এ এফ রহমান আবাসিক ছাত্রাবাসের ভাতের থালায় জ্যান্ত কেঁচো!

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৩ মে , ২০১৪ সময় ১১:৩৮ অপরাহ্ণ

প্রথম আলো>>
খাবারের প্লেট টেবিলে এসে পৌঁছেছে। একটু পরেই তা থেকে ভাত মুখে পুরবেন। কিন্তু হাত দিতেই পাওয়া গেল এক জীবন্ত কেঁচো। এমন ঘটনা ঘটেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এ এফ রহমান আবাসিক ছাত্রাবাসের ক্যানটিনে। গতকাল সোমবার রাতের খাবার খাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী পাভেলের প্লেটে এই কেঁচো পাওয়া যায়। বিষয়টি জানাজানি হয়ে গেলে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ক্যানটিনে ভাঙচুর করে তালা লাগিয়ে দেন। এ সময় ক্যানটিনের ব্যবস্থাপক (ম্যানেজার) হেলাল উদ্দিন পালিয়ে যান।
সবজি কেটে ক্যানটিনের মেঝেতে রাখা হয়েছে। পরে এই সবজি রান্না করা হয় শিক্ষার্থীদের খাওয়ানোর জন্য। ছবি: প্রথম আলোপরে হল প্রাধ্যক্ষ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন এবং পোড়া তেল ও পচা সবজি ফেলে দেওয়ার নির্দেশ দেন। এ সময় যতদিন পর্যন্ত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন খাবার পরিবেশন করা না হবে, ততদিন পর্যন্ত ক্যানটিন বন্ধ রাখারও নির্দেশ দেন তিনি।
ক্যানটিনে নিয়মিত খাওয়া শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বললে অভিযোগের সুরে তাঁরা বলেন, ক্যানটিনে দীর্ঘদিন ধরে অপরিষ্কার ও অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে খাবার পরিবেশন করা হয়। শিক্ষার্থীরা বারবার অভিযোগ করলেও ক্যানটিন কর্তৃপক্ষ তা শোনেনি। ছাত্রাবাসের ডাইনিংয়ের খাবারের মান খারাপ হওয়ায় বাধ্য হয়েই শিক্ষার্থীরা ক্যানটিনে খান।
এই প্রতিবেদক সরেজমিন শিক্ষার্থীদের অভিযোগের সত্যতা পেয়েছেন।
শিক্ষার্থীরা আরও জানান, নিয়মিতই ভাত ও তরকারি রাখার পাত্রটি মেঝের স্যাঁতসেঁতে জায়গায় রাখা হয়। স্যাঁতসেঁতে হওয়ায় ওখানে কেঁচো জন্ম নেয় এবং কোনো না কোনোভাবে তা ভাতের পাত্রে ঢুকে পড়ে।
এ বিষয়ে এ এফ রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ এস এম মনিরুল হাসান সাংবাদিকদের বলেন, ‘ক্যানটিনের ম্যানেজারকে আগামীতে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন খাবার পরিবেশন করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি যতদিন পর্যন্ত ক্যানটিনের পরিবেশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হবে না, ততদিন পর্যন্ত ক্যানটিন বন্ধ থাকবে।’