এন্টিবায়োটিক ব্যবহারে সচেতনতা সৃষ্টি জরুরী

প্রকাশ:| রবিবার, ৩০ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ১২:১১ পূর্বাহ্ণ

সিভাসুতে বিশ্ব ভেটেরিনারি দিবস উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে (সিভাসু) বিশ্ব ভেটেরিনারি দিবস ২০১৭ পালিত হয়েছে।  শনিবার সকাল সাড়ে ১০ টায় এ উপলক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস ও জাকির হোসেন রোডে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১১টায় প্রশাসনিক ভবনের কনফারেন্স রুমে “অহঃরসরপৎড়নরধষ জবংরংঃধহপব – ভৎড়স অধিৎহবংং ঃড় অপঃরড়হ” শিরোনামে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সিভাসু ও জেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের যৌথ উদ্যোগে এসব কর্মসূচি পালিত হয়। র‌্যালি ও আলোচনা সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, ছাত্রছাত্রী, কর্মচারী এবং প্রাণিসম্পদ দপ্তরের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তা, কর্মচারীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।
আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পোল্ট্রি রিসার্চ এ- ট্রেনিং সেন্টারের পরিচালক প্রফেসর ড. পরিতোষ কুমার বিশ্বাস। জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ রেয়াজুল হকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভেটেরিনারি মেডিসিন অনুষদের ডিন প্রফেসর মোঃ আব্দুল হালিম, ফুড সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি অনুষদের ডিন প্রফেসর ডা. মোঃ রায়হান ফারুক, ছাত্রকল্যাণ পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ মাসুদুজ্জামান, ভেটেরিনারি হাসপাতালের পরিচালক প্রফেসর ড. ভজন চন্দ্র দাস, মেডিসিন এন্ড সার্জারী বিভাগের প্রফেসর ড. আহসানুল হক, জেলা কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক ডা. মোঃ সালাউদ্দিন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য বলেন, এন্টিবায়োটিকের প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে আজ বিশ্বব্যাপি এ দিবসটি পালিত হচ্ছে। এ ধরনের কর্মসূচি অত্যন্ত সময়োপযোগী। নবীন ভেটেরিনারিয়ানরা দায়িত্ব নিয়ে এ সম্পর্কে মাঠ পর্যায়ে ভূমিকা রাখতে পারবেন।
আলোচনা অনুষ্ঠানে অহঃরনরড়ঃরপ জবংরংঃধহপব ও আমাদের করণীয় বিষয়ক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিজিওলজি, বায়োকেমিস্ট্রি এ- ফার্মাকোলজি বিভাগের সিনিয়র অধ্যাপক ড. এ.কে.এম. সাইফুদ্দীন। মূল প্রবন্ধে প্রফেসর সাইফুদ্দীন বলেন, পেনিসিলিন বা এন্টিবায়োটিক আবিষ্কারের ফলে মানবজাতি বিরাট মৃত্যু ঝুঁকি থেকে রক্ষা পেয়েছিল। কিন্তু এন্টিবায়োটিকের অনিয়ন্ত্রিত ও যত্রতত্র ব্যবহারের ফলে বর্তমানে পুরো মানবজাতি মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখিন। শিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত এন্টিবায়োটিকের দ্বারা প্রভাবিত। দৈনিক খাদ্য তালিকার সবকটি আইটেমে এন্টিবায়োটিকের প্রভাব রয়েছে। তিনি বলেন, পরবর্তী প্রজন্মের জন্য একটি বাসযোগ্য পৃথিবী রেখে যেতে হলে এন্টিবায়োটিকের ব্যবহার সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। এজন্য চিকিৎসাবিজ্ঞানী ও গণমাধ্যমের জোরালো ভূমিকা প্রয়োজন।
প্রসঙ্গত, প্রাণি ও প্রাণিজ প্রোটিনের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির সাথে সাথে প্রাণি চিকিৎসকের গুরুত্ব ও চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রাণি চিকিৎসা, প্রাণি উৎপাদন ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে সেবা দিয়ে সমাজে তথা দেশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন প্রাণি চিকিৎসকরা। ভেটেরিনারিয়ানদের এ মহৎ কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ ও সমাজে তাদের অবস্থান তুলে ধরতে ডড়ৎষফ ঙৎমধহরুধঃরড়হ ভড়ৎ অহরসধষ ঐবধষঃয (ঙওঊ) ও ডড়ৎষফ ঠবঃবৎরহধৎু অংংড়পরধঃরড়হ-এর যৌথ উদ্যোগে ২০০০ সাল থেকে ডড়ৎষফ ঠবঃবৎরহধৎু উধু উৎযাপন করা হচ্ছে। পরবর্তীতে এষড়নধষ ঐবধষঃয-এর গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে প্রতিপাদ্য করে প্রত্যেক বছর এপ্রিল মাসের শেষ শনিবার ডড়ৎষফ ঠবঃবৎরহধৎু উধু হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। শনিবার “অহঃরসরপৎড়নরধষ জবংরংঃধহপব – ভৎড়স অধিৎহবংং ঃড় অপঃরড়হ” এই প্রতিপাদ্যে বিশ্বব্যাপী ১৮তম ডড়ৎষফ ঠবঃবৎরহধৎু উধু পালিত হচ্ছে।


আরোও সংবাদ