অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমাদের অঙ্গীকার ছিল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবো। আমরা শুরু করেছি। এর মধ্যে কয়েকটি রায় হয়েছে। বিচারের রায় আমরা কার্যকর করবো।”

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ সোমবার যুদ্ধাপরাধের দায়ে পাঁচটি অভিযোগে জামায়াতের ইসলামীর মুক্তিযুদ্ধকালীন আমির গোলাম আযমের সর্বমোট ৯০ বছরের বা আমৃত্যু কারাদণ্ডের আদেশ দেন।

এর আগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের চারটি মামলায় রায় হয়েছে।

গোলাম আযমের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনালের দেয়া রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “গোলাম আযমের বিচার হয়েছে। সাজা কি হয়েছে সেটা আদালতের বিষয়। এ নিয়ে আমি কথা বলতে চাই না। তবে এতদিন পর এ নিকৃষ্ট পাপিষ্ঠের যে বিচার হয়েছে তাতে আমি সন্তুষ্ট।”

এর ফলে দীর্ঘদিনের একটি প্রতীক্ষার অবসান এবং সংগ্রামের ফল বাস্তবায়িত হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, “৪২ বছর পর সাহস নিয়ে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র, সকল প্রকার ভয়-ভীতি উপেক্ষা করে বিচারকরা বিচারের কাজ শুরু করতে পেরেছেন, একের পর এক রায় দিয়েছেন- এটাই হচ্ছে জাতির সবচেয়ে বড় পাওনা।”

তিনি বলেন, “৭৫-এ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জিয়াউর রহমান মার্শাল ল’ অর্ডিন্যান্স করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের কাজ বন্ধ করে দেয়। শুধু তাই নয়, জিয়াউর রহমানের আমলে গোলাম আযম পাকিস্তানি পাসপোর্ট নিয়ে বাংলাদেশে আসে। স্বাধীনতা বিরোধীদের মন্ত্রী বানানো হয়।”

যুদ্ধাপরাধী ও তাদের সহায়তাকারীদের ব্যাপারে সজাগ থাকতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সোমবার এবং আজ গোলাম আযমের রায়কে কেন্দ্র করে জামায়াত হরতাল ঘোষণা দেয়। তাদের হরতালকে সমর্থন করে বিএনপি দু’দিন সংসদ অধিবেশনে যোগ দেয়নি।”

জামায়াতের হরতালে বিএনপির সমর্থন জাতির জন্য দুর্ভাগ্যজনক বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এবারের বাজেটকে চমৎকার বাজেট উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “৫ বছর মেয়াদের সরকারের এটি শেষ বাজেট। বাংলাদেশকে একটি আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে এগিয়ে নেয়ার জন্য এ বাজেট চমৎকার। অতীতে অন্য কোন সরকার এরকম বাজেট দিতে পারেনি। যে উন্নয়ন করেছি দেশ-জাতি তার সুফল পাচ্ছে।”

জনগণ ভোটে আবারও নির্বাচিত হলে এ বাজেট বাস্তবায়ন করতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফাইল ছবি