উপজেলা নির্বাচন দ্বিতীয় ধাপে সহিংসতা ও জালভোট বেশি ছিল-ইডব্লিউজি

প্রকাশ:| রবিবার, ২ মার্চ , ২০১৪ সময় ১০:৫৬ অপরাহ্ণ

উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপ থেকে দ্বিতীয় ধাপে অনিয়ম, সহিংসতা, জালভোট ইত্যাদি ঘটনা অনেক বেশি ঘটেছে বলে জানিয়েছেন বেসরকারি নির্বাচন পর্যবেক্ষণ সংস্থা ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ (ইডব্লিউজি)।

রোববার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে ২৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচন পর্যবেক্ষণের প্রাথমিক বিবৃতিতে ইডব্লিউজি এ তথ্য জানায়।

ইডব্লিউজির পরিচালক মো. আব্দুল আলিম অভিযোগ করে বলেন, ‘উপজেলা নির্বাচনে প্রথম ধাপের চেয়ে দ্বিতীয় ধাপে অনেক অধঃগতি হয়েছে। অনিয়ম আর জালভোটের মাত্রা ছিল অনেক বেশি।’

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, ‘ইডব্লিউজির পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী নির্বাচনের দিন ভোটগ্রহণ কার্যক্রম দক্ষ ও পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নির্বাচন কর্মকর্তাদের মাধ্যমে যথাযথভাবে সম্পন্ন হলেও বেশ কিছু কেন্দ্রে ব্যাপক সহিংসতা, ভোটারদেরকে ভয়-ভীতি দেখানো এবং জালভোট দেয়ার প্রচেষ্টাকে কেন্দ্র করে অনেক ক্ষেত্রেই ভোটগ্রহণ কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হয়।’

সংগঠনটির পর্যবেক্ষণে ভোটকেন্দ্রগুলোতে ভোট পড়ার হার দেখানো হয়েছে ৬৩ দশমিক ১ শতাংশ ।

নির্বাচন পর্যবেক্ষণের কিছু চিত্র তুলে ধরে সংস্থার পরিচালক আব্দুল আলিম বলেন, ‘ইডব্লিউজির পর্যবেক্ষণ করা উপজেলার মধ্যে ১৯টি উপজেলার পর্যবেক্ষিত ভোটকেন্দ্রে ১৩১টি সহিংসতার ঘটনা এবং ১৮টি উপজেলায় ভোটারদেরকে ভয় দেখানোর ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হয়।’

প্রতিবেদনে তিনি আরো উল্লেখ করেন, ‘ভোটকেন্দ্রগুলোতে পুরুষ ভোটারের তুলনায় নারী ভোটারদের উপস্থিতি বেশি ছিল। কিন্তু নারী ভোটারদের ভোটগ্রহণ করতে মাত্র ৪৬ দশমিক ৩ শতাংশ ভোটকক্ষে নারী ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়েছিল।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষণ পরিষদের চেয়ারম্যান প্রফেসর নজরুল আহসান কালিমুল্লাহ, স্থায়ী কমিটির সদস্য নুরুন নবী প্রমুখ।