এরশাদকে অভিনন্দন জানিয়েছেন চট্টগ্রামের ৫৫০ জন আলেম

প্রকাশ:| শনিবার, ৭ ডিসেম্বর , ২০১৩ সময় ১১:৫৫ অপরাহ্ণ

সব দল ছাড়া এরশাদকে নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্তে অটল থাকার আহ্বান জানিয়েছেন হেফাজত মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীবাবুনগরী
হাটহাজারী সংবাদদাতা ঃ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদকে সকল দলের অংশগ্রহণ ছাড়া নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার বর্তমান সিদ্ধান্তে অটল থাকার আহ্বান জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। শনিবার(৭ ডিসেম্বর) দেওয়া এক বিবৃতিতে তিনি এ আহ্বান জানান।
তিনি আরো বলেন, দেশ ও জাতি বর্তমানে এক গভীর সংকটময় মুহূর্ত অতিক্রম করছে। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবীতে পুরো জাতি আজ ঐক্যবদ্ধ। অথচ সরকার গণমানুষের এই দাবীর প্রতি কোনরূপ তোয়াক্কা না করে দেশ ও জাতিকে গভীর অনিশ্চয়তার মুখে ঠেলে দিয়েছে।
বিবৃতিতে হেফাজত মহাসচিব আরো বলেন, গত কিছু দিন আগে প্রধানমন্ত্রী স্পষ্ট বলেছিলেন, ‘তিনি দেশের শান্তি ও স্থিতিশীলতা চান, প্রধানমন্ত্রীর পদ চান না’। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য যে কতটা অসার, তা বুঝতে এখন কারো বাকী নেই। ক্ষমতার মোহে সরকার এতটা অন্ধ হয়ে পড়েছে যে, জনসাধারণের মতামতের প্রতি তো কোন ভ্রƒক্ষেপই করছে না, এমনকি তাদের জান-মাল এবং দেশের নিরাপত্তা ও স্বাধীনতাকে হুমকির মুখে ঠেলে দিতেও তারা কুণ্ঠা করছে না।
বিবৃতিতে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী আরো বলেন, বর্তমান গভীর রাজনৈতিক সংকটময় সময়ে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি পূর্বের অবস্থান থেকে ফিরে এসে সকল দলের অংশগ্রহণ ছাড়া নির্বাচনে না যাওয়ার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তা দেশের জনসাধারণের প্রত্যাশাকে পূরণ করেছে এবং এটা সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে। কারণ, বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নিরপেক্ষ নির্বাচনের লেভের প্লেয়িং ফিল্ড তৈরীর জন্য তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারেন। দেশের লক্ষ লক্ষ ওলামা-মাশায়েখ ও কোটি কোটি তৌহিদী জনতা জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান নাস্তিক্যবাদ প্রতিষ্ঠায় সিঁড়ি হিসেবে ব্যবহার হবেন, এটা কখনোই আশা করেন না।
এদিকে অপর এক বিবৃতিতে চট্টগ্রামের ৫৫০ জন আলেম জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদকে সব দলের অংশগ্রহণ ছাড়া নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্তে অবিচল থাকার অহ্বান জানিয়েছেন। বিবৃতিতে তারা বলেন, ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিক্যবাদের সহায়ক বর্তমান মহাজোট সরকার ভারতীয় দাদা বাবুদের খুঁটির জোরে একতরফা মনগড়া নির্বাচন দিয়ে এদেশের মুসলমানদের ঈমান-আক্বিদাকে ধ্বংস করতে চায়। কারণ, দাদাবাবুরা ভাল ভাবেই জানে যে, একজন ঈমানদার মুসলমান স্বাধীনতা বিরোধী ও অন্যায় আধিপত্যবাদিদের রক্ত চক্ষুকে কখনোই পরোয়া করেন না। এদেশকে ভারতের অঙ্গ রাজ্য হিসেবে প্রতিষ্ঠার মিশনে তাদের একমাত্র বড় বাধা হচ্ছে এদেশের উলামা-মাশায়েখ, ক্বওমী মাদ্রাসা এবং বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী সাধারণ মুসলমান। মুসলমানদের এই ঈমানী চেতনাকে নষ্ট করার জন্য তারা অনেক আগে থেকেই নানা চক্রান্ত করে যাচ্ছে।
বিবৃতিদাতা আলেমগণ হলেন, আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী, আল্লামা হাফেজ শামসুল আলম, আল্লামা তাজুল ইসলাম, মাওলানা সালাহ উদ্দীন, মুফতী শিব্বির আহ্্মদ, মাওলানা মনসূরুল হক খান, মাওলানা মুহাম্মদ ইদরিস, মাওলানা নাছির উদ্দীন মুনির, মাওলানা আলমগীর, মাওলানা আব্দুস সবুর, মুফতী আব্দুর রহীম, মাওলানা মুহাম্মদ সফি উল্লাহ্, মাওলানা সাইফুদ্দীন, মাওলানা এনামুল হক, হাফেজ সালামত উল্লাহ্, মাওলানা মাসরুরুল হক, মাওলানা লোকমান, মাওলানা মাহ্্মুদুল হাসান, মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম, মাওলানা জসীম উদ্দীন, মাওলানা মুহাম্মদ ওমর ফারুক, মাওলানা আশরাফ আলী, মাওলানা ইউনুস আহ্্মদ, মাওলানা আলী আহ্্মদ কাসেমী প্রমুখ।


আরোও সংবাদ