এনজিও সংস্থার অফিসে হচ্ছে কি? সাংবাদিক প্রবেশ নিষিদ্ধ

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর , ২০১৫ সময় ১০:৩১ অপরাহ্ণ

এনজিও সংস্থা সলিডারিটিজ ইন্টারন্যাশনাল টেকনাফের অফিস অভ্যান্তরে হচ্ছে কি? সাংবাদিক সহ জনগণ প্রবেশে বাধা।

টেকনাফে অবস্থানরত এনজিও সংস্থা সলিডারিটিজ ইন্টারন্যাশনাল সরকারের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে স্যানেটেশন বিষয়ে দরিদ্র লোকজনদেরকে সেবা দেবে মর্মে দেশের বিভিন্ন স্থানে কাজ করছে।

টেকনাফে ও একই প্রতিশ্রুতি দিয়ে কাজ করার জন্য এখানে অবস্থান করে। কিন্তু সকল শর্ত ভঙ্গ করে নামে মাত্র খাতা কলম ঠিক রেখে অনিয়ম দূর্নীতি স্বজন প্র্রিতিতে লিপ্ত হয়ে পড়েছে বলে এলাকার লোকজন জানিয়েছে।

এদের শর্তে বলা হয়েছে স্ব-স্ব এলাকার পুরুষ-মহিলা নিয়োগ দিয়ে স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা তৈরী বিশুদ্ধ জলের ব্যবস্থা করণসহ দরিদ্র জনগোষ্টিকে এবিষয়ে উদ্ভোদ করা। কিন্তু টেকনাফ অফিসে যে সমস্ত মাঠ কর্মি পরিদর্শক পরিদর্র্শীকা নিয়োগ দেওয়া হয়েছে এদের বেশীর ভাগই টেকনাফ উপজেলার বাইরের।আবার কোন কোন ক্ষেত্রে রোহিঙ্গা যুবক-যুবতি দিয়ে কাজ করছে বলে স্থানীয় লোকজন জানায়।

সূত্র জানায়, এনজিও সংস্থা সলিডারিটিজ ইন্টারন্যাশনাল টেকনাফ অফিস বাহার ছড়া টেকনাফ সদর ও রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্পে স্যানেটেশন বিষয়ে কাজ করার কথা রয়েছে। অথচ উক্ত এলাকা গুলো পরিদর্শনে দেখা যায়, এখানে কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। নামে মাত্র কয়েকটি পায়খানা নির্মাণ ও কিছু পানির ব্যবস্থা করে দিবা-রাত্রী অফিসের কর্মচারীরা সুন্দরী সুন্দরী যুবতি নিয়ে অফিস অভ্যান্তরে ফুর্তিতে মশগুল থাকে বলে এলাকার লোকজন জানায়।ফলে অফিস অভ্যান্তরে কাউকে প্রবেশ করতে দেয়না।

এ সংক্রান্ত বিষয়ে গত ২৫ নভেম্বর একদল মিডিয়া কর্মি টেকনাফে সলিডারিটিজ ইন্টারন্যাশনাল অফিস পৌরসভাস্থ কে কে পাড়ায় গেলে গেইটে কর্মরত নিরাপত্তা প্রহরী প্রবেশ করতে দেয়নি। সাংবাদিক পরিচয় দেওয়ার পর আরিফ নামে একজন কর্মকর্তা এসে অফিসের বাইরে গিয়ে বলেন যে অফিসে প্রবেশ সম্পূর্ণ নিষেধ। কেন নিষেধ জানতে চাইলে সে কোন উত্তর দিতে পারেনি।

ঐ সময় অফিস অভ্যান্তরে মহিলাদের হাসি ও হৈ হোল্লার শব্দ আসচ্ছিল। এ ব্যাপারে স্থানীয় লোকজন জানায়, আপনারা কেন আমরাও সেখানে প্রবেশ করতে পারি না। এ অফিসে কি হচ্ছে এগুলো তদারকি করা দরকার। কেন না এখানে প্রতিদিন সকালে অনেক সুন্দরী সুন্দরী যুবতি অফিসে প্রবেশ করে ও সন্ধ্যায় চলে যায়। –