উসুফ আলী মৃধাসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলায় অভিযোগপত্র

প্রকাশ:| রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর , ২০১৩ সময় ১১:১৮ অপরাহ্ণ

ইউসুফ আলী মৃধাবস্তাভর্তি টাকা উদ্ধারের ঘটনায় আলোচিত রেলওয়ের সাবেক মহাব্যবস্থাপক বস্তাভর্তি টাকা উদ্ধারের ঘটনায় আলোচিত রেলওয়ের সাবেক মহাব্যবস্থাপক ইউসুফ আলী মৃধাসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলায় অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

রোববার বিকেলে চট্টগ্রাম মুখ্য মহানগর হাকিম মশিউর রহমানের আদালতে দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক (বর্তমানে বরিশালে কর্মরত) মো.নাজিম উদ্দিন অভিযোগপত্রটি দাখিল করেন। আগামী ৬ অক্টোবর অভিযোগপত্রের উপর শুনানির সময় নির্ধারণ করেছেন বিচারক।

চট্টগ্রাম আদালতের দুদকের পিপি অ্যাডভোকেট মাহমুদুল হক মাহমুদ বলেন, ‘রেলওয়ের দু’জন কর্মকর্তা এবং চারজন নিয়োগ পাওয়া প্রার্থীর বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। ৬ অক্টোবর গ্রহণযোগ্যতার উপর শুনানি হবে।’

নিয়োগ পরীক্ষায় দুর্নীতির অভিযোগে গত ১০ ফেব্রুয়ারি ৬ জনের বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করেছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের উপ-সহকারী পরিচালক মো.নাজিম উদ্দিন। মামলা নম্বর হচ্ছে ১৭, ১৮ ও ১৯।

এর মধ্যে রেলওয়ের ট্রেন টিকেট চেকার পদে অনিয়মের মাধ্যমে নিয়োগের অভিযোগে ১৮ নম্বর মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে।

অভিযোগপত্রভুক্ত ৬ আসামী হলেন, রেলওয়ের সাবেক মহাব্যবস্থাপক ইউসুফ আলী মৃধা ও সাবেক সমাজ কল্যাণ কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া এবং অবৈধভাবে নিয়োগ পাওয়া চার প্রার্থী মো.ইসমাইল হোসেন, সোহেল রানা, সারোয়ার হোসেন ও শাহিদা আক্তার।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৯ এপ্রিল সুরঞ্জিতের এপিএসের গাড়িতে ৭০ লাখ টাকা পায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) জওয়ানরা। এ সময় ওই গাড়িতে অভিযুক্ত ওই দু’জন ছাড়াও রেলের নিরাপত্তা বাহিনীর ঢাকা বিভাগীয় কমান্ড্যান্ট এনামুল হকও ছিলেন। সে রাতে ফারুকের গাড়ি চালক আলী আজম বিজিবি দফতরে টাকাসহ গাড়িটি ঢুকিয়ে দেন। ঘটনার পরদিন থেকে আলী আজম `রহস্যজনকভাবে` নিখোঁজ রয়েছেন।

পরে ওই ঘটনার জেরে রেলমন্ত্রীর পদ ছাড়েন সুরঞ্জিত। বরখাস্ত হন ফারুক এবং সাময়িক বরখাস্ত হন মৃধা ও এনামুল।আদালতে দাখিল করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

রোববার বিকেলে চট্টগ্রাম মুখ্য মহানগর হাকিম মশিউর রহমানের আদালতে দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক (বর্তমানে বরিশালে কর্মরত) মো.নাজিম উদ্দিন অভিযোগপত্রটি দাখিল করেন। আগামী ৬ অক্টোবর অভিযোগপত্রের উপর শুনানির সময় নির্ধারণ করেছেন বিচারক।

চট্টগ্রাম আদালতের দুদকের পিপি অ্যাডভোকেট মাহমুদুল হক মাহমুদ বলেন, ‘রেলওয়ের দু’জন কর্মকর্তা এবং চারজন নিয়োগ পাওয়া প্রার্থীর বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। ৬ অক্টোবর গ্রহণযোগ্যতার উপর শুনানি হবে।’

নিয়োগ পরীক্ষায় দুর্নীতির অভিযোগে গত ১০ ফেব্রুয়ারি ৬ জনের বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করেছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের উপ-সহকারী পরিচালক মো.নাজিম উদ্দিন। মামলা নম্বর হচ্ছে ১৭, ১৮ ও ১৯।

এর মধ্যে রেলওয়ের ট্রেন টিকেট চেকার পদে অনিয়মের মাধ্যমে নিয়োগের অভিযোগে ১৮ নম্বর মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে।

অভিযোগপত্রভুক্ত ৬ আসামী হলেন, রেলওয়ের সাবেক মহাব্যবস্থাপক ইউসুফ আলী মৃধা ও সাবেক সমাজ কল্যাণ কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া এবং অবৈধভাবে নিয়োগ পাওয়া চার প্রার্থী মো.ইসমাইল হোসেন, সোহেল রানা, সারোয়ার হোসেন ও শাহিদা আক্তার।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৯ এপ্রিল সুরঞ্জিতের এপিএসের গাড়িতে ৭০ লাখ টাকা পায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) জওয়ানরা। এ সময় ওই গাড়িতে অভিযুক্ত ওই দু’জন ছাড়াও রেলের নিরাপত্তা বাহিনীর ঢাকা বিভাগীয় কমান্ড্যান্ট এনামুল হকও ছিলেন। সে রাতে ফারুকের গাড়ি চালক আলী আজম বিজিবি দফতরে টাকাসহ গাড়িটি ঢুকিয়ে দেন। ঘটনার পরদিন থেকে আলী আজম `রহস্যজনকভাবে` নিখোঁজ রয়েছেন।

পরে ওই ঘটনার জেরে রেলমন্ত্রীর পদ ছাড়েন সুরঞ্জিত। বরখাস্ত হন ফারুক এবং সাময়িক বরখাস্ত হন মৃধা ও এনামুল।