উন্নত জাতের লিচুর চাষ হচ্ছে বাঁশখালীতে

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| বুধবার, ৬ জুন , ২০১৮ সময় ০৯:৩২ অপরাহ্ণ

ভালো মানের লিচু উৎপাদনের লক্ষে বাঁশখালী উপজেলার কালিপুর, বৈলছড়ি, গুণাগরি, পুকুরিয়া, জলদী ও চাম্বল এলাকায় লাগানো হচ্ছে উন্নত জাতের চারটি লিচু গাছের চারা। ইতিমধ্যে বেদানা, বোম্বাই, চায়না-৩ ও মাদ্রাজি জাতের লিচু চারা রোপন করা শুরু হয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানিয়েছে, বাঁশখালীর কালিপুরের লিচুর গুণগত মান হারিয়ে যাচ্ছে। আগে যে মানের লিচু পাওয়া যেতো, তা এখন পাওয়া যাচ্ছে না। তাই কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কালিপুরে চায়না থ্রি ও বোম্বাই জাতের লিচু চারা রোপনে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করেছে।

কালিপুর ছাড়াও বৈলছড়ি, গুণাগরি ও পুকুরিয়াসহ যেসব জায়গায় লিচু চাষ করা হয় সেখানেও এসব জাতের লিচুর চারা রোপনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। পাশাপাশি কৃষি অফিস থেকে যথাযথ সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে লিচু চাষিদের।

বাঁশখালীতে বর্তমানে ৪৫০ হেক্টর জমিতে এ চারটি উন্নত জাতের লিচুর চারা রোপনের সহযোগিতা করা হচ্ছে বলে জানিয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর চট্টগ্রামের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. আমিনুল হক চৌধুরী বলেন, প্রতি বছর বাম্পার ফলন হলেও বেশির ভাগ লিচুর গুণগত মান ঠিক নেই। অথচ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা পাইকারি ক্রেতারা এসব লিচু কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। ব্যবসায়ীরা যাতে আরও ভালো মানের লিচু পায় সেজন্য চারটি উন্নত জাতের লিচুর চারা রোপন করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘চায়না ৩’ বাংলাদেশের সবচেয়ে উন্নত জাত। দেশের উত্তরাঞ্চলে এ জাতটি চাষের জন্য বিশেষ উপযোগী। তবে আমরা পরীক্ষা করে দেখেছি, বাঁশখালীতেও এ জাতের লিচুর চাষে উপযোগী রয়েছে।

আমিনুল হক জানান, এ জাতের গাছ ছোট থেকে মাঝারি আকারের হয়ে থাকে, গড় উচ্চতা প্রায় ৫ থেকে ৬ মিটার হয়। গাছ প্রতি গড় ফলন ১০৪ কেজি, তবে প্রতি বছরই বা নিয়মিতভাবে ফল ধরে না। এ জাতের লিচু ফল মোটামুটি বড় গোলাকার হয় এবং গড় ওজন প্রায় ২৫-৩০ গ্রাম।
কালিপুরের মো. রহমান মিয়া নামে এক চাষি বলেন, ইতিমধ্যে আমরা চায়না-থ্রি জাতের লিচুর চারা রোপন করেছি। এ ক্ষেত্রে কৃষি কর্মকর্তারা বেশি সহযোগিতা করছেন।