ছাড়া পেলেন কাউন্সিলর মাহবুবুল আলম

প্রকাশ:| বুধবার, ২৮ মে , ২০১৪ সময় ০৬:০৬ অপরাহ্ণ

ছাড়া পেলেন দন্ডাদেশপ্রাপ্ত কাউন্সিলর মাহবুবুল আলম
উচ্ছেদ অভিযানে বাধা, কর্পোরেশনের নারী কর্মীকে মারধর ও লাঞ্চিত করায় দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর মাহবুবুল আলমকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। বুধবার বিকেল ৪টার দিকে ওয়ার্ড কাউন্সিলল মাহবুবুল আলম কর্পোরেশন থেকে বেরিয়ে যান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চসিকের মেয়র এম মনজুর আলম বলেন, দন্ডাদেশের বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা। ভুল বুঝাবুঝি হয়েছিল। আমরা সেটা নিরসন করেছি।

বুধবার দুপুর ১টার দিকে দণ্ডাদেশের পর তাকে চান্দগাঁও থানায় হস্তান্তর করা হয়েছিলো। পরে দুপুর ২টা ৫০ মিনিটে ৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আজমের গাড়িতে করে তাকে সিটি কর্পোরেশনের দিকে নিয়ে যাওয়া হয়। এসময় এক মহিলা কাউন্সিলরসহ আরো ৩ কাউন্সিলর তার গাড়িতে ছিলেন। এসময় তাদের গাড়ির সামনে ও পেছনে দুটি পুলিশের গাড়ি ছিলো।

চান্দগাঁও থানা থেকে কর্পোরেশনে নিয়ে যাওয়ার আগে থানার সামনে মাহবুবুল আলমের মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভরত সমর্থকদের সমাবেশে ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. আজম জানান, দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত সিটি কাউন্সিলরের মুক্তি নিশ্চিত করতে মেয়রসহ সকল পক্ষের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার জন্য নগর ভবনে নিয়ে যাওয়া হবে।

তিনি বলেন, ‘তুচ্ছ ঘটনায় ভুল বোঝাবুঝি থেকে আজকের এ ঘটনার সৃষ্টি হয়েছে। মেয়র মহোদয় আমিসহ ৩ কাউন্সিলরকে মাহবুব ভাইয়ের ছাড়িয়ে নেওয়ার জন্য ব্যবস্থা নিতে পাঠিয়েছেন। কাউন্সিলরও আমাদের, ম্যাজিস্ট্রেটও আমাদের, তাই নগর ভবনে গিয়ে সকল পক্ষের সঙ্গে বসে এ বিষয়ে সমাধান হবে।’

মাহবুবুল আলমকে চান্দগাঁও থানা থেকে মেয়রের কক্ষে নিয়ে যাওয়ার পর সেখানে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোর মধ্যে আলাপ-আলোচনা চলছে।

এদিকে বৈঠক চলাকালে সিটি কর্পোরেশন ঘেরাও করে মাহবুবুল আলমের মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ করছে তার সমর্থকরা। তারা বলছেন, সম্পুর্ণ অন্যায় ও পরিকল্পিতভাবে মাহবুব আলমকে গ্রেফতার করে দণ্ড দেওয়া হয়েছে। তার মুক্তি নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত তারা ফিরে যাবেন না।

বুধবার দুপুরে নগরীর চান্দগাঁও থানার টেকবাজার শাখা খালের পাড় থেকে অবৈধ বসতবাড়ি উচ্ছেদে অভিযানে বাধা এবং কর্পোরেশনের নারী কর্মীকে মারধর ও লাঞ্চিত করার অভিযোগে কাউন্সিলর মাহবুবুল আলমকে গ্রেফতারের পর দু’বছরের কারাদণ্ড দেন কর্পোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজিয়া শিরিন।