একজন ছড়াকার ও শিশু সাহিত্যিক শিবুকান্তি দাশ

প্রকাশ:| শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি , ২০১৭ সময় ০৯:০১ অপরাহ্ণ

নজরুল ইসলাম
শিবুকান্তি দাশ একজন ছড়াকার, সাহিত্যিক, সাংবাদিক হিসেবে রয়েছে সারা দেশের সাহিত্য-সংস্কৃতিক অঙ্গনে রয়েছে তার ব্যাপক পরিচিতি। সাহিত্য সাধনার পাশাপাশি সাংবাদিকতা, রাজনৈতিক ভাবেও স্থানীয় ও কেন্দ্রীয়ভাবে সমান তালে তার প্রভাব রয়েছে। এক সময়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। জন্মস্থান পটিয়ায় সৃজনশীল কর্মকান্ডে তার অগ্রণী ভুমিকা এখনো রয়েছে। তার সৃজিত সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনের কর্মীরা এখনো জাতীয়ভাবেও অনেকে অনেক উচু স্থানে জায়গা করে নিয়েছে। শিবুকান্তি দাশ একজন শুধু ব্যক্তি নন প্রতিষ্ঠানও বটে। তার হাত ধরে পটিয়ায় অনেকে সামাজিক,সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। প্রতিষ্ঠানগুলো এখনো সমাজের অবহেলিত মানুষের মধ্যে আলো ছড়াচ্ছে।বাংলাদেশের একজন প্রখ্যাত শিশু সাহিত্যিক ও সাংবাদিক শিবুকান্তি দাশের জীবনের ৪৫টি বছর পার হওয়ার দিনে তার সর্ম্পকে কিছু লিখতে বাধ্য হয়েছি। না লিখেলে নিজকে ছোটমনে হচ্ছে। এ বছর তার ৪৫ তম জন্মবাষির্কী। তাকে জানাই জন্মদিনের শুভেচ্ছা। শুভ কামনা। ১৯৭১ সালের এ দিনে তিনি জন্মগ্রহন করেন চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া সদরের সুচক্রদন্ডী গ্রামের খাস্তগীর পাড়ায়।বাবা প্রয়াত ননীগোপাল দাশ। মাতা-অমিয়বালা দাশ। দুই ভাইয়ের মধ্যে তিনি বড়।লেখালেখির হাতেখড়ি সেই হাই ইশকুলে থাকতে। ১৯৮৫ সালে স্কুলের ১৪০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে প্রকাশিত দেয়াল পত্রিকায় একটি ছড়া লিখার পর আর থেমে থাকেনি সাহিত্য চর্চা। লিখে চলেছেন দুহাতে। প্রথম পত্রিকায় লেখা ছাপা হয়ে ১৯৮৯ সালে। দৈনিক আজাদীর আগামীদের আসরে। লেখার শিরনাম ছিল ‘ হেমন্তের সুখ’। তারপর বিভিন্ন জাতীয়,স্থানীয় দৈনিক, সাপ্তহিক, ম্যাগাজিন পত্রিকায় লিখে লিখে পথ চলা। তিনি শুরু থেকেই শিশু সাহিত্য চর্চা করে আসছেন। ছড়া , কিশোর কবিতা, ছোট গল্প, উপন্যাস লিখে বড়দের কাছে পরিচিত হয়ে উঠেন। বিশেষ করে কিশোর কবিতা চর্চ্চায় তিনি ঝলকে উঠেন পাঠক মহলে। তার কিশোর কবিতা গুলোতে মুক্তিযুদ্ধ, ভাষা আন্দোলন, প্রকৃতি, সমসাময়িক ঘটনাসহ ইত্যাদি অনুষঙ্গ দেখা যায়।
ফিলিস্তিনের উপর কেন পড়ছে এত বোমা/পড়তে বসে বলছে খোকা ওমা
কেন বোমায় মরবে শিশু পঙ্গু হবে বাবা/কী দোষ তারা করেছে মা, মারছে কেন থাবা।
ফিলিস্তিনে পড়ছে বোমা/ (বোদ ঝুরঝুর মিষ্টি দুপুর)।
রাজাকারের ফাঁসির দাবি শাহবাগে/সারাদেশের তরুণ সমাজ রাত জাগে
দলে দলে আসছে সবে হাত ধরে/মানবতার শত্রুগুলো যাক মরে।
(রাজাকারের ফাঁসির দাবি/ ( বোদ ঝুরঝুর মিষ্টি দুপুর) ।
এ শহরে এক যে আছে বীর/নেই যে তাহার ধনুক কিংবা তীর
দুই পাশে তার দুই পলোয়ান থির/রাস্তা দিয়ে হাটলে বাড়ে ভীড়।
বীর পলোয়ান / (একটি ছড়া লিখব বলে)
এ পর্যন্ত তার প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা এক ডজন। তিনি দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে লিখে আসলে ও তার বইয়ের সংখ্যা তুলনামূলক কম। উল্লেখ যোগ্য বই গুলো হচ্ছে, কিশোর কবিতাগ্রন্থ ‘ রোদের কণা রুপোর সিকি, মাঠ পেরুলেই বাড়ি, রোদ ঝুরঝুর মিষ্টি দুপুর। ছোট গল্প গ্রন্থ, পরির পাহাড় রহস্য, লাল পরি নীল পরির গল্প, রানি পুকুরের দুষ্টু ভূত। কিশোর উপন্যাস গ্রন্থ, যুদ্ধদিনের গল্প, আমাদের গুড বয়, ছড়াগ্রন্থ ‘লাল নীল ঘুড়ি ও ‘একটি ছড়া লিখব বলে’। তিনি সম্পাদনা করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রমান্য গ্রন্থ‘ যুদ্ধে যুদ্ধে স্বাধীনতা ও গল্প সংকলন ‘রাজকুমারি পরি ও ভূতের গল্প’ । তার সম্পাদিত অনিয়মিত ছোট কাগজ ‘ এলোমেলো ’ও ‘চিরকুট’। ইতিমধ্যে তার এ লেখালেখির জন্য বিভিন্ন সংগঠন ও সংস্থা তাকে সম্মাননা ও পুরস্কারে ভূষিত করেছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য , এম নুরুল কাদের শিশু সাহিত্য পুরস্কার ( ২০০৭) ও অধ্যাপক মোহাম্মদ খালেদ শিশু সাহিত্য পুরস্কার (২০১৩)। তার এ লেখালেখির প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে কিশোর কবিতা গ্রন্থ রোদের কণা রুপোর সিকি’ প্রন্থের ভূমিকায় বিশিষ্ট শিশু সাহিত্যিক কিশোর কবিতার শীর্ষ কবি সুজন বড়–য়া বলেছেন, শিবুকান্তি দাশ একজন স্বপ্রাণনিস্ট কবি। গদ্য পদ্য উভয় শাখায় তিনি সমান পারদর্শি। র্দীঘদিন তিনি শিশু সাহিত্যের নানা শাখায় প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে চলেছেন। কিশোরদের বিস্ময় ও কৌতূহলের জায়গাটি তাক করতে শিবুকান্তি দাশ অত্যন্ত সিদ্ধহস্ত। চমকপ্রদ বিষয় সন্ধানেও তিনি অক্লান্ত । তার লেখায় নতুন নতুন ধারনা পাওয়া যায়। নতুন নতুন বিষয়ে লিখতে সিদ্ধহস্ত এ লেখক। শিবুকান্তি দাশ পেশাগত জীবনে চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত বহুল প্রচারিত‘ দৈনিক পূর্বকোন’ এর ঢাকা অফিসে সিনিয়র সাংবাদিক হিসেবে কমরত আছেন। কাজের ফাঁকে নানা সাংগঠনিক কাজের সাথেও নিজেকে জড়িয়ে রেখেছেন। তিনি পটিয়া আইন কলেজের প্রধান উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠাতা, পটিয়া আর্ট স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক, পটিয়াস্থ সৃজনশীল সাহিত্য গোষ্ঠী মালঞ্চ’র সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলা একাডেমী, জাতীয় প্রেস ক্লাব, চট্টগ্রাম একাডেমী ও চট্টগ্রাম সমিতি ঢাকার আজীবন সদস্য। চিটাগাং জার্নালিস্টস ফোরাম ঢাকার অর্থ সম্পাদকও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের দায়িত্বে রয়েছে।