এখনো অরক্ষিত রয়েছে রায়পুর বেড়িবাঁধ

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| শনিবার, ৩০ জুন , ২০১৮ সময় ০২:৩৪ অপরাহ্ণ

এখনো অরক্ষিত রয়েছে রায়পুর বেড়িবাঁধ। শংকিত এলাকাবাসী। চলতি বর্ষায় জলোচ্ছ্বাসের আশংকা করছেন স্থানীয়রা।

আনোয়ারার রায়পুর ইউনিয়নে বেড়িবাঁধের নির্মাণকাজ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সময়মত মাটি কাটার কাজ শুরু না করায় চলতি মৌসুমে জোয়ারের পানিতে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশংকা রয়েছে। বর্তমানে বাঁধ অরক্ষিত থাকায় যেকোন সময় আবারো জোয়ারের পানিতে তলিয়ে যাওয়ার শংকায় রয়েছে এলাকাবাসী। সরেজমিনে বুধবার দুপুরে রায়পুর ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে কিছু অংশে এখনো বেড়িবাঁধের কাজ শুরু হয়নি। ফকিরহাট, বানিয়ারদীঘি, কোস্টগার্ড ও সরেঙ্গা এলাকাসহ ফকিরহাট থেকে সরেঙ্গা পর্যন্ত প্রায় ৪ কিলিমিটারের অধিক বেড়িবাঁধে মাটিকাটার কাজ কিছু এলাকায় শুরু না হওয়ায় এসব এলাকায় এখনো অরক্ষিত রয়েছে বেড়িবাঁধ। বর্তমানে বঙ্গোপসাগর ও সাঙ্গু নদীতে জোয়ারের পানি প্রতিনিয়ত বাড়তে থাকায় এসব এলাকায় বসাবসকারী কয়েক হাজার মানুষ চরম ঝুঁকির মধ্যে আছে। বানিয়াদীঘি এলাকায় জোয়ারের পানি ঠেকাতে মাটি দিয়ে বেড়িবাঁধের উপর একটি অস’ায়ী বাঁধ তৈরি করতে দেখা যায়। বেড়িবাঁধের মূল অংশ থেকে মাটি কেটে এ বাঁধ তৈরি করায় এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে এ ইউনিয়নের ১০ হাজার মানুষ ঝুঁকিতে বসবাস করছে। দ্রুত বাঁধের মাটি কাটার কাজ শেষ করতে না পারলে যেকোন সময় বাঁধ তলিয়ে আবারো জোয়ারের পানিত এলাকা প্লাবিত হওয়ার শংকায় রয়েছে তারা। স’ানীয়রা কাজের মান বজায় রেখে অতিদ্রুত বেড়িবাঁধের নির্মাণকাজ শেষ করার দাবি জানায়। স’ানীয় সরেঙ্গার বাসিন্দা সাহাবউদ্দীন অভিযোগ করে বলেন, গত জানুয়ারি থেকে পুরো শুষ্ক মৌসুমে ঠিকাদার এ এলাকায় মাটি কাটার কাজ করেনি। বর্ষা শুরুর সাথে সাথে জোয়ারের পানি ঢুকে এলাকার বসতঘর তলিয়ে গেলে হঠাৎ তাদের ঘুম ভাঙে। বর্তমানে বানিয়ারদীঘি এলাকায় যে অস’ায়ী বাঁধের কাজ হচ্ছে তা মূল বেড়িবাঁধকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। কেন না বেড়িবাঁধের গোড়ায় বড় বড় গর্ত করে মাটি কাটা হচ্ছে। পরবর্তীতে এ গর্তগুলো ভরাট করলেও তা মূল বেড়িবাঁধে প্রভাব পড়বে। তাছাড়া যেসব এলাকায় কাজ হচ্ছে সেসব কাজের মানদন্ড নিয়েও এলাকাবাসীর মাঝে অভিযোগ আছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড যথাযথভাবে তদারকি না করার ফলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তাদের খেয়াল খুশিমত কাজ করছে বলে তিনি জানান। স’ানীয় রায়পুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জানে আলম বলেন, ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপির অক্লান্ত প্রচেষ্টায় বেড়িবাঁধের উন্নয়নের ২শ ৮০ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ চলছে। কিন’ যেসব ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান টেন্ডার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে উন্নয়ন প্রকল্পগুলো পেয়েছে তারা সময়মত কাজ শুরু না করায় বাঁধ এলাকায় জোয়ারের পানি এলাকায় ঢুকে দুর্ভোগ সৃষ্টি হচ্ছে। আর পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তাদের যথাযথ তদারকি না থাকায় কাজের মান নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে।
কাজের ধীরগতির ফলে বর্ষার শুরুতে এলাকায় জোয়ারের পানি ঢুকে বসতঘর প্লাবিত হচ্ছে। এতে এলাকার মানুষের সীমাহীন দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে।পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহকারি প্রকৌশলী জহির উদ্দীনের যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, জোয়ারের পানি ঠেকাতে অস’ায়ী বাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে। তাছাড়া বেড়িবাঁধের চলমান কাজে যথেষ্ট অগ্রগতি আছে। নিয়মিত কাজ তদারকি করা হচ্ছে। কাজে কারো গাফিলতি ধরা পড়লে তাৎক্ষণিক ব্যবস’া নেয়া হবে।